কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


চিত্রনায়ক সাইমন সাদিকের নায়ক হয়ে ওঠার গল্প


 বিশেষ প্রতিনিধি | ৩০ আগস্ট ২০১৯, শুক্রবার, ৯:২২ | বিনোদন 


অভিনেতা সাইমন সাদিক। জন্ম ১৯৮৬ সালের ৩০ আগস্ট কিশোরগঞ্জ সদরের মহিনন্দ ইউনিয়নের কলাপাড়া গ্রামে। বাবা স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মো. সাদেকুর রহমান। মা উম্মে কুলসুম গৃহিনী। তিন বোন ও দুই ভাইয়ের মধ্যে সাইমন চতুর্থ। স্কুল জীবনে পড়াশোনা করেছেন কিশোরগঞ্জ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে। পরে ঢাকায়।

পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ছোট বেলা থেকে সাইমন ছিল অত্যন্ত হাস্যোজ্জল, প্রাণবন্ত। বন্ধুদের মাঝে সর্বদা উৎফুল্ল থাকতো। ছিল প্রচার বিমুখ। টিভি দেখতো কম। ছবি ওঠানোতে শখ ছিল না। সারাক্ষণ ব্যস্ত থাকতো খেলাধূলা, গান আর বন্ধুদের সাথে আড্ডায়। খেলাধূলা ও গানের পাশাপাশি ভালো গিটার বাজাতে পারেন তিনি। ছোট বেলা থেকেই এলাকায় ভদ্র, মার্জিত, বিনয়ী ও মিশুক ছেলে হিসেবে পরিচিত। অভিনেতা হওয়ার পরও এখনো এলাকায় তিনি আগের মতো আচরণ করেন সবার সাথে।

অভিনেতা সাইমনের বন্ধু কিশোরগঞ্জ শহরের নীলগঞ্জ মোড়ের রিফাত উদ্দিন আহমেদ তাঁদের ছোট বেলার অনেক মজার কাহিনী শোনালেন। ছোট বেলা থেকেই তাঁরা খুব ঘনিষ্ট ছিলেন। একজন আরেকজনকে ভণ্ড বলে সম্বোধন করতেন। এখনো তাই। ৮ম শ্রেণিতে পড়ার সময় পড়াশোনা নিয়ে ধমকানোতে তাঁরা দুইজন মিলে একবার বাড়ি থেকে রাগ করে চট্টগ্রামে চলে যান। সেখানে এক অচেনা বোর্ডিং-এ কয়েকদিন অবস্থান করেন। তাঁদের ‘ইয়ং স্টার’ নামে একটি গ্রুপ ছিল। এ গ্রুপের সদস্যরা স্কুল ফাকি দিয়ে সারাক্ষণ ক্রিকেট খেলা, গাছে উঠা, উদ্যেশ্যবিহীনভাবে ট্রেনের ছাদে করে ঘুরে বেড়ানো, গান বাজনা, আড্ডা আর আনন্দ উল্লাস নিয়ে ব্যস্ত থাকতো। একবার ট্রেনের ছাদে করে ঘুরতে যেয়ে ফিরতি ট্রেন মিস করায় অনেক রাত হয়ে যায়। সেদিন সব বন্ধুদের পরিবারের সদস্যরা অনেক উৎকন্ঠায় সময় কাটান। কারণ সেসময় মোবাইল ফোন বা যোগাযোগের এতটা সুযোগ ছিলনা। সেই থেকে তাঁদের উদ্যেশ্যবিহীন ট্রেন যাত্রা বন্ধ।

মজার বিষয় হলো প্রতি শুক্রবার জুমআর নামাজের পর পরিপাটি হয়ে তাঁরা শহরের বিভিন্ন কমিউনিটি সেন্টারগুলোতে ঘুরে বেড়াতেন। কোথায় বিয়ের অনুষ্ঠান চলছে। অনুষ্ঠান পেলেই বর ও কনের স্বজন বলে ১০-১৫ জন বন্ধু দাওয়াত ছাড়াই খাওয়ায় হানা দিতেন। আর এই দাওয়াত ছাড়াই খাওয়ার দলের উস্তাদ ছিলেন সাইমন। কোনো সময় খেতে গিয়ে ধরা পড়ে গেলে সেই সবকিছু ম্যানেজ করতো।

রিফাত বলেন, সাইমনকে নিয়ে তাঁদের সময়টা খুব মজায় খাটতো। যদি কোনো দিন কোনে বন্ধুর বাসা খালি হতো। সেদিন সেই বাসায় তাঁরা হানা দিত। এবং সব বন্ধুরা মিলে বাজার করে রান্নাবান্না করে সেখানে ভোজের আয়োজন করতো। আর এই রান্নাবান্নার দায়িত্ব পড়তো সাইমনের ওপর। কারণ সাইমন ভালো খিচুড়ি পাকাতে পারে। তবে তাঁরা সবসময় মজা আর আড্ডায় কাটালেও কখনো কোনো খারাপ নেশায় জড়ায়নি। ছোট বেলার সাইমন আর অভিনেতা সাইমনের বিষয়ে বলতে গিয়ে এই বন্ধু বলেন, সাইমন আগে যা ছিল, এখনো তাই। কোনো পরিবর্তন হয়নি। এলাকায় এলে এখনো সবাই মিলে আগের মতো মিলেমিশে আড্ডা, লুঙি পড়ে ঘুরাঘুরি করি। দেখে বুঝা যাবে না যে সে একজন নামী অভিনেতা।

সাইমনের শিক্ষক কিশোরগঞ্জ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক গোলাম ফারুক ভুইয়া বলেন, আমাদের বিদ্যালয় থেকে পড়াশোনা করে অনেক ছাত্র দেশ ও দেশের বাইরে অনেক উচ্চ পর্যায়ে কর্মরত আছে। এটা আমাদের জন্য অনেক গর্বের বিষয়। তেমনি আমার ছাত্র সাইমনকে যখন নায়ক হিসেবে বড় পর্দায় দেখি। তখন আমার কাছে খুব ভালো লাগে।

প্রতিবেশি হেলাল উদ্দিন মাস্টার বলেন, সাইমন অনেক ভদ্র ও নিরহংকার ছেলে। বাড়িতে এলে শত শত মানুষ তাঁকে দেখতে ভিড় জমায়। এলাকায় ছেলে নায়ক হয়েছে, তাই মানুষ ভিড় করে। বিষয়টি অনেক উপভোগ করি।

সাইমনের মা উম্মে কুলসুম বলেন, সাইমনের প্রথম মুক্তি পাওয়া ছবি ‘জী হুজুর’ দেখতে তিনি ঢাকায় বলাকা সিনেমা হলে যান। এবং সেখানে প্রথম বড় পর্দায় ছেলেকে নায়ক হিসেবে দেখে আনন্দে আবেগাপ্লুত হয়ে ছেলে সাইমনকে জড়িয়ে ধরে কেঁদে ফেলেন।

সাইমনের বাবা মো. সাদেকুর রহমান স্থানীয় রাজনীতির পাশাপাশি একজন সংস্কৃতিমনা ব্যক্তি ছিলেন। এলাকায় বিভিন্ন মঞ্চ নাটকে তিনি বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন। কোনো সিনেমা মুক্তি পেলে সবার আগে তিনি দূর-দূরান্তের সিনেমা হলে ছুটে যেতেন। এবং সিনেমো দেখে এসে বন্ধুদের সাথে সেই কাহিনী বলতেন। মূলত তাঁর ইচ্ছা, ভরসা আর সাহসের কারণেই ছেলে আজকে নায়ক। ছেলেকে প্রথম বড় পর্দায় দেখতে যেয়ে অভিজ্ঞতার বর্ণনায় তিনি বলেন, কিশোরগঞ্জের সব বন্ধু-বান্ধবকে নিয়ে শহরের মানসি সিনেমা হলে ‘জী হুজুর’ সিনেমা দেখতে যাই। পর্দায় ছেলেকে নায়ক হিসেবে দেখে আমার সেই আগের দিনের কথা মনে পড়ে যায়। একসময় প্রায়ই ঢাকা যেতাম। উদ্দেশ্য, এফডিসি’র আশপাশের বিল্ডিংয়ের ছাদে উঠে নায়ক-নায়িকাকে এক নজর দেখা।

পরিচালক জাকির হোসেন রাজুর হাত ধরে চলচ্চিত্রে আগমন ঘটে এই সুদর্শন নায়কের। ‘সাগর শিকদার’ নামে চলচ্চিত্রের এক জুনিয়র শিল্পীর মাধ্যমে জাকির হোসেন রাজুর সাথে সাইমনের পরিচয় ঘটে। রাজু তাকে নায়ক বানানোর স্বপ্ন দেখান, সেই স্বপ্নে বিভোর হয়ে বারিধারায় একটি প্রতিষ্ঠানের চাকরি ছেড়ে অভিনয়ের প্রতি মনোযোগী হন সাইমন। অবশেষে ২০১২ সালের দিকে আনন্দমেলা চলচ্চিত্রের প্রযোজনা ও জাকির হোসেন রাজুর পরিচালনায় ‘জ্বী হুজুর’ চলচ্চিত্রের নায়ক হিসেবে সাইমনের অভিষেক। তারপর থেকে বাজিমাত করেই চলেছেন তিনি। বিশেষ করে জাকির হোসেন রাজুর ‘পোড়ামন’ ছবি দিয়ে তিনি আলোচনায় আসেন। পাশাপাশি কেয়া ও মৌসুমি হামিদের বিপরীতে ‘ব্ল্যাকমানি’ ছবিতেও অভিনয় করে প্রশংসিত হন তিনি। তার মুক্তিপ্রাপ্ত অন্যান্য ছবির মধ্যে রয়েছে ‘তোমার কাছে ঋণী’, ‘তুই শুধু আমার’, ‘স্বপ্ন ছোঁয়া’, ‘পুড়ে যায় মন’,‘মায়াবিনী’, ‘জান্নাত’সহ বেশ কিছু।

গত বছর ঈদুল আযহায় মুক্তি পেয়েছিলো সাইমন-মাহি অভিনীত ‘জান্নাত’। দর্শকের প্রশংসা কুড়িয়েছিলো সিনেমাটি। এবার ইতালির বড় এক চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শিত হতে যাচ্ছে এই সিনেমা। ২৪তম মিলান চলচ্চিত্র উৎসবে অংশ নিবে সাইমন-মাহির ‘জান্নাত’। চলতি বছরের ৪ অক্টোবর শুরু হবে ২৪তম মিলান চলচ্চিত্র উৎসব।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর