কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


হাজারো কৃষকের স্বপ্নযাত্রার এক অনন্য সারথি


 স্টাফ রিপোর্টার | ২২ আগস্ট ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৯:১২ | ফিচার 


হামিমুল হক সোহাগ একজন উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা। কর্মরত রয়েছেন কিশোরগঞ্জ জেলার পাকুন্দিয়া উপজেলায়। উপজেলার এগারসিন্দুর ইউনিয়নের দাওরাইট, আদিত্যপাশা, আঙ্গিয়াদী, বারাবর, চামরাইদ ও খামা গ্রাম নিয়ে গঠিত আঙ্গিয়াদী ব্লক। এই ব্লকের দায়িত্বে রয়েছেন তিনি।

হামিমুল হক সোহাগ ২০০৬ সালে পাকুন্দিয়া উপজেলায় যোগদান করেন। এরপর থেকে নিজেকে উজাড় করে দিয়েছেন উপজেলার কৃষক আর কৃষির উন্নয়নে। নিজের শ্রম ও মেধার সমন্বয়ে কৃষকদের সাথে নিবিড় যোগাযোগ, সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক স্থাপন ও পরামর্শ প্রদানের মাধ্যমে নিজেকে নিয়ে গেছেন অনন্য উচ্চতায়।

কৃষি বিষয়ক যে কোন প্রয়োজনে, পরামর্শে ও সহায়তায় তাকে সবসময় পাশে পাচ্ছেন কৃষকেরা। হতদরিদ্র অনেককে কৃষি প্রযুক্তিতে সম্পৃক্ত করে তাদের পরিবারে স্বচ্ছলতা এনে দিয়েছেন। রাত কিংবা দিন সর্বক্ষণ কৃষি ও কৃষকদের নিয়েই ভাবেন এ কর্মকর্তা।

এ কারণেই অন্য আর দশজনের চেয়ে কিছুটা আলাদা, ব্যতিক্রম হামিমুল হক সোহাগ। কাজের মাধ্যমে হয়ে উঠেছেন সাধারণ কৃষকের নির্ভরতা প্রতীক। পরিণত হয়েছেন তাদের প্রিয় একজন মানুষে। একজন সরকারি কর্মকর্তা সাধারণ মানুষের আস্থার প্রতীক, বন্ধু বা তাদের প্রিয় মানুষ হতে পারেন তার বাস্তব উদাহরণ সোহাগ।

হামিমুল হক সোহাগ  ২০০৪ সালে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা হিসেবে চাকরিতে যোগ দেন। প্রথম কর্মস্থল ছিলো নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়া উপজেলায়। ২০০৬ সালে কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় বদলী হন। তার বাড়িও এ উপজেলায়।

নিজ এলাকায় চাকরি করার পরও পরিবারের চেয়ে সাধারণ কৃষকদের নিয়েই বেশি ব্যস্ত থাকেন হামিমুল হক সোহাগ। যেখানে অনেক ফাঁকি দেওয়ার সুযোগ ছিলো সেখানে কর্তব্য ও দায়িত্বের প্রতি অবিচল থেকে কৃষকদের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন। এজন্যই তিনি অন্যদের চেয়ে ব্যতিক্রম।

কৃষকদের সাথে সার্বক্ষণিক সম্পর্ক স্থাপন ও কৃষি প্রযুক্তিতে কৃষকদের সম্পৃক্ত করার মাধ্যমে কৃষি বিপ্লব ঘটিয়েছেন। কৃষকদের করেছেন আধুনিকায়ন। বাড়তি আয়-রোজগারের পাশাপাশি অনেককে করেছেন স্বাবলম্বী।

ভার্মি কম্পোস্ট (কেঁচো সার) ব্যবহার ও উৎপাদন, বিষমুক্ত কলা উৎপাদনে ব্যাগিং পদ্ধতি, ইয়েলো কালার ট্র্যাপ, ফেরোমন ট্র্যাপ, ডাম সিডার দিয়ে বপন পদ্ধতিতে ধান আবাদ, ছাদ বাগান, ড্রাগন চাষ, উচ্চ ফলনশীল ভিয়েতনামী নারিকেল, ও পাকচং ঘাষ চাষ, বারো মাসি সজিনা ও মচির চাষ এবং খামারজাত সার সংরক্ষণ (গোবর সংরক্ষণ) প্রভৃতি কর্মকান্ড বাস্তবায়নের মাধ্যমে গ্রামের কৃষকদের আধুনিকায়ন করেছেন।

ফেসবুকে ‘কৃষি কর্মকাণ্ডে ব্লক আঙ্গিয়াদী’ আইডির মাধ্যমে জন সাধারণকে কৃষি প্রযুক্তি সম্পর্কে ধারণা দিয়ে আসছেন। দিনের বেলায় কাজে ব্যস্ত থাকা চাষীদের কৃষি বিষয়ে পরামর্শ দেওয়ার  জন্য খুলেছেন রাত্রীকালিন পরামর্শ কেন্দ্র। সপ্তাহের সাতদিনই সন্ধ্যা থেকে রাত নয়টা পর্যন্ত বিনামূল্যে কৃষকদের পরামর্শ প্রদান করছেন।

এক গ্রামের কৃষকদের সাথে অন্য গ্রামের কৃষকদের সংযোগ স্থাপন করে দিচ্ছেন। কৃষি বিষয়ক নিত্য নতুন প্রযুক্তি, সমস্যা ও সম্ভাবনা নিয়ে পরামর্শ প্রদান করে আসছেন। খামা গ্রামের কৃষকদের কেঁচো সার উৎপাদন ও ব্যবহারে সম্পৃক্ত করে ভার্মি গ্রামের স্বীকৃতি এনে দিয়েছেন। কেঁচো সারের গ্রাম হিসেবে এ গ্রামের নাম এখন দেশজুড়ে।

কেঁচো সার উৎপাদন করে এ গ্রামের এক কৃষক বঙ্গবন্ধু কৃষি পদক লাভ করেছেন। সংসারে স্বচ্ছলতার পাশাপাশি এ গ্রামের শতাধিক কৃষাণ-কৃষাণি এখন স্বাবলম্বী।

খামা গ্রামের ষাটোর্ধ্ব বয়সী কৃষক মো. নিজাম উদ্দিন বলেন, ‘২০১৭সালে আমি সোহাগের পরামর্শে কেঁচো সার উৎপাদন শুরু করি। জমিতে কেঁচো সার ব্যবহারে ব্যাপক সাফল্য পায়। পরে বাণিজ্যিকভাবে কেঁচো সার উৎপাদন করতে থাকি। এভাবে আমি পর্যায়ক্রমে লাভবান হতে থাকি। ২০১৮ সালে আমি বঙ্গবন্ধু কৃষি পদক পাই। আমার জীবনে এর চেয়ে আনন্দের আর কিছু নেই। এ পদক আমার জীবনের শ্রেষ্ঠ অর্জন। তবে এর সকল কৃতিত্ব সোহাগের। তার জন্যই আমার এত পরিচিতি ও অর্জন। আমি তার দীর্ঘায়ু ও মঙ্গল কামনা করি।’

একই গ্রামের  কৃষক খুর্শিদ উদ্দিন বলেন, ‘সোহাগ ভাইয়ের পরামর্শে ১৭শতাংশ জমিতে ড্রাগন চাষ শুরু করি। এ উপজেলায় আমিই প্রথম ড্রাগন ফল চাষী। শুরুতে আমাকে নিয়ে অনেকেই হাসি তামাশা করতো। এখন আর কেউ তা করে না। ড্রাগনের ফল ও গাছের কাটিং বিক্রি করে আমার সংসারে স্বচ্ছলতা এসেছে।’

আঙ্গিয়াদী গ্রামের কৃষক আতাবুর বলেন, সোহাগ ভাই আমাকে ‘ড্রাম সিডার’ চালানোর প্রশিক্ষণ দেয়। তার কাছ থেকে ড্রাম সিডার চালানোর কৌশল গ্রহণ করে নিজের জমিতে এ প্রযুক্তি ব্যবহার করে ধান আবাদ করছি। পাশাপাশি উপজেলার অন্য কৃষকদের জমিতে এ প্রযুক্তি ব্যবহার করে আয় রোজগার করছি।

আদিত্যপাশা গ্রামের রোকন উদ্দিন বলেন, সোহাগের ভাইয়ের কাছ থেকে ‘ফেরোমন ট্র্যাপ/ইয়েলো কালার ট্র্যাপ’ প্রযুক্তির মাধ্যমে কম খরচে বিষমুক্ত সবজি চাষ করে সফলতা পেয়েছি। বেশি ফলন পাওয়ার পাশাপাশি বাড়তি আয়ও হচ্ছে।

এছাড়াও আঙ্গিয়াদী ব্লকের নাছিমা, আলেয়া, রহিমা, রাবেয়া, খাদিজা, নূরুল ইসলাম, জালাল উদ্দিন ও আলাউদ্দিনসহ অনেক কৃষাণ-কৃষাণিকে কৃষি প্রযুক্তিতে সম্পৃক্ত করে বাড়তি আয় রোজগারের মাধ্যমে তাদের সংসারে স্বচ্ছলতা এনে দিয়েছেন এ উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা।

শুধু তাই নয় হামিমুল হক সোহাগ একজন দক্ষ সংগঠকও। তার নেতৃত্বে আঙ্গিয়াদী ব্লকের তিনটি কৃষক সমিতি এনএটিপি-২ প্রকল্প থেকে আট লাখ টাকার কৃষি যন্ত্রাংশ অনুদান পায়।

এসব কৃষি যন্ত্রাংশ ব্যবহার করে কৃষকেরা আরও বেশি লাভবান হবে এবং কৃষি ক্ষেত্রে আরও উন্নয়ন হবে। এভাবে তিনি নিরলস পরিশ্রমের মাধ্যমে এ এলাকার কৃষকদের ভাগ্য উন্নয়নে নিজেকে নিয়োজিত রেখে চলেছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর