কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পুরি, সিঙ্গারা, সমুচার জন্য বিখ্যাত কিশোরগঞ্জের সেগুনবাগিচা


 বিশেষ প্রতিনিধি | ২৩ আগস্ট ২০১৯, শুক্রবার, ৫:১৪ | অর্থ-বাণিজ্য 


কিশোরগঞ্জ শহরের ব্যস্ততম গৌরাঙ্গবাজার মোড়ের ১০/১৫ গজ উত্তর কিংবা পশ্চিম দিকের সরু গলি ধরে এগোলেই চোখে পড়বে সেগুনবাগিচা রেস্তোরাঁ। রেস্তারাঁটিতে ভিড় জমিয়ে সকাল-সন্ধ্যা ছেলে-বুড়ো সব বয়সের মানুষ স্বাদ নিচ্ছেন আলুর চপ, পুরি, সিঙ্গারা, সমুচার। অনেকে আবার লাইন ধরে বাসা-বাড়ির জন্য কিনে নিয়েও যাচ্ছেন।

সেগুনবাগিচা রেস্তোরাঁর মুখরোচক আলুর চপ, পুরি, সিঙ্গারা, সমুচার টানে এমন ভিড় নিত্যদিনের। কিশোরগঞ্জে এমন মানুষ পাওয়া দুস্কর যিনি সেগুনবাগিচার আলুর চপ, পুরি, সিঙ্গারা কিংবা সমুচার স্বাদ গ্রহণ করেননি।

সেগুনবাগিচার পুরি, সিঙ্গারা, সমুচা ও আলুর চপের এই কদর দীর্ঘদিনের। এখানকার গরম গরম পুরি, সিঙ্গারা, সমুচা ও আলুর চপের স্বাদই আলাদা। এছাড়া দামেও রয়েছে চমক। মাত্র তিন টাকায় পুরি, তিন টাকায় সিঙ্গারা, পাঁচ টাকায় সমুচা এবং পাঁচ টাকায় আলুর চপ বিক্রি হয় রেস্তোরাঁটিতে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আব্দুল গফুর নামে এক কারিগরের হাত ধরে ষাটের দশকে রেস্তোরাঁটির যাত্রা শুরু হয়। পরবর্তিতে শহরের বত্রিশ এলাকার রতন বনিক রেস্তারাঁটির হাল ধরেন। রতন বনিক টি স্টল নামে দীর্ঘদিন রেস্তোরাঁটি পরিচালনা করেন রতন বনিক।

গত ছয় বছর ধরে সেগুনবাগিচা রেস্তোরাঁ নামে রেস্তোরাঁটি পরিচালনা করছেন কিশোরগঞ্জ সদরের লতিবাবাদ ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. মঞ্জিল মিয়া ও শহরের কলাপাড়া এলাকার বাসিন্দা সুমন মিয়া।

ঐতিহ্যবাহী এই রেস্তোরাঁয় তৈরি পুরি, সিঙ্গারা, সমুচা ও আলুর চপ কিশোরগঞ্জের ভোজনরসিকদের কাছে এক আকর্ষণের নাম। শহরের অনেক রেস্তোরাঁতেই পুরি, সিঙ্গারা, সমুচা তৈরি করা হয়। কিন্তু সেগুনবাগিচার পুরি, সিঙ্গারা, সমুচা যেন একেবারেই অন্যরকম, ভিন্ন আর ব্যতিক্রমি স্বাদের।

রেস্তোরাঁটির পরিচালনায় পালাবদল ঘটলেও এটি তার পুরোনো মান ও অবস্থান ধরে রেখেছে। ঐতিহ্যবাহী এই রেস্তোরাঁটিতে দিন দিন বাড়ছে ভোজনরসিকদের আনাগোনা। তাঁরা রেস্তোরাঁয় বসে স্বাদ গ্রহণের পাশাপাশি পরিবারের জন্য কিংবা অতিথি আপ্যায়নের জন্যও এখানে তৈরি পুরি, সিঙ্গারা, সমুচা, চপ বাসা-বাড়িতে নিয়ে যাচ্ছেন।

এছাড়া এখান থেকে বিভিন্ন অফিস-আদালতসহ নানা সামাজিক-সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রয়োজনীয় অর্ডার সরবরাহ করাও হচ্ছে।

কেবল পুরি, সিঙ্গারা, সমুচাই নয় সুলভে দেশীয় খাবারের জন্যও বর্তমানে রেস্তোরাঁটির যথেষ্ঠ কদর তৈরি হয়েছে। সকাল-দুপুর পরোটা-আলুর দম আর সুলভে দুপুর ও রাতের খাবারের টানেও এখানে ভিড় করছেন অনেকে।

রেস্তোরাঁটিতে প্রায় তিন যুগ ধরে কারিগর হিসেবে কাজ করছেন অজিত সেন। তিনি জানান, চারপাশের অনেক উত্থান-পতনের মধ্যেও এখানকার পুরি, সিঙ্গারা, সমুচা, চপ কিশোরগঞ্জের মানুষের কাছে এখনও সমান সমাদৃত। মানুষের এই আস্থা ধরে রাখার জন্য তারাও সর্বোচ্চ শ্রম ও পরিশ্রম দিয়ে এখানে কাজ করে যাচ্ছেন।

একই রকমের কথা বললেন প্রায় বিশ বছর ধরে রেস্তোরাঁটিতে কারিগর হিসেবে কাজ করা দিলীপ সাহা ও গোপাল বনিক। তাদের মতে, ভেজালের ভিড়েও তারা এখানে তাদের তৈরি পুরি, সমুচা, সিঙ্গারা ও চপের মান ধরে রাখতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছেন।

রেস্তোরাঁর পরিচালক মো. মঞ্জিল মিয়া ও সুমন মিয়া জানান, দীর্ঘদিনে সেগুনবাগিচা রেস্তোরাঁর একটি সুনাম তৈরি হয়েছে। সেই সুনাম ও মানুষের আস্থা ধরে রেখে আগামীতেও তারা নিজেদের সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর