কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সৌদিতে দুর্ঘটনায় মারা যাওয়া কিশোরগঞ্জের মাওলানা মঞ্জিলের বাড়িতে মাতম


 বিশেষ প্রতিনিধি | ২৮ আগস্ট ২০১৯, বুধবার, ৩:৫৬ | প্রবাস 


সৌদি আরবের নাজরানে প্রাইভেটকারের নিচে চাপা পড়ে মাওলানা মো. তাফাজ্জল হোসেন মঞ্জিল (৪৮) নামে এক প্রবাসী বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন। গত ২২শে আগস্ট (বৃহস্পতিবার) নাজরান শহরে স্থানীয় সময় দুপুর দেড়টার দিকে মর্মান্তিক এই দুর্ঘটনায় ঘটনাস্থলেই মারা যান তিনি। নিহত মাওলানা মো. তাফাজ্জল হোসেন মঞ্জিল বাংলাদেশের কিশোরগঞ্জ জেলার কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার বৌলাই ইউনিয়নের বিলবরুল্লা গ্রামের মৃত হাজী গোলামুন্নবীর একমাত্র ছেলে।

তিনি প্রায় ১০ বছর আগে সৌদি আরবে যান। সেখানে বিন লাদেন কোম্পানীতে তিনি কাজ করতেন। সৌদি আরবে যাওয়ার আগে তিনি বাংলাদেশে আলিয়া মাদরাসাসহ বেশ কয়েকটি মাদরাসা ও মক্তবে শিক্ষকতা করেছেন। এছাড়া তিনি স্থানীয় বিলবরুল্লা নাজির হাজীর বাড়ি জামে মসজিদের খতিব হিসেবে দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালন করেন।

এদিকে গত ২২শে আগস্ট (বৃহস্পতিবার) দুর্ঘটনাটির ঘটনাটি ঘটলেও এর দুই দিন পর ২৪শে আগস্ট (শনিবার) নাজরানের এক রুমমেটের মাধ্যমে মাওলানা মো. তাফাজ্জল হোসেন মঞ্জিলের মৃত্যুর খবরটি জানতে পারে পরিবার। এরপর থেকে পরিবারের সদস্যরা ভাসছেন চোখের জলে। স্বজনেরা জানিয়েছেন, নিহত মাওলানা মো. তাফাজ্জল হোসেন মঞ্জিলের স্ত্রী, তিন ছেলে ও ছয় মেয়ে রয়েছে। মাওলানা মো. তাফাজ্জল হোসেন মঞ্জিলই ছিলেন পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি।

নিহত মাওলানা মো. তাফাজ্জল হোসেন মঞ্জিলের বড় সন্তান চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী জাহাঙ্গীর হুসাইন আব্বাদী জানান, বাড়িতে টাকা পাঠানোর কথা ছিল তার বাবা মাওলানা মো. তাফাজ্জল হোসেন মঞ্জিলের। সেজন্যে উনি ব্যাংকে যাচ্ছিলেন। কিন্তু ব্যাংকে গিয়ে টাকা পাঠানোর আগেই পথে একটি প্রাইভেটকার উনাকে চাপা দেয়। সেখান থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

জাহাঙ্গীর হুসাইন আব্বাদী আরো জানান, তার বাবার লাশ দেশে আনার জন্য তারা সৌদি আরবের কোম্পানির সাথে যোগাযোগ করেছেন। এ সংক্রান্ত কাগজপত্রও প্রস্তুত করছেন। এজন্যে তিনি সরকারের কাছে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের আকুতি জানিয়েছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর