কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


প্রতিমন্ত্রী স্বামীর হাত থেকে গুণী সংস্কৃতিজন সম্মাননা নিলেন সৈয়দা শিলা


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শনিবার, ৫:৩৫ | বিশেষ সংবাদ 


চার দিনের সফরে শ্বশুরবাড়ি কিশোরগঞ্জে অবস্থান করছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন এমপি। মুক্তিযুদ্ধকালীন প্রবাসী সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামের ছোট ভাই কিশোরগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি প্রয়াত সৈয়দ ওয়াহিদুল ইসলাম পট্টু মিয়ার কন্যা সৈয়দা মোনালিসা ইসলাম শিলার স্বামী জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন এমপি। ২০০৩ সালে তাদের বিয়ে হয়। এ বছরের ৩রা জানুয়ারি সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ইন্তেকাল করার পর তাঁর জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান চাচাতো বোন জামাই ফরহাদ হোসেন এমপি। তিনি মেহেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ও মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি।

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী হওয়ার পর প্রথমবারের মতো স্ত্রী সৈয়দা মোনালিসা ইসলাম শিলাকে নিয়ে চার দিনের সফরে শ্বশুরবাড়ি কিশোরগঞ্জে এসেছেন ফরহাদ হোসেন এমপি। সফরের দ্বিতীয় দিন শুক্রবার (১৩ সেপ্টেম্বর) রাতে তিনি জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে আয়োজিত জেলার বিগত পাঁচ বছরের গুণী সংস্কৃতিজনদের সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগদান করেন।

অনুষ্ঠানে জেলার ২৬ গুণী সংস্কৃতিজনকে জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা প্রদান করা হয়। সম্মাননাপ্রাপ্ত ২৬ গুণী সংস্কৃতিজনের এই তালিকায় রয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন এমপি’র সহধর্মিণী সৈয়দা মোনালিসা ইসলাম শিলাও। অনুষ্ঠানে সৈয়দা মোনালিসা ইসলাম শিলার হাতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেন স্বামী জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন এমপি। এ সময় জেলা শিল্পকলা একাডেমি’র মিলনায়তনভর্তি দর্শক তুমুল হাততালির মাধ্যমে সৈয়দা মোনালিসা ইসলাম শিলাকে অভিনন্দিত করেন।

কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক ও জেলা শিল্পকলা একাডেমির সভাপতি মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন কিশোরগঞ্জ-৪ (ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম) আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার), সিভিল সার্জন ডা. মো. হাবিবুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট কামরুল আহসান শাহজাহান এবং সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এম এ আফজল।

গত শতকের নব্বই দশকে কিশোরগঞ্জের নৃত্যাঙ্গনকে যে ক’জন প্রতিশ্রুতিশীল তরুণ শিল্পী তাদের নৃত্য কুশলতায় স্থানীয় নৃত্যজগৎকে মাতিয়ে রেখেছিলেন তাদের মধ্যে অন্যতম প্রধান হচ্ছেন সৈয়দা মোনালিসা ইসলাম শিলা। ক্ল্যাসিকেল ও লোকজ ঘরানার নৃত্যে তাঁর অসাধারণ নৈপুণ্য সমসাময়িককালে অন্য অনেকের চেয়ে অনেক বেশি ঔজ্জ্বল্যে উদ্ভাসিত ছিল। তাঁর জন্ম ১৯৮২ সালের ৭ মে কিশোরগঞ্জ শহরের খরমপট্টিস্থ বেগম রোকেয়া সড়কের বহুল পরিচিত পূর্ণি ভিলায়। মায়ের নাম সৈয়দা আমেনা ইসলাম। পিতা সৈয়দ ওয়াহিদুল ইসলাম পট্টু মিয়া। তিন ভাই ও পাঁচ বোনের সংসারে পরম মমতায় বেড়ে ওঠা শিলা ব্যক্তিগত জীবনে কিশোরগঞ্জের একটি ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান।

শিলাদের পাঁচ বোনই সেই নব্বই দশকে নৃত্যশিল্পের সাথে জড়িত ছিলেন। তন্মধ্যে শিলার অংশগ্রহণই ছিল সবচেয়ে উজ্জ্বল। স্কুলে ও কলেজে অধ্যয়নকালে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে সৈয়দা মোনালিসা ইসলাম শিলা একাধিকবার প্রথম স্থান অধিকার করেন। তিনি তৎসময়ে জেলার অন্যতম সাংস্কৃতিক সংগঠন কিশোরগঞ্জ সাংস্কৃতিক পরিষদ ও পরে কিশোরগঞ্জ সাংস্কৃতিক সংস্থার সাথে সম্পৃক্ত হন। সে সময় মৈমনসিংহ গীতিকার উপাখ্যান অবলম্বনে রচিত ‘চন্দ্রাবতী’ ‘মহুয়া’ ‘কাজলরেখা’ ইত্যাদি নৃত্যনাট্যে কেন্দ্রীয় চরিত্রে একাধিকবার অভিনয় করেন।

এছাড়া ‘বীরাঙ্গনা সখিনা’ ‘সোনাই মাধব’ ‘কান্দে সুজন বিরহে’ ‘জনমদুখি মা’ ইত্যাদি নৃত্যনাট্যেও তিনি কেন্দ্রীয় চরিত্রে একাধিকবার অভিনয় করে দর্শকনন্দিত হয়েছেন। বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বেসরকারি একুশে টেলিভিশনেও তিনি নৃত্যনাট্যে অংশগ্রহণ করেছেন। শহরের খরমপট্টি এলাকায় প্রতিষ্ঠিত শিশু-কিশোর সংগঠন ‘ময়ূখ খেলাঘর’-এর সাথেও তিনি নিবিড়ভাবে জড়িত ছিলেন। নৃত্যশিল্পে বিশেষ অবদান রাখার স্বীকৃতি হিসেবে ২০১৬-২০১৭ সালে এই কীর্তিময়ী নৃত্যশিল্পীকে নৃত্যকলা ক্যাটাগরিতে যৌথভাবে ‘জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা’য় ভূষিত করা হয়।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর