কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


স্বপ্ন, সঙ্কল্প ও সফলতার অন্য নাম


 ড. মাহফুজ পারভেজ, উপদেষ্টা সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ২১ আগস্ট ২০১৯, বুধবার, ১০:১৪ | রকমারি 


সাংবাদিকতাকে তিনি বেছে নিয়েছেন জীবনব্যাপী ব্রতে, যার সূচনা উপমহাদেশের প্রধানতম নদী পদ্মা-বিধৌত ফরিদপুরে। তারপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ ও দক্ষিণ এশিয়া পেরিয়ে বিশ্বায়নের পুরোটা পৃথিবী জুড়ে বিস্তৃত বাংলা ও বাঙালির অসীমান্তিক ভূগোলে।

কাজ করেছেন তিনি বাংলাদেশের শ্রেষ্ঠতম ও সর্বাধিক প্রচারিত দৈনিকের দায়িত্বশীল পদে। দৈনিক ইত্তেফাকের স্বর্ণযুগের অন্যতম কাণ্ডারী ছিলেন তিনি। আনন্দবাজার পত্রিকার বাংলাদেশ প্রধান হিসাবে যুক্ত ছিলেন দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম প্রধান মিডিয়া হাউসের গুরুত্বপূর্ণ চালিকা শক্তি রূপে।

ছিলেন বাংলাদেশের সাংবাদিকতার পেশাগত সম্মান ও মর্যাদা বৃদ্ধির পরিশীলন চর্চায়। প্রেসক্লাব, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সর্বজন শ্রদ্ধেয় নেতৃস্থানীয় একজন তিনি।

তিনি অবলীলায় বাংলাদেশের কোনও শীর্ষ দৈনিকের প্রধানের পদে বৃত্ত হতে পারতেন। তেমন আমন্ত্রণ তিনি প্রত্যাখান করেছেন একাধিক বার। বরং তিনি বেছে নিয়েছেন নতুন পথ: স্বপ্নের, সঙ্কল্পের এবং পরিশেষে সফলতার।

তথ্যপ্রযুক্তির মহাবিস্ফোরণের সময় যখন অনলাইন সাংবাদিকার ভ্রূণ আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে কেবল প্রস্ফুটিত হচ্ছিল, তখন তিনি প্রিন্ট মিডিয়ার তুঙ্গস্পর্শী, ঈর্ষণীয় সাফল্যের অবস্থান পরিসমাপ্তি করে শুরু করেন এক স্বাপ্নিক-সাংবাদিকের জীবন। সঙ্কল্প গ্রহণ করলেন বাংলাদেশে অনলাইন সাংবাদিকতা প্রতিষ্ঠার। তার হাত ধরে সূচনা হলো বাংলাদেশের সাংবাদিকতার নতুন ইতিহাস।

তিনি অচীরেই প্রতিষ্ঠা করলেন বিডিনিউজ, তারপর বাংলানিউজ। তার হাত ধরে বাংলাদেশের সাংবাদিকতার জগতে সম্পন্ন হলো অনলাইন মিডিয়ার জাদুকরী প্রতিষ্ঠা।

একেবারেই নতুন ও অপরিচিত অনলাইন মিডিয়াতে তিনি একের পর এক রচনা করলেন সাফল্যের ইতিহাস। যে সাকসেস স্টোরি ও প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ প্রেরণায় বাংলাদেশে অনলাইন সাংবাদিকতার জোয়ার বইলো। দেশের বিশ্ববিদ্যালয়, মিডিয়া জগত ও লক্ষ পাঠকের কাছে তিনি স্বীকৃতি হলেন বাংলাদেশের অনলাইন সাংবাদিকতার পথিকৃৎ ও প্রতিষ্ঠাতার পরিচয়ে।

কিন্তু তার মৌলিক ব্যক্তিত্বের সঙ্গে অনিবার্যভাবে মিশে আছে স্বপ্ন, সঙ্কল্প ও সফলতার বীজমন্ত্র। দুর্নিবার গতিতে এগিয়ে গেলেন তিনি আরও বৃহত্তর মিডিয়া দিগন্তে। বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমের প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে জন্ম দিলেন বাংলাদেশের প্রথম অনলাইন-মাল্টিমিডিয়া নিউজ পোর্টাল। একবিংশ শতকের দ্রুতলয় মানুষের হাতের মুঠোয় খুলে দিলেন অক্ষর আর সচল চিত্রের তাৎক্ষণিক সংবাদ প্রবাহ।

বাঙালি, বাংলার সংবাদ সারথি হয়ে বার বার উত্তরণের পথে নিজেই যেন অতিক্রম করলেন নিজেকে। গতানুগতিকতার কাঠামো ভেঙে একাধিক বার নির্মাণ করলেন মননের প্রাজ্ঞতা ও সৃজনের বিশিষ্টতায় পরিপূর্ণ  নতুন মিডিয়া ইতিহাস। তার যে সাফল্য ব্যক্তিক অর্জনের সীমানা পেরিয়ে বাংলাদেশের সাংবাদিকতা ও মিডিয়াকে প্রতিনিয়ত করেছে ঋদ্ধ ও গৌরবময়। প্রাগ্রসর মিডিয়া প্রকরণ ও ক্ষেত্র বিনির্মাণের পাশাপাশি তিনি নিজের হাতে, দরদে ও ভালোবাসায় সাংবাদিকতার অঙ্গনে যোগ্যভাবে  তৈরি করেছেন শত তরুণকে।

২১ আগস্ট তার জন্মদিন। কিন্তু ২০০৪ সালের নৃশংস গ্রেনেড হামলার রক্তাপ্লূত ঘটনার পর থেকে তিনি তার জন্মদিন পালন করেন না। মানবিক বিবেক ও আর্দ্র হৃদয়ে তিনি ২১ আগস্টের বেদনার  স্মরণে জন্মদিনের সকল আয়োজন বর্জন করেন।

তারপরেও অনানুষ্ঠানিকভাবে শ্রদ্ধা, ভালোবাসা, প্রীতিতে সিক্ত হন তিনি। তিনি আলোচিত হন বাংলাদেশের অনলাইন সাংবাদিকতার জন্ম, বিকাশ ও ভবিষ্যতের প্রয়োজনে। অনলাইনের পরিসরে কর্মরত হাজার লেখক-সাংবাদিক আর লক্ষ পাঠকের অন্তরের শুভেচ্ছায় তিনি চিরসবুজ হয়ে তার স্বপ্ন, সঙ্কল্প ও সাফল্যের যাত্রাপথে এগিয়ে যেতে থাকেন। প্রতিষ্ঠাতার অমোঘ দায়বদ্ধতায় তিনি সকলের সম্মিলিত উষ্ণতায় অনলাইনের চলমান অক্ষর ও ধ্বনিতে সঞ্চরিত করেন ভবিষ্যতের দিকনির্দেশনা এবং ইতিহাসের আগাম প্রতিধ্বনি।

স্বপ্ন, সঙ্কল্প ও সাফল্যের অন্য নাম হয়ে তিনি গুঞ্জরিত হন প্রজন্ম ও পরম্পরায়। ভালোবাসার সমার্থক হয়ে উচ্চারিত হয় তার নাম। আলমগীর হোসেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর