www.kishoreganjnews.com

ভদ্রতার বিবর্তন



[ আহমাদ ফরিদ | ১৬ আগস্ট ২০১৭, বুধবার, ৩:৫২ | মত-দ্বিমত ]


ভদ্রতা হচ্ছে মানুষের সহজাত ও বহুল প্রত্যাশিত চারিত্রিক ও আচরণগত বৈশিষ্ট্য। বিষয়টা অনেকটা এরকম-যে মানুষকে ভদ্র হতেই হবে। আরো সহজ করে বলতে গেলে ভদ্রতা মানুষের আচরণ ও রুক্ষতা পশুদের আচরণ। একজন মানুষ অভদ্র হলে সেটা তার স্বভাবের বিচ্যুতি। এই বিচ্যুতি তার মানব হিসাবে জন্ম গ্রহণকে অনর্থক প্রমাণ করে। ভদ্রতার সংজ্ঞা জানার আগে মানুষের সংজ্ঞা জনা দরকার। মানুষ হচ্ছে তারাই যারা উন্নত চরিত্র আর সুন্দর আচরণের অধিকারী।  কাজেই ভদ্রতার উপযুক্ত সংজ্ঞা হতে পারে সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ প্রাণীর উন্নত চরিত্র আর সুন্দর আচরণ।

সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ প্রাণী হিসাবে মানুষ উন্নত চরিত্র ও সুন্দর আচরণের অধিকারী হবে-এটাই প্রাকৃতিক ও সহজাত প্রত্যাশা। মানুষ মানুষ বলেই ভদ্রতা তার অবিচ্ছেদ্য অংশ। ভদ্রতাকে বাদ দিলে মানুষের কাছে আর কিছু থাকেনা, যার দ্বারা তার শ্রেষ্ঠত্বের প্রমাণ মিলে। সৃষ্টি জগতের আঠারো হাজার সৃষ্টির মধ্যে ভদ্রতাই মানুষকে অন্যান্য পশু প্রাণীদের থেকে আলাদা করেছে ও শ্রেষ্ঠত্ব দিয়েছে।

একজন ভদ্র মানুষের দুটি বিশেষ গুণ তার ভদ্রতার প্রমাণ। এর একটি হলো উন্নত চরিত্র ও অপরটি হলো সুন্দর আচরণ। মানুষ শ্রেষ্ঠ বলেই তার চরিত্র থাকবে উন্নত আর আচরণ হবে সুন্দর। তবেই না সে ভদ্রতার দাবীদার। বাসে লেখা থাকে”্ব্যাবহারেই বংশের পরিচয়” অর্থাৎ যার আচরণ ভালো তার বংশও ভালো। এখানে মানুষের ভদ্রতাকেই ইঙ্গিত করা হয়েছে।

ভদ্রতা মানুষের একটা পরিশীলিত আচরণবিধি। এটা সম্পূর্ণ মনোজাগতিক বিষয়। ভদ্রতার সাথে অর্থ বিত্তের কোন সম্পর্ক নেই। সুন্দর চরিত্র অর্জনে যেমন টাকা লাগেনা তেমনি সুন্দর আচরণ করতেও টাকা লাগে না। যা লাগে সেটা হচ্ছে আত্ম মর্যাদাবোধ। এই আত্ম মর্যাদাবোধ পশুদের নেই বলে তারা কর্কশ আচরণ করে, ঝগড়া মারামারি ও কাড়াকাড়ি করে। ইতর প্রাণীদের জীবন হয় ভদ্রতা বিবর্জিত পাশবিক শক্তি নির্ভর। সেখানে মেধা চরিত্র আর সুন্দর আচরণের কোন কদর নেই। একমাত্র শক্তিই সেখানে টিকে থাকার মোক্ষম অস্ত্র। সে জগত পশুদের জগত মানুষের নয়।

মানুষ ইতর নয় ভদ্র প্রাণী। তার আপন মহিমায় টিকে থাকার অস্ত্র, উন্নত চরিত্র আর সুন্দর আচরণ। এ জন্যই যে মানুষ উন্নত চরিত্র ও সুন্দর আচরণের অধিকারী, তাকে ভদ্রলোক বলা হয়। যদিও সকল মানুষেরই ভদ্রলোক হওয়ার কথা কিন্তু নানা কারণে মনুষ্যত্ব থেকে অধিক পরিমাণে মানুষের বিচ্যুতির কারণে সমাজে ভদ্রলোকের সংখ্যা কমছে। এমনিতেই ভদ্রলোকের সংখ্যা সব কালেই কম ছিল। অবশ্য সকল মানুষই ভদ্রলোক হলে এখানে ভদ্রতা নিয়ে আলোচনার কোন অবকাশই থাকতোনা।

বর্তমানে আমরা এমন একটা সময়ে বাস করছি যেখানে প্রকৃত ভদ্রলোকের সংখ্যাই শুধু কমেই আসে নি ভদ্রতার সংজ্ঞাই উল্টে গিয়ে পাল্টে গেছে। এখন নতুন বিবর্তিত ভদ্রতার জন্য উন্নত চরিত্র ও সুন্দর আচরণের বদলে টাকা আর ক্ষমতাই মূলশক্তি। বিবর্তিত ভদ্রলোকদের চরিত্র বাজে আর আচরণ রুক্ষ, তবুও তারা ভদ্রলোক!। ভদ্রতার পুরো সংজ্ঞাটাই পাল্টে দিলেন বিবর্তিতরা। এদের ভদ্রতা মনোজাগতিক নয় নিতান্ত পোষাকি আর দাপটি। এদের মধ্যে মধুর আচরণ নেই, আছে আদেশের কঠোরসুর। নব্য ভদ্রলোকদের চরিত্র নিয়ে প্রশ্ন তোলার উপায় নেই, কারণ তারা টাকাবান ও ক্ষমতাবান।

এদের ভদ্রলোক হিসাবে ধরলে আমাদের দেশে এখন ভদ্রলোকে সয়লাব। যাদেরই অঢেল টাকা বাড়ি গাড়ি আছে তারা সবাই ভদ্রলোক। আর চরিত্র! টাকা থাকলে এখন চরিত্রে কোন দাগ লাগে না। ঘুষ-সুদ খেয়ে,অস্ত্র-মাদক ব্যবসা করে,চরিত্র বিক্রি করে, দেশের স্বার্থ বিকিয়ে, সন্ত্রাস আর জঙ্গিবাদ করে টাকা কামাও আর তোমার চরিত্র যত খারাপ আর আচরণ যত কুৎসিতই হোক না কেন তুমি একজন কনফার্ম ভদ্রলোক! ভদ্রলোকের জগতে তুমি সুস্বাগত! আর যাদের অনেক টাকা নাই তারা এখন ছোটলোক। তার চরিত্র যত উন্নত আর আচরণ যত সুন্দরই হোক না কেন সে এখন ডাইরেক্ট ছোটলোক। হল দখল, বাড়ি দখল আর চর দখলের মত ভদ্রতার সোল এজেন্সি এখন টাকাবানদের হাতে দখল হয়ে গেছে। এখন উন্নত চরিত্র ধুয়ে মানুষ পানি খায় আর সুন্দর আচরণ করে গালি খায়। নতুন এই বিবর্তিত ভদ্রতার যুগে চরিত্রকে  একেবারে ডিলিট করে ফেলা হয়েছে।। কারণ চরিত্র থাকলে কু পথে টাকা কামানো যাবে না। আর টাকা কামাতে না পারলে পোষাকি ভদ্রতাও দেখানো যাবেনা। কাজেই সহজে ভদ্রলোক হতে গেলে যেন টাকাকেই ভদ্রতার মূল উপাদানে পরিণত করতে হবে। তাই প্রকৃত ভদ্রতার মূল উপাদান উন্নত চরিত্র আর সুন্দর আচরণের আজ বড়ই অভাব, যদিও চারপাশে কোথাও আজ বিবর্তিত ভদ্রলোকের অভাব নেই। এটা মানুষের নৈতিক অবক্ষয়জনিত বিবর্তন।

ছোটবেলায় পড়েছিলাম চরিত্রই একজন মানুষের মূল সম্পদ। আর যাদের চরিত্র ও আচরণ সুন্দর তারাই ভদ্রলোক। এখন অবক্ষয়ের জয়জয়কার, তাই এখন যার টাকা নাই, সে যত ভালো লোকই হোক না কেন, ভদ্রলোকের আঙ্গিনায় তার প্রবেশ বারন। এখনো সমাজে যে কয়জন সাবেকী ভদ্রলোক রয়েছেন তারা বিবর্তিত ডিজিটাল সংস্কৃতির সংযোগ নিতে ব্যর্থ হয়েছেন, তাই ভদ্রতার সংজ্ঞা বদলের খবর তাদের কাছে এখনো পৌঁছেনি। তাই বিবর্তিত ভদ্রতার আমলে নতুন ভদ্রতার সাথে তাল রাখতে না পারায় নিজেদের অজান্তেই তারা তথাকথিত ছোটলোকের দলে ছিটকে পড়ছেন।

মনুষ্যত্বের অবক্ষয়জনিত কারণে বিবর্তিত হয়ে, মানুষ তার নৈতিক অবস্থান থেকে দূরে সরে গেছে বলেই আজ তার নিজ প্রয়োজনেই ভদ্রতার সংজ্ঞা কে সে উল্টোভাবে পাল্টে নিয়েছে। পাল্টে যাওয়া ভদ্রতার সেই সংজ্ঞায় এখন আর উন্নত চরিত্র আর সুন্দর আচরণের কোন প্রয়োজন নেই। নতুন বিবর্তিত সংজ্ঞায় তার স্থলে টাকা ও ক্ষমতা বা শক্তি প্রতিস্থাপন করা হয়েছে।

আগের ভদ্রলোকেরা তার উন্নত চরিত্র ও সুন্দর আচরণ দিয়ে মানুষকে বশ করতেন আর এখনকার বিবর্তিত ভদ্রলোকেরা টাকা আর শক্তির মাধ্যমে মানুষকে বশ করেন। বিবর্তনের মাধ্যমে মানুষ প্রস্তর-মূক যুগ থেকে সরব ডিজিটাল যুগে প্রবেশ করেছে-এটা পজেটিভ বিবর্তন। কিন্তু ভদ্রতার সংজ্ঞা পাল্টে উল্টে দেয়াটা মানুষের জন্য পজেটিভ নয় নেগেটিভ বিবর্তন। এই নেগেটিভ বিবর্তন মানুষের জন্য শুভ ও সহজাত নয়। এটা মানুষের সহজাত স্বভাবকে উল্টে দিয়ে মানুষকে মনুষ্যত্ব থেকে বিচ্যুত করে পাশবিকতার দিকে ঠেলে দেয়। কাজেই মনুষ্যত্ব ধরে রাখতে চাইলে উন্নত চরিত্র আর সুন্দর আচরণের যে ভদ্রতা সেই ভদ্রতার সংজ্ঞা উল্টে পাল্টানো চলবেনা। অর্থের জোরে ভদ্রতাকে পোষাকি না করে মনোজাগতিক করতে হবে। আর যারা চরিত্র নষ্ট করে আর বাজে কর্কশ আচরণ করে স্রেফ টাকার জোরে ভদ্র সাজতে চায় তাদের ভদ্রতার সোল এজেন্সির দাবী ছাড়তে হবে। ভদ্রতার সংজ্ঞাকে না পাল্টে নিজের চরিত্র আর আচরণ পাল্টে প্রকৃত ভদ্রলোক হতে হবে। এতেই রয়েছে মানুষের আত্ম মর্যাদার শ্রেষ্ঠত্ব।।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]



প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম

সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ

সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার

কিশোরগঞ্জ-২৩০০

মোবাইল: +৮৮০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮

ইমেইল: kishoreganjnews247@gmail.com

©All rights reserve www.kishoreganjnews.com