কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


স্বাধীনতা পদকের দুই লাখ টাকা দিয়ে জনকল্যাণে ফাউন্ডেশন গড়েছেন রাষ্ট্রপতি


 মাজহার মান্না | ১২ অক্টোবর ২০১৯, শনিবার, ৯:২৮ | এক্সক্লুসিভ 


মহান মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য অবদানের জন্য ২০১৩ সালে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ স্বাধীনতা পদকে ভূষিত হন। স্বাধীনতা পদকের দুই লাখ টাকা দিয়ে জনকল্যাণে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ফাউন্ডেশন। এই ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে শনিবার (১২ অক্টোবর) নিজ জন্মভূমি হাওর উপজেলা মিঠামইনে মিঠামইন, ইটনা ও অষ্টগ্রাম উপজেলার কৃতী শিক্ষার্থীদের সম্মাননা ও বৃত্তি প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া গরিব অসহায় নারীদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ করা হয়েছে।

মিঠামইনে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ অডিটরিয়ামে অনুষ্ঠিত এই অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, ২০১৩ সালে স্বাধীনতা পদকের দুই লাখ টাকা দিয়ে এই ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করা হয়। মানুষের সহযোগিতায় এ প্রতিষ্ঠানের ভিত্তি অনেকটাই মজবুত হয়েছে। আশা করি এ ফাউন্ডেশন আর্থসামাজিক উন্নয়ন, দারিদ্র, কর্মসংস্থান, শিক্ষার অগ্রগতি, নারীর ক্ষমতায়নসহ সামাজিক অগ্রগতিতে ভূমিকা রাখবে।

রাষ্ট্রপতি আশাবাদ প্রকাশ করে বলেন, যে মহান কাজ শুরু হলো তা আমার মৃত্যুর পরও যুগের পর যুগ টিকে থাকবে। মিঠামইন থেকে শুরু করে জেলা এরপর দেশ এমনকি দেশের গণ্ডি পেরিয়ে যাবে ফাউন্ডেশনের কার্যক্রম। মূলত মানুষকে সাহস ও সহযোগিতা দিতেই এ ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ তাঁর বক্তৃতায় বলেন, ছাত্র জীবনে ভালো রেজাল্ট করতে পারিনি। তবে ছয় দফাসহ দেশের প্রতিটি ছাত্র আন্দোলনের সময় তাদের দাবি দাওয়া আদায়ের ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছি।

বক্তৃতায় রাষ্ট্রপতি শিক্ষার্থীদেরকে যে কোনো প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে মনোযোগ দিয়ে পড়াশুনা করার তাগিদ দেয়ার পাশাপাশি দেশপ্রেমে উজ্জীবিত হয়ে ভবিষ্যতে দেশ ও জাতির কল্যাণে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন।

হাওরে ঝরেপড়া ও পিছিয়ে থাকা শিক্ষার্থীদের মানোন্নয়নে সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেন, যে কোনো নিয়োগ পরীক্ষায় অধিকাংশ ক্ষেত্রে প্রিলিতেই শিক্ষার্থীরা অকৃতকার্য হয়ে পড়ে। এ ক্ষেত্রে শহরের ছেলেমেয়েদের তুলনায় হাওরাঞ্চলের শিক্ষার্থীরাই বেশি। এ জন্য তিনি শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার ক্ষেত্রে শিক্ষক-অভিভাবকদেরকে আরও বেশি মনোযোগী দৃষ্টি রাখার আহ্বান জানিয়েছেন।

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ফাউন্ডেশনের সদস্য সচিব অধ্যক্ষ আবদুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য রাষ্ট্রপতির বড় ছেলে রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, রাষ্ট্রপতি কার্যালয়ের সচিব সম্পদ বড়ুয়া, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মো. জিল্লুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও পিপি শাহ আজিজুল হক প্রমুখ।

এ সময় রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব মো. জয়নাল আবেদীন, জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী, পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার), জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বাচ্চুসহ বিভিন্ন সামরিক, বেসামরিক উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে মিঠামইন, ইটনা ও অষ্টগ্রাম উপজেলার প্রায় ৮৫ জন শিক্ষার্থীকে সম্মাননা ও বৃত্তিপ্রদান করা হয়। এছাড়া মিঠামইনের ১৫ জন গরিব অসহায় নারীকে সেলাই মেশিন প্রদান করা হয়।

এর আগে বেলা ১২টায় রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ কামালপুরের নিজবাড়ি থেকে ব্যাটারিচালিত একটি অটোরিকশা করে নির্মাণাধীন সারা বছর চলাচল উপযোগী ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম সড়কের দুটি সেতুসহ বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি প্রায় ১০ কিলোমিটার সড়ক অটোরিকশা দিয়ে ঘুরে দেখেন।

পরে রাষ্ট্রপতি তাঁর নিজবাড়ির পেছন দিকের শান্তিরহাট ইসলামপুর-মিঠামইন বাজার সড়কের উন্নয়ন কাজও পরিদর্শন করেন। এরপর তিনি জেলা পরিষদ ডাকবাংলোয় বিশ্রামসহ গার্ড অব অনার গ্রহণ করেন।সন্ধ্যায় তিনি মিঠামইনস্থ আবদুল হক ডিগ্রি কলেজে পিঠা উৎসব ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের পরিবেশনা দেখেন।

রাষ্ট্রপতি কামালপুর গ্রামের নিজবাড়িতে রাত্রিযাপন করে রোববার (১৩ অক্টোবর) তিনি ইটনা উপজেলা সফরে যাবেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর