kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

রাস্তায় কেন জাতি গঠনের কাণ্ডারিরা?



 রাশিম মোল্লা | ১০ জানুয়ারি ২০১৮, বুধবার, ৯:৪৬ | মত-দ্বিমত 


‘বেতন দেন নাইলে বিষ দেন’, ‘আর কতদিন কাঁদবো বেতনের জন্য’, ‘প্রাইমারি জাতীয়করণ আমরা কেন হব না’, ‘মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী আর কতদিন’, ‘এক দফা এক দাবি জাতীয়করণ চাই’ বিভিন্ন জেলা থকে আগত প্রায় সহস্রাধিক স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা শিক্ষকদের প্লেকার্ড, ফেস্টুন ও মাথার ব্যাজে এমন নানা স্লোগান দেখা গেছে। রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বুধবার দ্বিতীয় দিনের মতো চলছে শিক্ষকদের আমরণ অনশন। টানা আটদিন অবস্থান ধর্মঘট চালিয়ে গেলেও শিক্ষকদের দাবি আদায়ে সরকারের পক্ষ থেকে কোনো আশ্বাস না পাওয়ায় তারা এমন কঠিন আন্দোলনে নেমেছেন।

আমরণ অনশনে এখন পর্যন্ত প্রায় ৪০ শিক্ষক অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। এর মধ্যে দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন আন্দোলনকারী শিক্ষকরা। এমনই একজন মাদরাসা শিক্ষক গোলাম মোস্তফা। কাফনের কাপড় পড়ে আমরণ অনশনে অংশ নিয়েছেন তিনি। সাথে অংশ নিয়েছেন পরিবারও।

তিনি বলেন, আমার পরিবারও আজ অনাহারে। ১ জানুয়ারি আমি ঢাকায় এসেছি কর্মসূচিতে অংশ নিতে। ঘরে আমার ছেলে, স্ত্রী ও বৃদ্ধা মা আছেন। কিন্তু আমি তাদের জন্য ঘরে কিছু রেখে আসতে পারিনি। ঢাকায় আসার পর ছেলে ফোন করে জানিয়েছে, বাবা আমরা না খেয়ে আছি।

এসময় কান্নাজড়িত কণ্ঠে গোলাম মোস্তফা বলেন, আমি তাদের বলেছি বাবা ধৈর্য্য ধারণ কর, আর আল্লাহর কাছে প্রার্থনা কর। আমিও না খেয়ে আছি। গোলাম মোস্তফা বলেন, অভুক্ত স্ত্রী, সন্তানের কষ্ট সহ্য করার চেয়ে মরে যাওয়া ভালো। তাই এবার কাফনের কাপড় পড়েছি। সরকার যদি আমাদের দাবি মেনে না নেয় তাহলে এভাবেই অনশন করতে করতে মরে যেতে চাই। কিন্তু বেতনহীন জীবনের গ্লানি নিয়ে আর তাদের মুখ দেখাতে চাই না। বাড়ি ফিরতে চাই না।

গোলাম মোস্তফা বলেন, সামান্য জমি ছিল তা বিক্রি করে খাওয়া হয়ে গেছে। সকালে একজন ছাত্রকে প্রাইভেট পড়িয়ে মাসে ১০০ টাকা পাই। আর মসজিদে ইমামতি করে সামান্য যা পাই তা দিয়ে কোনোমতে সংসার চালাই। কিন্তু এটাতে জীবন বলে না। আমরা মরার মত বেঁচে আছি। পরিবারের কোনো চাহিদা পূরণ করতে পারি না।

শিক্ষকরা বলেন, তীব্র শীতের মধ্যে রাস্তায় বসে আন্দোলন করলেও সরকারের পক্ষ থেকে কোনো আশ্বাস মিলেনি। অথচ আমাদের পাশেই আন্দোলন করছিলেরন নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা। প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাসে তারা আন্দোলন স্থগিত করেছেন। আমরা একই দেশের নাগরিক। তাদের মতোই শিক্ষক। কিন্তু আমাদের দিকে কারও কোনো দৃষ্টি নেই। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কোনো প্রতিনিধি যোগাযোগও করেনি। এ কারণে বাধ্য হয়ে আন্দোলনে নেমেছি। দাবি আদায় ছাড়া রাজপথ ছাড়বেন না বলেও জানান তিনি।

পাশে চলছে স্কুল শিক্ষকদের আন্দোলনও। তাদেরও একই দাবি। খেয়ে পরে বাঁচার মত বাঁচতে চাই। ভালভাবে শিক্ষা দিতে চাই সন্তানতুল্য শিক্ষার্থীদের।

স্কুল শিক্ষক জাফর আহমেদ বলেন, আমি নবাবগঞ্জের একটি স্কুলের আইসিটি শিক্ষক। অন্য শিক্ষকদের মতো আমিও স্কুলে শ্রম দেই। অথচ সরকার থেকে কোনও বেতন পাই না। পাই না অন্যন্য আরো অনেক সুবিধা। এজন্য মাঝে মধ্যে নিজেকে অযোগ্য মনে হয়। মনে হয় আমি বুঝি এই স্কুলের অযোগ্য। স্ত্রী-সন্ত্রান প্রায়ই বেতন সম্পর্কে জানতে চায়। কিন্তু কিছুই বলতে পারি না। টিউশনি করে যা পাই তাই দিয়ে কোনও রকল চলে যায় সংসার। অভাব অনটন লেগেই থাকে। ছেলে-মেয়েদের ঠিকমত পড়ালেখাও করাতে পারছিন। এই যদি হয় দেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যাক্তি শিক্ষকদের অবস্থা। তাহলে দেশে মেধাবী জনশক্তি তৈরি হবে কিভাবে। এমন অবস্থা হলে এক সময়তো শিক্ষকতায় আগ্রহ হারাবে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম। দেশ হবে মেধাশূণ্য।

# রাশিম মোল্লা: সাংবাদিক।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]


এ বিভাগের আরও খবর














সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ