কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরবে আঙ্গুল ফুলে কলাগাছরা আতঙ্কে!


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৯:১৭ | ভৈরব 


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে এক এক করে দেশের সকল দুর্নীতিবাজদের ধরতে তৎপর হয়ে ওঠেছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী। ফলে গেল সপ্তাহে ক্যাসিনোর সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে জি কে শামীমসহ ঢাকা মহানগর দক্ষিণের যুব লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া’কে আটক করে র‌্যাব। আর জি কে শামীমকে বিপুল অঙ্কের নগদ টাকা, কোটি কোটি টাকার এফডিআর এবং সাত দেহরক্ষীকে অস্ত্রসহ তার নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বিলাস বহুল বাড়িতে অভিযান চালিয়ে আটক করা হয়।

এরপর থেকে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় একাধিক ক্যাসিনোসহ স্পা সেন্টারে অভিযান চালায় র‌্যাব। ফলে জুয়া খেলার সরঞ্জামসহ বিপুল পরিমাণে মাদক, নগদ টাকা এবং স্পা সেন্টার থেকে নারীসহ অনেককেই আটক করা হয়। একই সাথে দেশের বিভিন্ন বিভাগীয় শহর ও জেলাগুলোতে অভিযান চালানো হয়। ফলে বিভিন্ন অপরাধ ও অপকর্মের সাথে জড়িত অপরাধীরা গা ঢাকা দিতে শুরু করে। কেউ কেউ দেশের বাইরে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন।

কিন্তু বিষয়টি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নজরে এলে দেশ ত্যাগে একাধিক দলীয় নেতা, এমপি ও কর্মকর্তার নামে নিষেধাজ্ঞা জারী করা হয়। ফলে দেশে থেকেও অপরাধীরা নিজেকে আড়াল করতে চাইছেন। কিন্তু এসব অপরাধীদের বিষয়ে সব সময় নজরদারী করছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর লোকজন। ফলে যেকোনো সময় অবৈধ টাকাসহ আটক হতে পারেন তারা।

নির্ভরযোগ্য একাধিক সূত্রে জানা গেছে, দেশে মাদক ও জুয়া বন্ধে কঠোর অবস্থানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একই সাথে অবৈধ পথে আয়, ঘুষ ও দুর্নীতি বন্ধেও কঠোর প্রধানমন্ত্রী। এসব অনিয়মের সাথে যারা জড়িত রয়েছেন তারা যে দলের হোক, কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। তাদেরকে আইনের আওতায় আনতে নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এরই মধ্যে এই নির্দেশনা পৌঁছে গেছে দেশের বিভিন্ন আইন প্রয়োগকারী সংস্থা বা বাহিনীর হাতে। ফলে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে বেড়েছে নজরদারী। উপযুক্ত তথ্য-প্রমাণসহ যেকোনো সময় মাদকের গডফাদার ও জুয়া খেলার শেল্টারদাতা বা মূলহোতারা আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর লোকজনের হাতে আটক হতে পারেন।

অন্য আরেকটি সূত্র মতে, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী দেশের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলার মতো ভৈরবেও পৌরসভা, ইউনিয়ন এবং ওয়ার্ডের দলীয় নেতা-কর্মীসহ সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রতিও বাড়ছে নজরদারী। একই সাথে ঘুষ ও দুর্নীতির সাথে জড়িত ব্যক্তি এবং অবৈধ ও ভেজাল ব্যবসায়ীরাও এই নজরদারীতে রয়েছেন। ফলে দলীয় নেতা থেকে শুরু করে চাঁদাবাজ, টেন্ডারবাজ, সরকারি আমলা, কর্মকর্তা, ডাক্তার, কাউন্সিলর, ইউপি চেয়রাম্যান ও অসাধু জ্বালানী তেল ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন পর্যায়ের অসাধু ব্যক্তিদের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে। সাময়িকভাবে বন্ধ রয়েছে বেশ কয়েকটি জুয়ার আসর।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, দলীয় পদ ভাগিয়ে হাতেগোনা মাত্র কয়েক বছরে কেউ কেউ আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয়ে গেছে। আবার কেউ সামান্য চাকুরি বা অসাধু ব্যবসা করে হয়েছেন কোটিপতি। এছাড়া এদের অনেকেই সমাজে নানা অপকর্ম করেও আবার দলীয় পরিচয়ে বুক ফুলিয়ে ভালো মানুষের মুখোশ পরে ঘুরে বেড়ান।

তারা বিভিন্ন সময় ক্ষমতাসীন দলের সভা, সমাবেশে ধব ধবে সাদা পাঞ্জাবী ও পায়জামা পড়ে উপস্থিত হন। কেউ কেউ আবার শুধুমাত্র রাজনীতিকেই ব্যবসা হিসেবে বেছে নিয়েছেন। ফলে এদের কারণে সরকার এবং দলের একদিকে যেমন সুনাম নষ্ট হচ্ছে, তেমনি সরকার এবং দলের প্রতি আস্থা হারাচ্ছে সাধারণ মানুষ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর