কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মিথ্যা জবানবন্দি না দেয়ায় তাড়াইল থানায় অটোরিকসা চালককে নির্যাতনের অভিযোগ


 স্টাফ রিপোর্টার | ৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শনিবার, ৭:৪৭ | তাড়াইল  


পুলিশের কথা মতো যাত্রীদের বিরুদ্ধে মাদক সরবরাহকারী ও শিশু পাচারকারীর মিথ্যা জবানবন্দি না দেয়ায় কিশোরগঞ্জের তাড়াইলে সিএনজিচালিত অটোরিকসার এক চালককে থানায় সারারাত আটকে রেখে নির্যাতন করার অভিযোগ উঠেছে। পুলিশের নির্যাতনে চালক মো. মোশারফ এর দু’চোখে রক্ত জমে লাল হয়ে গেছে। বাম হাত ভেঙ্গে গেছে আর বুক ও তলপেটে জখম হয়েছে। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে করিমগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় সিএনজিচালিত অটোরিকসার চালকের পরিবারসহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

নির্যাতনের এই ঘটনার বিচার চেয়ে শনিবার (৭ সেপ্টেম্বর) বিকালে পুলিশ সুপারের নিকট লিখিত আবেদন জানিয়েছেন নির্যাতিত সিএনজি চালিত অটোরিকসা চালক মো. মোশারফ।  সিএনজিচালিত অটোরিকসার চালক মো. মোশারফ করিমগঞ্জ উপজেলার গুজাদিয়া ইউনিয়নের টামনী গ্রামের মৃত ইন্নছ আলীর ছেলে।

অভিযোগ ও স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, সিএনজি চালিত অটোরিকসার চালক মো. মোশারফ গত মঙ্গলবার (৩ সেপ্টেম্বর) রাত আটটার দিকে সুইডেন প্রবাসী করিমগঞ্জ পৌরসভার মো. লিমন এবং তার দুই বন্ধু আনোয়ারুল ইসলাম বাবুল ও বুরহান উদ্দিনকে নিয়ে নেত্রকোণায় আত্মীয়ের বাড়িতে যান। সেখান থেকে রাতেই করিমগঞ্জে ফেরার পথে তাড়াইলের পাংপাচিয়া গ্রামের সামনের সড়কে এসআই মাসুদ আনোয়ার আকন্দসহ কয়েকজন পুলিশ অটোরিকসা থামিয়ে যাত্রীসহ সকলকেই তল্লাসি করে। তল্লাসিকালে কোনো কিছু না পেয়ে যাত্রীদেরকে পুলিশের গাড়ীতে ও পুলিশ অটোরিকসায় উঠে চালক মোশারফকে জোরপূর্বক তাড়াইল থানায় নিয়ে যায়।

সেখানে নিয়ে চালককে এসআই মাসুদ আনোয়ার আকন্দ বলেন যে, চালক যেনো তার অটোরিকসায় থাকা যাত্রীদের নামে ইয়াবা সরবরাহকারী ও শিশু পাচারকারী হিসেবে সনাক্ত করেন। এতে চালক মোশারফ রাজি না হওয়ায় এসআই মাসুদ আনোয়ার চালকের দুই হাত পিছনে নিয়ে জোড়া হ্যান্ডকাপ লাগিয়ে বেধম মারপিট করেন। উপর্যুপরি মারপিটে চালক মোশারফ এক পর্যায়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন।

পরদিন বুধবার (৪ সেপ্টেম্বর) সকালে চালক মোশারফের নিকট থেকে সাদা কাগজে টিপসহি নিয়ে থানা থেকে ছেড়ে দেয় পুলিশ। গুরুতর আহত চালক মোশারফকে করিমগঞ্জ উপজেলা হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত পুলিশের এসআই মাসুদ আনোয়ার আকন্দকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি জানান, পুলিশ সিগন্যাল দিলেও অটোরিকসা না থামানোর কারণে চালককে আটক করা হয়েছিল। পরে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। চালককে কোনো নির্যাতন করা হয়নি বলেও তিনি দাবি করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর