কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


২৭ সেপ্টেম্বর বিশ্ব পর্যটন দিবস

কিশোরগঞ্জের হাওরে পর্যটনের অপার হাতছানি


 মো. আল আমিন | ২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, ১২:০৬ | হাওর 


হাওর-বাওর নদী বেষ্টিত জেলা কিশোরগঞ্জ। এখানের হাওরে শুকনো মৌসুমে মাইলের পর মাইল ফসলি জমি, ধূলোউড়া মেঠোপথ, রুপালি নদী। আর বর্ষায়? এই রুপোলি নদীগুলোই ফুঁসে উঠে। দুই তীর ছাপিয়ে প্লাবিত করে ফসলি মাঠ। দেখতে একেবারে সাগরের মতো।

ভূপ্রাকৃতিক বৈশিষ্ট্যের কারণে কিশোরগঞ্জের হাওরের সৌন্দর্য অন্যান্য এলাকার চেয়ে একটু ভিন্ন। ব্যতিক্রম এখানকার ঋতুবৈচিত্র। হাওরে বর্ষা থাকে বছরের প্রায় ছয় মাস। পানি আসতে শুরু করে বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠ থেকে। শেষ হয় আশ্বিন-কার্তিকে। বাকি কয় মাস এখানে শুকনো কাল। সে হিসেবে মূলত হাওরে ঋতু দুটি। একটি বর্ষা, অন্যটি ‘শুকনো’।

কি শুকনো কি বর্ষাকাল। ভ্রমণপিপাসুদের জন্য সৌন্দর্যের বিপুল পসরা সাজিয়ে বসে থাকে কিশোরগঞ্জের হাওর। বর্ষায় হাওর হয়ে ওঠে কূলহীন সাগর। বিশাল জলরাশির বুকে বিচ্ছিন্ন গ্রামগুলোর একেকটাকে  ছোট দ্বীপের মতো লাগে। দূর থেকে মনে হয়, কচুরিপানা হয়ে যেন পানিতে ভাসছে গ্রামগুলো।

হাওরজুড়ে গলা ডুবিয়ে থাকা হিজল গাছের সারি মন কাড়ে যে কারও। পানির নিচ থেকে জেগে ওঠা করচের বন, হাঁসের ডিমের মতো সাদা ফল নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকা বরুন গাছ, কিংবা গাঙ্গেয় মিঠা পানিতে শুশুকের লাফ-ঝাঁপ দেখলে বিনোদিত না হয়ে পারা যায় না।

বর্ষা পরবর্তী শরতে হাওরে যখন পানি কমা শুরু হয় তখন থেকেই আকাশে সাদা মেঘের সাথে পাল্লা দিয়ে হাজার হাজার ধবল বকেরও উড়াউড়ি শুরু হয়। দুলতে থাকে হাওরপাড়ের সাদা কাশবন। আসতে শুরু করে পরিযায়ি পাখি। ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা বিলে ফুটে সাদা শাপলা, রক্ত শাপলা, নীল শাপলা ও চাঁদমালা ফুলেরা!

শুকনো মৌসুমে পুরো হাওর হয়ে যায় দিগন্তবিস্তৃত সবুজ প্রান্তর। যেখানেই চোখ যায় সবুজ আর সবুজ। একটু দূর যাওয়ার পরপরই চোখে পড়ে বিভিন্ন আকৃতির বিল-ডোবা। এসবে জলজ উদ্ভিদের ঘন বুনট। মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে থাকা হোগলা বন। শলাগাছ, কলমিলতা।  কোথাও কোথাও ছোট ভিটি আকারের উঁচু মতো জায়গা। ছন ক্ষেত। গলাডোবা ধান। এ সবই আকৃষ্ট করার মতো।

ধানবনে কোড়া পাখির ‘টুব টুব’ ডাক নস্টালজিক করে যে কাউকে। বিলের কিনার ঘেঁষে ধ্যানমগ্ন ঋষির মতো দাঁড়িয়ে থাকা হাজার হাজার ধবল বক। বালিহাঁসের ওড়াউড়ি। কালিম, জলপিপি, ডাহুক, পানকৌড়ি ও জলময়ূরের অবগাহন দেখলে মোহিত না হয়ে পারা যায় না।

এ সময়টায়  পরিযায়ি পাখির আগমন হাওরকে আরো আন্দোলিত করে তুলে। সাঁঝের বেলায় মুক্তোর মালার মতো পরিযায়ি পাখির নিরাপদ আশ্রয়ে ফেরার সময় মুখরিত কলকাকলির কান ফাটানো শব্দ একমাত্র হাওর এলাকাতেই শোনা সম্ভব। এমন বিচিত্র প্রকৃতি ও জীবনধারা বাংলাদেশের আর কোথাও দেখা যায় না।

কথিত আছে, বৃহত্তর সিলেট ও বৃহত্তর ময়মনসিংহের একটি বড় অংশ এক সময় ‘কালীদহ সাগর’ নামে বিশাল জলরাশিতে নিমজ্জিত ছিল। পরবর্তীতে ভূপ্রাকৃতিক বিবর্তনের ফলে তা পিরিচ আকৃতির নিম্ন সমতলভূমিতে পরিণত হয়, এই নিম্ন সমতলভূমিই এখন হাওর। হাওর শব্দটিও সাগর শব্দের অপভ্রংশ। সাগর থেকে সায়র, সায়র থেকে হাওর।

সিলেট, সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ, নেত্রকোনা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও কিশোরগঞ্জ এই সাতটি জেলা মিলে হাওরাঞ্চল। এখানে ৭ লাখ ৮৪ হাজার হেক্টর জলাভূমিতে রয়েছে ৪২৩টি হাওর। এর মধ্যে কিশোরগঞ্জ জেলায় রয়েছে বিশাল আকারের ১২২টি হাওর।

কিশোরগঞ্জের হাওরে পর্যটকদের দেখার মতো বেশ কিছু জায়গা রয়েছে। মিঠামইন উপজেলার কাটখাল ইউনিয়নের ‘দিল্লির আখড়া’এর মধ্যে অন্যতম। আখড়াকে ঘিরে এখানে রয়েছে শত শত হিজল গাছ। হিজল গাছের সারি তিনশো একরের পুরো আখড়া এলাকা জুড়েই! সারা বর্ষায় এগুলো মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে থাকে।

কিশোরগঞ্জের হাওর উপজেলা ইটনা মিঠামইন অষ্টগ্রাম ও নিকলীতে রয়েছে বেশ কয়েকটা বেড়িবাঁধ। এসব বেড়িবাঁধে দাঁড়িয়ে সামনের দিকে তাকালে ৩০-৩৫ কিলোমিটারের মধ্যে কোনো গ্রাম চোখে পড়ে না। বাঁধে দাঁড়িয়ে হাওর দেখা সাগর দেখার মতোই উপভোগ্য। এসব বেড়িবাঁধে বর্ষায় হাজার হাজার পর্যটক এসে ভিড় জমান। প্রতি বর্ষাতেই দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মানুষ ঘুরতে আসেন এসব বেড়িবাঁধে।

চলতি বর্ষায় হাওরে দর্শনার্থীদের সংখ্যা ছিল উল্লেখ করার মতো। জ্যৈষ্ঠ থেকে ভাদ্র মাসের শেষ দিক পর্যন্ত মানুষ দলবেঁধে এসেছেন কিশোরগঞ্জের হাওরের বিভিন্ন মনোরম স্থানে। এখনও কমবেশি আসছেন মানুষ। তবে হাওরের পাড়ে পাড়ে পুরো বর্ষাজুড়েই ছিল ভ্রমণপিপাসুদের কোলাহল। তাদের বাঁধভাঙা ঢল আর উচ্ছ্বাসে তখন মাতোয়ারা ছিল কিশোরগঞ্জের পুরো হাওর।

বর্ষায় হাওরের বেশ কয়েকটি স্থানে দর্শনার্থীদের ঢল থাকে। এর মধ্যে করিমগঞ্জ উপজেলার চামড়াঘাট, বালিখলা ও মিঠামইনের হাসানপুর ব্রিজ, ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম সংযোগ সড়ক ও বেড়িবাঁধ, শিমুলবাঁকের হিজলবন, মিঠামইনের কামালপুরে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের বাড়ি, দিল্লির আখড়া, নিকলী বেড়িবাঁধ, ছাতিরচরের করচের বন এবং তাড়াইলের হিজলজানি হাওর উল্লেখযোগ্য। শুধু কি হাওর দেখা? ঢেউয়ের সাথে পাল্লা দিয়ে গোসল, জলকেলি ও সাঁতারও চলেছে সেখানে।

বর্ষায় নিকলীর বেড়িবাঁধে হাজার হাজার নারী-পুরুষ পরিবারের সদস্যদের নিয়ে সাজানো নৌকায় ঘুরে বিশাল জলরাশির সৌন্দর্য উপভোগ করেন। ছুটে যান ছাতিরচরের করচের বনে। তারপর বেড়িবাঁধের কয়েকটি স্থায়ী দোকান ও অর্ধশতাধিক অস্থায়ী দোকানে বাহারি খাবারে ক্ষুধা মিটিয়ে মানুষ বাড়ি ফিরেন।

ঈদের মৌসুমে নিকলীর বেড়িবাঁধে দীর্ঘ জনজটের সৃষ্টি হয়। ওই সময় এলাকার মানুষ ও পুলিশের সহায়তায় দর্শনার্থীদের হাওর দেখতে যেতে হয়। এখন হাওরে পানি কমে গেছে। নিকলীর বেড়িবাঁধে এখনও দর্শনার্থীদের ভিড়। ছাতিরচরের করচের বনের সৌন্দর্য উপভোগ করার জন্য মানুষ বেড়িবাঁধে প্রতিদিন বন্ধু-বান্ধব আত্মীয়-পরিজনদের নিয়ে আসছেন।

নিকলী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রুহুল কুদ্দুছ তালুকদার জনি বলেন, বর্ষায় দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে ভ্রমণপিপাসু লোকজন বেড়িবাঁধে আসে। বেড়িবাঁধ থেকে নৌকা নিয়ে ছাতিরচরের করচের বনে ঘুরতে যায় দর্শনার্থীরা। বর্ষায় গত ঈদের কয়েকদিনে লাখ লাখ নারী-পুরুষের পদচারণায় বেড়িবাঁধ হয়ে উঠেছিল সমুদ্রসৈকতের বিকল্প।

তিনি বলেন, বেড়িবাঁধ ঘিরে পর্যটনের বিশাল সুযোগ সৃষ্টি হওয়ায় এ নিয়ে উপজেলা প্রশাসনসহ পর্যটন বিভাগকে বড় ধরনের উদ্যোগ নিতে হবে। এতে এ এলাকার মানুষের জীবন মান উন্নয়নসহ দেশের রাজস্ব আয় বৃদ্ধি পাবে।

বেড়িবাঁধের পাশাপাশি নিকলীর গভীর হাওরের ছাতিরচরের করচের বন এবং তাড়াইলের হিজলজানি হাওরে বর্ষায় নেমেছিল পর্যটকদের ঢল। ওই সময়টায় প্রতিদিন হাজার হাজার দর্শনার্থীদের পদচারণায় মুখর ছিল এই দুটি স্পট। হাওরের দ্বার হিসেবে পরিচিত করিমগঞ্জের চামড়াঘাট নৌবন্দরেও প্রতিদিন হাজার মানুষ ছুটে গেছেন। ফলে চামড়াঘাট নৌবন্দরও হয়ে উঠেছিল জমজমাট।

করিমগঞ্জ উপজেলার বালিখলা ও হাসানপুর ব্রিজ এবারের বর্ষায় হাওর আনন্দে নতুনমাত্রা যোগ করেছিল। হাওরের বুক চিরে গড়ে ওঠা বিশাল পিচঢালা সড়কের দুই ধারে হাজার হাজার জলযানের উপস্থিতি এক অপূর্ব দৃশ্যের সূচনা করেছিল। কাকডাকা ভোর হতেই শত শত মানুষ বৈরী আবহাওয়া উপো করে বালিখলার সৌন্দর্য দেখতে ভিড় করেছিল।

বিশেষ করে পানির ওপর নৌকায় বসে সূর্যোদয় ও সূর্যাস্ত দেখার অপার আনন্দে বিভোর ছিলেন ভ্রমণপিপাসুরা। সারাদিন পানিতে থেকে প্রকৃতির নানা রঙ ও রূপ দেখে হাজার হাজার মানুষ অভিভূত হন।

ফলে হাওরে এই পর্যটন বিকাশের বিপুল সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। হাওরে পর্যটনের এ বিপুল সম্ভাবনাকে কাজে লাগিয়ে এ এলাকায় গড়ে উঠতে পারে আকর্ষণীয় পর্যটন কেন্দ্র, হোটেল, মোটেল। এ ব্যাপারে বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশন উদ্যোগী ভূমিকা রাখতে পারে বলে হাওরবাসীরা মনে করেন।

কিছু ট্যুরিজম কোম্পানী অবশ্য হাওর নিয়ে এখন কাজ করছে। হাওরে আসা পর্যটকদের বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করছে তারা। তেমনি একটি সংস্থা ‘তাবু-ট্যুর’। তারা হাওরে ঘুরতে আসা পর্যটকদের সুবিধার্তে ইতিমধ্যে বেশ কিছু নান্দনিক নৌকা তৈরি করেছে। যেগুলোতে থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা আছে। ঢেউবান্ধব এসব নৌকা হাওরের সৌন্দর্যকে যেন আরো বাড়িয়ে তুলেছে।

সংস্থাটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জাফর হায়দার তুহিন বলেন, হাওরের নৈসর্গিক সৌন্দর্যের ব্যাপারে ব্যাপক প্রচার-প্রচাারণা চালালে কক্সবাজার সমুদ্র-সৈকতের মতো হাওর এলাকাও একদিন শুধু দেশি নয় বিদেশী পর্যটকদের পদভারেও মুখরিত হয়ে উঠবে।

এ ছাড়া দিল্লির আখড়ার হিজল গাছগুলোর যত্ন নিলে রাতারগুলের চেয়েও এ এলাকায় লোকজন আসবে বেশি। প্রতিবছর স্থানীয়রা হিজলের ডাল-পালা কেটে গাছগুলোর সৌন্দর্য নষ্ট করছে বলে তিনি অভিযোগ করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর