কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


উপ-পরিচালক পদে পদোন্নতি পেলেন ডা. রমজান মাহমুদ


 স্টাফ রিপোর্টার | ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, রবিবার, ৯:২৮ | স্বাস্থ্য 


উপ-পরিচালক পদে পদোন্নতি পেয়েছেন কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডা. মো. রমজান মাহমুদ। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের বিভাগীয় পদোন্নতি কমিটির (ডিপিসি) সুপারিশক্রমে বিসিএস ক্যাডার/স্বাস্থ্য সার্ভিসের ৪৯ জন চিকিৎসককে উপ-পরিচালক/ সমমান পদে পদোন্নতি প্রদান করা হয়। পদোন্নতিপ্রাপ্তদের এই তালিকায় রয়েছেন ডা. মো. রমজান মাহমুদ।

গত ১৮ সেপ্টেম্বর স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের পারসোনাল-২ অধিশাখার উপসচিব (পার-২) শারমিন আক্তার জাহান স্বাক্ষরিত এই প্রজ্ঞাপনে ডা. মো. রমজান মাহমুদ (৩৬৫৬৫) কে উপ-পরিচালক ইনসিটু সহকারী পরিচালক, ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেলা সদর হাসপাতাল, কিশোরগঞ্জ হিসেবে পদায়ন করা হয়েছে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫ এর ৪র্থ গ্রেড প্রদান করা হলো এবং পদোন্নতিপ্রাপ্ত যে সকল কর্মকর্তা লিয়েন/ প্রেষণ/ট্রেনিং বা ছুটিতে আছেন, তারা নির্দিষ্ট কাজ সম্পন্ন করে কর্মস্থলে যোগদান করলে এ পদোন্নতি কার্যকর হবে।

প্রজ্ঞাপনের অনুলিপি অবগতি ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের লক্ষ্যে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, মহাপরিচালক (প্রশাসন/এমআইএস), অধ্যক্ষ/পরিচালক, বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক, মন্ত্রী/প্রতিমন্ত্রীর একান্ত সচিব বরাবর পাঠানো হয়েছে।

ডা. মো. রমজান মাহমুদ স্বাস্থ্যসেবায় তার কর্ম দক্ষতা ও সেবা প্রদানে শত শত হতদরিদ্র ও সাধারণ মানুষের মুখে হাসি ফুটিয়েছেন। সততা ও দক্ষতার মাধ্যমে স্বাস্থ্যসেবায় সাধারণ জনগণের সেবকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়ে প্রশংসিতও হয়েছেন।

কিশোরগঞ্জ জেলা সদরের মহিনন্দ ভাটুয়াপাড়া গ্রামের বিশিষ্ট পুঁথিকার ও লেখক সিরাজুল ইসলাম ও মাতা মেহেরুন্নেসার পরিবারে ১৯৬০ সালের ১ ডিসেম্বর জন্ম গ্রহণ করেন। ডা. মো. রমজান মাহমুদ ১৯৮৪ সনে একজন এমবিবিএস চিকিৎসক হিসেবে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যোগদান করেন। ১৯৮৬ সনে PSC (পাবলিক সার্ভিস কমিশন) এর মাধ্যমে মেডিকেল অফিসার পদে তাড়াইল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ যোগদান করেন।

চাকরির সুবাদে ময়মনসিংহ এবং কিশোরগঞ্জের আধুনিক সদর হাসপাতালের আরএমওসহ অনেক স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ সুনামের সাথে স্বাস্থ্য সেবা দিয়েছেন। ডা. মো. রমজান মাহমুদ করিমগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দক্ষতার সহিত দায়িত্ব পালন করেন। তিনি হবিগঞ্জ জেলায় সিভিল সার্জন হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।

শিক্ষাক্ষেত্রে তিনি প্রথমে মহিনন্দ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে বৃত্তিসহ পাস করেন। ১৯৭৫ সালে কিশোরগঞ্জ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় থেকে বিজ্ঞান বিভাগে জেলায় দ্বিতীয় স্থান অর্জন করে এসএসসি পাশ করেন। ১৯৭৭ সালে গুরুদয়াল সরকারি কলেজ থেকে একই বিভাগ হতে এইচএসসি এবং ১৯৮৪ সালে ময়মনসিং মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস ডিগ্রি অর্জন করেন।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা মহিনন্দ ভাটুয়া পাড়া গ্রামের পুঁথিকার ও গ্রন্থ লেখক সিরাজুল হকের তিন ছেলে দুই মেয়ের মধ্যে ডা. মো. রমজান মাহমুদ তৃতীয় সন্তান। তার বাবা মহিনন্দ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন।

ময়মনসিংহ জেলার হালুয়াঘাটের সাবেক এমপি আব্দুল জলিলের মেয়ে রুকিয়া সুলতানার সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। বৈবাহিক জীবনে তিনি তিন ছেলে সন্তানের বাবা। ডা. মো. রমজান মাহমুদ কর্ম ও পারিবারিক জীবনে তিনি সফল ও সার্থক ব্যক্তিত্ব।

তিনি বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন কাউন্সিল কেন্দ্রীয় কমিটির সাত বারের নির্বাচিত সদস্য, বাংলাদেশ মেডিকেল  এসোসিয়েশনের আজীবন সদস্য, বাংলাদেশ কলেজ অব ফিজিসিয়ান এর সার্জন সদস্য, কিশোরগঞ্জ ক্লাবের আজীবন সদস্য, মহিনন্দ ইতিহাস ঐতিহ্য সংরক্ষণ পরিষদের উপদেষ্টাসহ বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে জড়িত রয়েছেন। সফল চিকিৎসক হিসেবে সিংগাপুর ও ইন্দোনেশিয়াসহ বিভিন্ন দেশ সফর করেছেন।

মহিনন্দ ইতিহাস ঐতিহ্য সংরক্ষণ পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি আমিনুল হক সাদী বলেন, আমাদের মহিনন্দের কৃতি সন্তান মেধাবী চিকিৎসক ডা. মো. রমজান মাহমুদ উপ-পরিচালক হিসেবে পদোন্নতি পাওয়ায় আন্তরিক অভিনন্দন জানাচ্ছি। তিনি যেন মৃত্যুর পূর্বকালীন পর্যন্ত চিকিৎসা সেবার পাশাপাশি মানবসেবা ও মানব উন্নয়নে কাজ করে যেতে পারেন সে দোয়া করি মহান আল্লাহর কাছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর