কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


নিরবেই চলে গেল ভাটির সন্তান রবীন্দ্রসংগীতের অমর শিল্পী দেবব্রত বিশ্বাসের জন্ম-প্রয়াণ দিবস


 বিশেষ প্রতিনিধি | ২৫ আগস্ট ২০১৯, রবিবার, ১২:১৩ | বিশেষ সংবাদ 


গত ২২ আগস্ট রবীন্দ্রসংগীতের অমর শিল্পী দেবব্রত বিশ্বাসের জন্মদিবস ছিল। এর চার দিন আগে ১৮ আগস্ট ছিল তাঁর প্রয়াণ দিন। নিরবে-নিভৃতে কোন আনুষ্ঠানিকতা ছাড়াই তার জন্ম এবং প্রয়াণের দিনটি চলে গেল। দেবব্রত বিশ্বাস শোকের মাস আগস্ট মাসে তিনি জন্মেছিলেন, আবার এই আগস্ট মাসেই তিনি চলে গিয়েছিলেন চিরদিনের মতো।

কিশোরগঞ্জ জেলার ইটনার নন্দিহাটি গ্রামে ১৯১১ সালের ২২ আগস্ট জন্মগ্রহণ করেন দেবব্রত বিশ্বাস। ১৯৮০ সালের ১৮ আগস্ট কোলকাতার ১৭৪ ই রাসবিহারী অ্যাভিনিউয়ের বাসা খালি করে তিনি চলে যান চিরদিনের জন্য।

এই সময়েই তিনি আস্তানা গাড়লেন এ পার বাংলা-ও পার বাংলার কোটি মানুষের হৃদয়ে। মানুষের বুকের যে অঞ্চলে অমর মানুষের বসবাস। রবীন্দ্র সংগীতের জনপ্রিয় শিল্পী ছিলেন দেবব্রত বিশ্বাস। দেবব্রত বিশ্বাস সবার কাছে পরিচিত ছিলেন জর্জ বিশ্বাস বা জর্জদা হিসেবে। তাঁর ছোটবেলায় ব্রিটিশ রাজা পঞ্চম জর্জ একবার ভারতে এসেছিলেন। সেই থেকে তাঁর ডাক নাম হয়ে যায় জর্জ।

দেবব্রত বিশ্বাসের পিতার নাম দেবেন্দ্রমোহন বিশ্বাস। পিতামহ কালীমোহন বিশ্বাস ব্রাহ্মধর্ম গ্রহণ করায় নিজ গ্রাম ইটনা থেকে বিতাড়িত হন। শৈশবে কিশোরগঞ্জের বিদ্যালয়ে দেবব্রত সেই কারণে ‘ম্লেচ্ছ’ বলে বিবেচিত হতেন। শিশুবয়সেই মা অবলা দেবীর মাধ্যমে ব্রহ্মসংগীত, রবীন্দ্রসংগীত ও রবীন্দ্রনাথের নামের সাথে পরিচিত হন।

মহেন্দ্র রায়ের কাছে দেশাত্মবোধক গান শেখেন এবং কিশোরগঞ্জের স্বদেশী সভায় অল্পবয়স থেকেই গান গাইতেন। ১৯২৭ সালে ম্যাট্রিক পাস করে দেবব্রত বিশ্বাস কলকাতার সিটি কলেজে ভর্তি হন। এই সময়ে ব্রাহ্মসমাজ ও পরে শান্তি নিকেতনে গান গাওয়ার আমন্ত্রণ পান। জোড়াসাঁকোর ঠাকুরবাড়ির সঙ্গেও তখন ঘনিষ্ঠতা বাড়ে। ১৯২৮ সালের ব্রাহ্ম ভাদ্রোৎসবে কলকাতার সাধারণ ব্রাহ্মসমাজ মন্দিরে রবীন্দ্রনাথকে প্রথম দেখেন দেবব্রত।

১৯৩৩ সালে সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে এমএ পাশ করেন দেবব্রত বিশ্বাস। পরের বছর হিন্দুস্থান ইনসিওরেনস কোম্পানিতে বিনা মাইনের চাকরিতে যোগদান করেন। এক বছর পর ১৯৩৫ সালে চাকরি পাকা হয় ও বেতন ধার্য হয় ৫০ টাকা।

এই চাকরিসূত্রে রবীন্দ্রনাথের ভ্রাতুষ্পুত্র সুরেন্দ্রনাথ ঠাকুর ও তাঁর পুত্র সুবীর ঠাকুরের সঙ্গে আলাপ হয় দেবব্রত বিশ্বাসের। মূলত এঁদেরই সূত্রে রবীন্দ্রসঙ্গীত জগতে পদার্পণ করেন দেবব্রত বিশ্বাস।

১৯৩৮ সালে কনক দাশের সঙ্গে দ্বৈতকণ্ঠে প্রথম তাঁর রবীন্দ্রসঙ্গীত রেকর্ড। এই সময় থেকে হিজ মাস্টার্স ভয়েস ও অন্যান্য রেকর্ড সংস্থা তাঁর গান রেকর্ড করতে শুরু করে। রবীন্দ্রসঙ্গীতের পাশাপাশি গণসঙ্গীত ও অন্যান্য গানও গাইতেন।

তাঁর আত্মজীবনী থেকে জানা যায়, এই সময় কাজী নজরুল ইসলামের সঙ্গেও তাঁর পরিচয় হয়েছিল এবং নজরুল তাঁর গান শুনে তাঁকে দুটি গান শিখিয়ে সেগুলি রেকর্ড করিয়েছিলেন। একটি গান “মোর ভুলিবার সাধনায় কেন সাধো বাদ” অপরটি আত্মজীবনীতে তিনি স্মরণ করতে পারেননি। যদিও এই রেকর্ডদুটি প্রকাশিত হয়নি।

দেবব্রত বিশ্বাস যখন সঙ্গীতজগতে প্রবেশ করেন তখন মিহি কণ্ঠই সঙ্গীতের জন্য আদর্শ ও জনপ্রিয় বলে বিবেচিত হত। কিন্তু পঙ্কজ মল্লিক ও হেমন্তকুমার মুখোপাধ্যায়সহ তিনি গুরুগম্ভীর ও উদাত্ত কণ্ঠকে গানের গলা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত ও জনপ্রিয় করেন। এ তিন শিল্পী মিলে রবীন্দ্রসঙ্গীতকে শহরের শিক্ষিতদের বৈঠকখানা থেকে মুক্ত করে সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দেন। প্রচলিত রীতি অগ্রাহ্য করে দেবব্রত বিশ্বাস গাইতেন নিজস্ব ভঙ্গিতে।

তাঁর আত্মজীবনী ব্রাত্যজনের রুদ্ধ সঙ্গীত (১৯৭৮) গ্রন্থে দেখা যায়, তিনি দেশীবিদেশী বাদ্যযন্ত্র ব্যবহার করতেন বলে রক্ষণশীল সঙ্গীত শিল্পীরা তাঁর কঠোর সমালোচনা করেন। ফলে বিশ্বভারতীর সঙ্গীত পর্ষদ থেকে তাঁর রেকর্ড অনুমোদন বন্ধ হয়ে যায়। এর প্রতিবাদে তিনি রবীন্দ্রসঙ্গীত রেকর্ড করা থেকে বিরত থাকেন।  আক্ষেপ করে দেবব্রত বিশ্বাস গেয়েছিলেন, ‘হ্যারা আমারে গান গাইতে দিল না, আমি গাইতাম পারলাম না'।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে দেবব্রত বিশ্বাস শরণার্থীদের নানাভাবে সহায়তা করেন। এমনকি মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক তাঁর গানের রয়ালটির পুরো অর্থ তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে তুলে দেন। দেবব্রত বিশ্বাস আজীবন মগ্ন থেকেছেন নিজের গানে৷ তাঁর বিরোধিতা হয়েছে, তাঁকে ভাঙিয়ে ব্যবসা হয়েছে, কিন্তু সেই দীনতা তাঁকে স্পর্শ করতে পারেনি৷ তাই আজও তিনি অমলীন, ভাস্কর, এই গানের ভুবনে।

কিশোরগঞ্জের ইটনায় দেবব্রত বিশ্বাসের কোটি টাকার সম্পত্তি দখল করে নিয়েছে এলাকায় কতিপয় প্রভাবশালী। প্রশাসন দেবব্রত বিশ্বাসের সম্পদ উদ্ধারে কোন ব্যবস্থা নেয়নি দীর্ঘদিনেও।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর