কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কটিয়াদীতে আপত্তিকর ভিডিওতে তোলপাড়, পুরুষসঙ্গী ওসি নন দাবি করে নারীর মামলা


 আশরাফুল ইসলাম, প্রধান সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বুধবার, ৮:০৯ | বিশেষ সংবাদ 


কটিয়াদীতে এক নারীর সঙ্গে এক পুরুষের আপত্তিকর একটি ভিডিও নিয়ে তোলপাড় চলছে। ভিডিওটির কয়েকটি ক্লিপ এবং স্ক্রিনশট এখন কটিয়াদীতে সব শ্রেণি-পেশার মানুষের আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে। ফেসবুক মেসেঞ্জারের মাধ্যমে ভিডিওটি এখন ভাইরাল। এই প্রতিবেদকের হাতে আসা ভিডিওটির তিনটি ক্লিপ পর্যালোচনায় দেখা গেছে, ভিডিওটিতে নারীর চেহারা স্পষ্ট হলেও পুরুষটির চেহারা অস্পষ্ট। আপত্তিকর ভিডিও ও ছবির পুরুষসঙ্গীকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কটিয়াদী মডেল থানার ওসি মো. আবু শামা ইকবাল হায়াত বলে বলা হয়েছে। এ নিয়ে প্রকাশ্যে-অপ্রকাশ্যে আলাপ-আলোচনা ও গুঞ্জনের শেষ নেই।

আপত্তিকর ভিডিওটিতে দেখা যাওয়া নারী গত ৫ই সেপ্টেম্বর কটিয়াদী মডেল থানায় এ সংক্রান্ত একটি জিডি করলে এ নিয়ে চারদিকে হৈ চৈ পড়ে যায়। জিডিতে কেবল আপত্তিকর ছবির কথা উল্লেখ করা হয় এবং সেটিতে এডিটিং এবং বিকৃত করা হয়েছে বলা হয়। এছাড়া অস্পষ্ট চেহারার পুরুষটি কটিয়াদী মডেল থানার বর্তমান ওসি আবু শামা মো. ইকবাল হায়াত নন বলে উল্লেখ করে তার নামে অপপ্রচারের কথাও জিডিতে বলা হয়।

এই জিডি’র মাত্র চার দিনের ব্যবধানে গত সোমবার (৯ই সেপ্টেম্বর) ওই নারী বাদী হয়ে এক সাংবাদিকসহ দুইজনের নামোল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা ৪/৫ জনকে আসামি করে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে কটিয়াদী মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন। রাত সাড়ে ৯টার মামলাটি রেকর্ড করার পর রাতেই মামলার প্রধান আসামি হিমেল (৩৪) এবং ২নং আসামি কটিয়াদী উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি সৈয়দ মুরসালিন দারাশিকো (৩৮) কে আটক করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। পরে মুচলেকার মাধ্যমে রাতেই সৈয়দ মুরসালিন দারাশিকো ছাড়া পেলেও হিমেলকে মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে পরদিন মঙ্গলবার (১০ই সেপ্টেম্বর) আদালতে চালান দেয়া হয়।

মামলার এজাহারে বলা হয়, ওই নারী এবং ওসিকে অপমান, অপদস্ত বা হেয় প্রতিপন্ন করার অভিপ্রায়ে বিকৃত ছবিগুলো বিভিন্ন মোবাইল ফোনে প্রচার করা হয়েছে। এজাহারে আরো বলা হয়, ওসি সাহেব একজন সরকারি চাকুরিজীবী হওয়ায় তার সুনাম ক্ষুণ্ন করার অভিপ্রায়ে বিভিন্ন মোবাইল ফোনে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার করা হয়। এছাড়া প্রিয়া সুলতানা নামে একটি ফেসবুক আইডি থেকে ওই নারী ও ওসি’র বিভিন্ন রকম অপবাদ লিখে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছেড়ে দেয়।

এজাহারে ওই নারী বলেন, আমার ছবি কম্পিউটারের মাধ্যমে বিকৃত করে বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়ে আমাকে পারিবারিকভাবে, সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্নসহ মর্যাদা ক্ষুণ্ন করেছে এবং ছবিটি বিকৃত করে ওসি সাহেবের বলিয়া মিথ্যামিথ্যিভাবে প্রচার করে বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়ে তার পারিবারিক, সামাজিক মর্যাদা ক্ষুণ্ন করাসহ ওসি সাহেব একজন সরকারি কর্মচারী হওয়ার কারণে তার সুনাম ক্ষুণ্ন হয়েছে।

ভিডিও ক্লিপগুলো পর্যবেক্ষণ করে দেখা গেছে, ওই নারী নিজেই হয়তো ভিডিও ধারণ করেছেন। তবে এজাহারে ওই নারী তার স্বামীর সাথে মেলামেশার ছবি এডিট করা হয়েছে বলে উল্লেখ করেছেন। ওই নারীর স্বামী প্রবাসে থাকেন। এছাড়া কটিয়াদী থানার ওসি মো. আবু শামা ইকবাল হায়াত ভিডিওটিতে দেখা যাওয়া পুরুষ ব্যক্তিটি তিনি নন বলে দাবি করেছেন।

এদিকে গত ৫ই সেপ্টেম্বর কটিয়াদী মডেল থানায় ওই নারী জিডি করার পর কটিয়াদী মডেল থানার ওসি মো. আবু শামা ইকবাল হায়াত এ ব্যাপারে পুলিশ সুপারকে একটি ব্যাখ্যামূলক প্রতিবেদন দিয়েছেন। সে প্রেক্ষিতে পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার) গত ৯ই সেপ্টেম্বর বিষয়টি অনুসন্ধান করে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মো. মিজানুর রহমানকে নির্দেশ দিয়েছেন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মো. মিজানুর রহমান জানান, পুলিশ সুপারের নির্দেশনা পাওয়ার পর তিনি এ ব্যাপারে অনুসন্ধান কার্যক্রম চালাচ্ছেন। অনুসন্ধান শেষে এ ব্যাপারে প্রতিবেদন দেয়া হবে।

পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার) বলেন, তদন্তের স্বচ্ছতার স্বার্থে কটিয়াদী মডেল থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের করা মামলাটির তদন্ত ডিবিতে স্থানান্তর করা হয়েছে। তদন্তের মাধ্যমে সব প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যাবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর