কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


একজন প্রবীণ হিতৈষীর কথা


 স্টাফ রিপোর্টার | ১ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৮:০৪ | নারী 


কিশোরগঞ্জ জেলার পাকুন্দিয়া উপজেলার চরলক্ষ্মীয়া গ্রামের হতদরিদ্র সুবেদ আলীর স্ত্রী রোকেয়া আক্তার (৫০)। প্রায় ২ বছর আগে রান্না করতে গিয়ে অগ্নিদগ্ধ হন এই বৃদ্ধা। উপযুক্ত চিকিৎসা ও সেবা-শুশ্রুষা না পাওয়ায় নিঃসন্তান এই নারীর শরীরের চামড়া দিন দিন কুঁচকে যাচ্ছিল। সামর্থ্য ও সুযোগের অভাবে বিনা চিকিৎসাতে ধুঁকে ধুঁকে মৃত্যুকেই নিয়তি হিসেবে ভেবে নিয়েছিলেন দগ্ধ শরীরের অসহনীয় যন্ত্রণায় কাতর রোকেয়া আক্তার।

তার এই অসহায়ত্বের কথা শুনে পরম মমতার হাত বাড়িয়ে দেন পার্শ্ববর্তী গাংধোয়ারচর গ্রামের ফরমোজা মোমতাজ লিলি নামের এক নারী। নিজে উদ্যোগী হয়ে তিনি রোকেয়াকে ভর্তি করান ঢাকার সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে। সেখানেই চিকিৎসকেরা সফলভাবে তার প্লাষ্টিক সার্জারি সম্পন্ন করেন। এ অস্ত্রোপচারের আগ পর্যন্ত ফরমোজা মোমতাজ লিলি প্রায় সার্বক্ষণিক সেবা ও মমতা দিয়ে আগলে রাখেন তাকে। নিজের গাঁটের টাকায় কিনে দেন প্রয়োজনীয় ঔষধপত্র।

চিকিৎসা ও পরিচর্যায় আজ বেঁচে থাকার স্বপ্ন রোকেয়ার চোখে-মুখে। রোকেয়া আক্তারের মতো অসহায়দের পাশাপাশি প্রতিবন্ধী, এতিম আর প্রবীণদের জীবনও বদলে দিচ্ছেন মমতাময়ী নারী ফরমোজা মোমতাজ লিলি। যেকোন অসহায়, নিরাশ্রয়, প্রতিবন্ধী, এতিম আর প্রবীণদের দুঃখ-দুর্দশায় তিনি ছুটে যাচ্ছেন সবার আগে। ভালবাসা ও যত্নে সারিয়ে তুলছেন পীড়িতদের। অনাদরে-অবহেলায় বেড়ে ওঠা শিশুদের মাঝে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিয়ে তাদের নিশ্চিত ভবিষ্যত বিনির্মাণে রেখে চলেছেন অনন্যসাধারণ ভূমিকা।

আলোর মিছিলের এক দুরন্ত অভিযাত্রী হিসেবে গড়ে তুলেছেন একটি প্রতিবন্ধী স্কুল, একটি মূকবধির বিদ্যালয়, একটি এতিমখানা মাদরাসা এবং একটি প্রবীণ বয়স্ক ও শিশু আশ্রয় কেন্দ্র। একেবারেই সাদাসিদে জীবনের এই নারী তাই আজ এলাকার আদর্শ। নিজ কর্মগুণে হয়ে ওঠেছেন কীর্তিমতী নারী, সবার অতি আপনজন, প্রিয় ‘লিলি আপা’। গাংধোয়ারচরের নিভৃত পল্লীজুড়ে কেবল তার মমতারই ছায়া।

ধর্মীয় মূল্যবোধ ও পারিবারিক বিধিনিষেধের কারণে লেখাপড়ায় বেশিদূর এগোতে পারেন নি লিলি আপা। নবম শ্রেণীতে পড়ার সময় বিয়ের পিঁড়িতে বসায় সেখানেই লেখাপড়ার পাঠ চুকাতে হয় তাকে। সে সময় একই গ্রামের সরকারি চাকুরে মোমতাজ উদ্দিনের সঙ্গে পারিবারিকভাবে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন তিনি। নিজে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হতে না পারলেও সমাজের বঞ্চিত ও অনগ্রসর মানুষের শিক্ষা বিস্তারে মনোযোগী ছিলেন তিনি। তিনি সব সময় উপলব্ধি করতেন, সুযোগ পেলে যে কেউ নিজের প্রতিভার সর্বোত্তম অনুশীলনের মাধ্যমে আগামী দিনের যোগ্য নাগরিকে পরিণত হতে পারবে। আর এ চিন্তা থেকেই তিনি নিজেকে উজাড় করে দেন আর্তমানবতার সেবায়।

২০০৪ সালে নিজের একক প্রচেষ্টায় ৩৯ শতাংশ জমির উপর গড়ে তুলেন ৪টি আর্ত-মানবিক প্রতিষ্ঠান- গাংচিল প্রতিবন্ধী স্কুল, ফরমোজা মোমতাজ মূকবধির বিদ্যালয়, প্রবীণ বয়স্ক ও শিশু আশ্রয় কেন্দ্র এবং সোহরাব হোছাইনীয়া এমদাদিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানা। গত ১৫ বছর ধরে তার আন্তরিক প্রচেষ্টা আর পরিচালনায় এসব প্রতিষ্ঠান আর্তমানবতার সেবায় ভূমিকা রেখে চলেছে।

ফরমোজা মোমতাজ লিলি জানান, নিজে স্বল্প শিক্ষিত হলেও সমাজের জন্য শিক্ষার আলোই বেশি প্রয়োজন। নিজের তিন সন্তানকেই তিনি উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করেছেন। সমাজকে আলোকিত করার জন্য কেবল নিজের পরিবার নয় যারা শিক্ষার সুযোগ থেকে বঞ্চিত তাদেরকেও শিক্ষার আওতায় আনতে হবে- এ রকম তাগিদ থেকেই তিনি এসব প্রতিষ্ঠান গড়ার ক্ষেত্রে উদ্যোগী হয়েছেন।

এসব কাজের স্বীকৃতি হিসেবে ফরমোজা মোমতাজ লিপি ‘রাঁধুনী কীর্তিমতী সম্মাননা-২০১৩’ লাভ করেছেন। সে সম্মাননা থেকে পাওয়া এক লাখ টাকাও তিনি এসব প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে ও আর্তমানবতার সেবায় ব্যয় করেছেন। সমাজের কয়েকজন বিত্তশালী এ মানবিক কাজে অনুদান প্রদান করলেও তা ৪টি প্রতিষ্ঠানের জন্য খুবই অপ্রতুল। বিভিন্ন সংস্থা ও ব্যক্তিদের অনুদানে ৭-৮ মাস যায়। বাকি মাসগুলো সেবা ও মমতার আঁচল নিয়ে দরদী মনের প্রিয় লিলি আপাকেই সামলাতে হয়।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর