কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


‘খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে কোনো রায় দেশবাসী মেনে নিবে না’


 স্টাফ রিপোর্টার | ১০ জানুয়ারি ২০১৮, বুধবার, ৯:০৪ | রাজনীতি 


বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান বলেছেন, ২০১৮ সালটা হবে জনগণের বছর, জাতীয়তাবাদী দলের বছর, আমাদের বিজয়ের বছর। সামনে নির্বাচন আসছে, এই নির্বাচন যেন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয় এর জন্য বিএনপি নেতাকর্মীদের জীবনবাজি রেখে রাজপথে নামতে হবে। বেগম খালেদা জিয়া অচিরেই ডাক দেবেন, সে ডাকে সবাইকে দু:খ-বিভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে। এই সরকার চাচ্ছে বিএনপি যেন নির্বাচনে না আসে। এর জন্য তারা যা যা ষড়যন্ত্র করার সব করছে। শেষমেশ খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় সাজা দেয়ার চক্রান্ত করছে। কারণ তারা জানে, খালেদা জিয়া যদি বাইরে থাকে তাহলে অবশ্যই দেশে সুষ্ঠু নির্বাচন দিতে হবে।

বুধবার সন্ধ্যায় কিশোরগঞ্জে বিএনপির এক কর্মী সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বর্তমান সরকার কর্তৃক গুম খুন হত্যা ও মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে জেলা বিএনপি শহরের বত্রিশ এলাকার উৎসব কমিউনিটি সেন্টারে এই কর্মী সভার আয়োজন করে।

সেলিমা রহমান আরো বলেন, একটা সরকারের যখন পতনের সময় ঘনিয়ে আসে, তখন তারা নানা ভুল-ভ্রান্তি করতে থাকে। এই সরকারের বিরুদ্ধে সবাই আজ বিক্ষুব্ধ। সবাই চাচ্ছে, এই সরকারের বিদায় হোক। এই সময়ে সরকারের সবচেয়ে বড় ভুল হবে খালেদা জিয়াকে কোনো সাজা দিলে। দেশের জনগণ আর কোনো অবৈধ নির্বাচন দেখতে চায় না উল্লেখ করে  তিনি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, যদি বেগম জিয়ার বিরুদ্ধে কোনো রায় হয় সেই রায় দেশের জনগণ মেনে নেবে না।

জেলা বিএনপির সভাপতি মো. শরীফুল আলমের সভাপতিত্বে কর্মী সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন কেন্দ্রীয় বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, কেন্দ্রীয় বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য লায়লা বেগম ও শেখ মজিবুর রহমান ইকবাল এবং জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো. মাজহারুল ইসলাম।

জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক হাজী ইসরাইল মিয়া ও নাজমুল আলমের সঞ্চালনায় সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি মো. আমিরুজ্জামান, মো. রুহুল হোসাইন, অ্যাডভোকেট মো. জালাল উদ্দিন, অ্যাডভোকেট জালাল মো. গাউস, অ্যাডভোকেট মো. শরিফুল ইসলাম, জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক খালেদ সাইফুল্লাহ সোহেল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম মবিন ও অ্যাডভোকেট আমিনুল ইসলাম রতন, সাংগঠনিক সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আশফাক, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুব আলম ও হানিফ উদ্দিন আহমেদ রনক, ভৈরব উপজেলা বিএনপির সভাপতি মো. রফিকুল ইসলাম, জেলা যুব দলের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক মো. সাইফুল ইসলাম সুমন প্রমুখ।

জেলার নেতারা তাদের বক্তৃতায় কিশোরগঞ্জে ছাত্রদল যুবদল স্বেচ্ছাসেবক দলসহ দলের অঙ্গসংগঠনগুলোর পূর্ণাঙ্গ কমিটি করার ব্যাপারে সেলিমা রহমানের মাধ্যমে কেন্দ্রীয় বিএনপির দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। জেলা বিএনপির সভাপতি শরীফুল আলম তাঁর বক্তৃতায় বিগত দিনে কিশোরগঞ্জ বিএনপির আন্দোলনের ফিরিস্থি তুলে ধরে দিয়ে ঢাকার আন্দোলনের গতি প্রকৃতির বিষয়ে প্রধান অতিথির কাছে ব্যাখ্যা জানতে চান।

বিগত দিনের ঢাকার আন্দোলনের ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে সেলিমা রহমান  জেলার নেতাকর্মীদের বলেন, বিগত দিনে সারা দেশে আন্দোলন হয়েছিল। কিশোরগঞ্জেও তীব্র আন্দোলন হয়েছিল। সে খবর আমরা জানি। ঢাকায় সে রকম আন্দোলন আমরা গড়ে তুলতে পারি নাই। ঢাকায় আমরা ব্যর্থ হয়েছিলাম। ঢাকায় কয়েকজন নেতা বাদে অনেকেই মাঠে নামে নাই। ঢাকার সব নেতারা যদি সে সময় মাঠে নামতো তাহলে এ সরকারের পতন হয়ে যেত। আমরা সেটা পারি নাই। দলের ভেতরের বিভিন্ন ষড়যন্ত্র ও মতাদর্শের কারণে এমনটা হয়েছিল বলে তিনি মন্তব্য করেন।

সেলিমা রহমান এ সময় বলেন, বিগত আন্দোলনে যাঁরা মাঠে নামেননি তাঁদের চিহ্নিত করা হয়েছে। সামনে এ সরকারের বিরুদ্ধে তীব্র আন্দোলনের ডাক আসছে। ঢাকার নেতাকর্মীরাও মাঠে নামবে। কেউ ঘরে বসে থাকলে দল কঠোরভাবে ব্যবস্থা নেবে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail .com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ