কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


শিক্ষানুরাগী দানবীর গুরুদয়াল সরকার


 মু আ লতিফ, সাংবাদিক ও আঞ্চলিক ইতিহাস-ঐতিহ্য সন্ধানী লেখক | ১৮ অক্টোবর ২০১৯, শুক্রবার, ৮:৫৩ | ব্যক্তিত্ব 


ঢাকা বিভাগের একটি অন্যতম জেলা কিশোরগঞ্জ। হাওর-বাঁওরে ঘেরা বৈচিত্র্যময় ভূ-প্রকৃতির এক অনন্য জনপদ কিশোরগঞ্জ। চন্দ্রাবতী, মহুয়া-মলুয়ার দেশ এই কিশোরগঞ্জ।এই জেলার ভৌগোলিক আয়তন প্রায় ২,৬৮৯ বর্গ কিলোমিটার। জেলার ১৩টি উপজেলার পরতে পরতে ছড়িয়ে রয়েছে ইতিহাস আর ঐতিহ্যের নিদর্শন। শিল্প-সাহিত্য আর লোকসংস্কৃতির এক সমৃদ্ধ ও উর্বর জনপদের নাম কিশোরগঞ্জ।

কিশোরগঞ্জ অসংখ্য কীর্তিমান মানুষের জন্মস্থান। মুক্তিযুদ্ধকালীন সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রয়াত রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান, বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রয়াত মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, র্যাং লার আনন্দমোহন বসু, পণ্ডিত শ্রীনীরদচন্দ্র চৌধুরী, মহারাজ ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী, উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী, বিপ্লবী রেবতী মোহন বর্মন, শিক্ষানুরাগী মুন্সি আজিমউদ্দিন আহমদ, শহীদ ডা. আবদুল আলীম চৌধুরী, শাহনামা অনুবাদক কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ এর মতো অনেক বিখ্যাত লোকের জন্মস্থান কিশোরগঞ্জ।

আমরা ধারাবাহিকভাবে পরিচিত হবো এমনই কিছু বিখ্যাত ব্যক্তিদের সাথে। আজ তৃতীয় পর্বে আমরা তুলে ধরছি কিশোরগঞ্জের প্রধান বিদ্যাপীট গুরুদয়াল কলেজ প্রতিষ্ঠার সাথে যার নামটি অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িত সেই মহৎপ্রাণ দানবীর গুরুদয়াল সরকার এঁর সংক্ষিপ্ত জীবনালেখ্য। লিখেছেন সাংবাদিক ও আঞ্চলিক ইতিহাস-ঐতিহ্য সন্ধানী লেখক মু আ লতিফ

অনেক মানুষের জীবনের বাঁকে বাঁকে কিছু স্মৃতি ও কিছু কীর্তি রয়ে যায়, যা তাঁদের কালের গণ্ডি ছাড়িয়ে মহাকালের পাতায় চির অমর, অক্ষয় ও স্মরণীয় করে রাখে। তাঁরা হয়ে ওঠেন মানুষের জন্য অনুপ্রেরণা ও আলোকবর্তিকাস্বরূপ। এমনই একজন হলেন কিশোরগঞ্জের ইটনা উপজেলার ধনপুর ইউনিয়নের কাঠৈর গ্রামের কৃতী সন্তান দানবীর গুরুদয়াল সরকার।

তৎকালীন একটি অন্ধকারাচ্ছন্ন ও পশ্চাৎপদ জনপদের অধিবাসী হয়েও তিনি স্বপ্ন দেখেছিলেন একটি আলোকময় সমাজের। এর জন্য তিনি শিক্ষার মশাল জ্বালাতে প্রচণ্ড সাহসে সুদীপ্ত ও সুদৃঢ় চিত্তে দান করেছিলেন তাঁরই উপার্জিত ধন-সম্পদ। এই দানবীরের বদান্যতায় এবং তাঁরই হাত ধরে ১৯৪৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল আজকের সুপ্রতিষ্ঠিত গুরুদয়াল সরকারি কলেজ।

এই মহান দানবীর জন্মগ্রহণ করেন ১৬ আশ্বিন ১২৬৯ বঙ্গাব্দে ও মৃত্যুবরণ করেন ৬ অগ্রহায়ণ ১৩৬২ বঙ্গাব্দে। তাঁর পিতার নাম গোপীমোহন সরকার ও মাতা যশোধাময়ী সরকার।  তাঁরা তিন ভাই। তিনি ছাড়া দুজন ছিলেন কৃষ্ণদয়াল সরকার ও বিষ্ণুদয়াল সরকার। তাঁর একমাত্র পুত্র কলকাতার বাসিন্দা মহানন্দ সরকার সেখানেই মৃত্যুবরণ করেন। একটি ধনাঢ্য পরিবারের সন্তান হয়েও তিনি ছিলেন নিরহংকার, পরোপকারী এবং শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিত্ব।

কিশোরগঞ্জের হাওরের অধিকাংশ এলাকা সে সময়ে ছিল শিক্ষার আলো থেকে বঞ্চিত। পাড়াগাঁয়ে লেখাপড়ার তেমন সুযোগ না থাকায় বাল্যকালে তাঁকেও ‘টোল’-এ পড়তে হয়েছে। শিক্ষার সুযোগ অথবা অনগ্রসর সমাজে শিক্ষার প্রতি অনাগ্রহের কারণে তাঁরও আর বেশিদূর অগ্রসর হওয়া সম্ভব হয়নি। তারপরও টোল পাস করা গুরুদয়াল সরকার রামায়ণ, পদ্মপুরাণ ইত্যাদি পড়ায় অভ্যস্ত ছিলেন। উচ্চতর লেখাপড়ার অভাব ও অসুবিধাটা হয়তো তিনি হাড়ে হাড়ে উপলব্ধি করতে পেরেছিলেন।

বিদ্যাশিক্ষার মাধ্যমে জ্ঞানার্জনের প্রয়োজনের বোধটুকু তাঁকে হয়তো বিশেষভাবে ভাবিয়ে তুলেছিল। ধন-জনই সব ও শেষ কথা নয়, শিক্ষা শিখরে উঠবার সিঁড়ি। তাই শিক্ষার বিকল্প নেই। একটি উন্নত ও অগ্রসর সমাজ গঠনে শিক্ষার প্রয়োজনীয়তার কথা তিনি বুঝেছিলেন। কারণ অগাধ ধনসম্পদের মালিক হলেও শিক্ষা ছাড়া জীবন অর্থহীন। এই উপলব্ধি থেকেই তিনি তাঁর লোকালয়, সমাজ ও প্রজন্মকে আলোকিত করতে, শিক্ষার জন্য কলেজ প্রতিষ্ঠার আহ্বানে সাগ্রহে সাড়া দিয়েছিলেন। এটাই তাঁর মহৎ প্রাণের সুদীপ্ত প্রয়াস।

ধনপুরের কাঠৈরের কৈবর্তরাজ গুরুদয়াল সরকার বড় কৃষক হলেও তাঁর মাছের ব্যবসা ছিল আরো বড়। তার চেয়ে বড় ছিল মনটা। গরিবের দুঃখ-কষ্ট এবং অসহায়ত্ব তাঁকে বড়ই ব্যথিত করত। ফলে তাঁর দক্ষিণহস্ত সব সময় মানুষের কল্যাণে প্রসারিত থাকত। এলাকার সাধারণ মানুষের সাথেও ছিল তাঁর সখ্য এবং ভালোবাসা। তবে তিনি শিক্ষার প্রতি ছিলেন বেশি অনুরাগী।

নিজে বেশি পড়তে পারেননি, তাই সবার পড়ার প্রতি ছিল তাঁর বেশি অনুরাগ। গ্রামে তাই তিনি তাঁর মায়ের নামে ‘যশোধাময়ী ফ্রি প্রাইমারি স্কুল’ গড়ে তোলেন। এজন্য বাড়ির আঙিনায় স্কুলের জন্য জমি দান করেন এবং নিজস্ব অর্থে ঘর তৈরি করে দেন। সে সময় তাঁর প্রতিষ্ঠিত স্কুলটিকে ঘিরে শিশু-কিশোরদের শিক্ষার সুযোগ সৃষ্টি ও তাদের মধ্যে গড়ে উঠেছিল শিক্ষার একটি পরিবেশ।

তাঁর ছোট ভাই কৃষ্ণদয়াল সরকারের দিকের নাতি অবিনাশ সরকার সূত্রে জানা গেছে, গুরুদয়াল সরকারের মায়ের নামে প্রতিষ্ঠিত স্কুলটি ১৯৭৩ সালে সরকারিকরণ করার পর আগের নামটি চিরতরে মুছে যায়। বহুবার প্রার্থনা ও আবেদনের পরও তাঁর মায়ের নামটি পুনর্বহাল সম্ভব হয়নি। এই দুঃখ পরিবারের সদস্যদের পীড়া দেয় সব সময়।

গুরুদয়াল সরকার ছিলেন অগাধ ধনের মালিক। জানা যায়, তিনি প্রচুর জমির মালিক ছিলেন। তৎকালেই তিনি প্রতি বছর ২ হাজার মণ ধান বিক্রি করতেন। ৪০টি হাল ছিল, অন্তত ৭০টি নৌকা ছিল। মাছের বড় ব্যবসা ছিল। তাঁর প্রধান জলমহালগুলার মধ্যে ছিল হারিয়া বিল, ছান্দিনা, মুলদার, দৈইলং, পুরান ডোবার বিল ও ছায়াবিল। এছাড়া ধনপুর ও রংপুরে শুঁটকির ব্যবসা ছিল। সারা বছর বাড়িতেই মাছ ধরার জাল তৈরির কারিগর থাকত।

তিনি একজন নিষ্ঠাবান ও সজ্জন ব্যক্তি ছিলেন। গ্রামবাসীর সাথে তাঁর সুসম্পর্ক ছিল। তিনি প্রতিবেশীসহ এলাকাবাসীর সুখ-দুঃখে খবর নিতেন। তিনি ছিলেন শৌখিন, খেলাধুলা পছন্দ করতেন এবং ঘোড়ায় চড়ে বেড়াতেন। তিনি একজন ধর্মপ্রাণ ব্যক্তি ছিলেন। দোলপূর্ণিমা ও দুর্গাপূজায় মহাধুমধামে তিনি পূজার ব্যবস্থা করতেন।

তিনি কিশোরগঞ্জে কলেজ স্থাপনের পূর্বে এ অঞ্চলে কোনো কলেজ ছিল না। ফলে এখানকার শিক্ষার্থীদের উচ্চশিক্ষা প্রায় অসম্ভব ছিল। তৎকালে কিশোরগঞ্জের বিদ্যোৎসাহী বেশ কিছু ব্যক্তি একটি কলেজ প্রতিষ্ঠার জন্য এগিয়ে আসেন। তাঁরা হলেন তাড়াইলের খান সাহেব আবদুল ওয়াদুদ চৌধুরী (উকিল), শাহ আবদুল হামিদ, বিপিন চন্দ্র রায়, নির্মল রায়, ডা. প্রফুল্ল চন্দ্র ধর প্রমুখ।

তাঁদের চেষ্টায় ও তৎকালীন মহকুমা প্রশাসক সাদত হোসেন চৌধুরীর আন্তরিক চেষ্টায় বর্তমান পাট গবেষণা কেন্দ্রের অভ্যন্তরে একটি একতলা ভবনে ১৯৪৩ সালের ৬ অক্টোবর ‘কিশোরগঞ্জ কলেজ’ নামে অস্থায়ীভাবে একটি কলেজের কাজ শুরু হয়। পরে একই বছরের ২০ সেপ্টেম্বর তৎকালীন ময়মনসিংহের কালেক্টর ও ম্যাজিস্ট্রেট ই. জি. ক্রিক আনুষ্ঠানিকভাবে ‘কিশোরগঞ্জ কলেজে’র দ্বারোদ্ঘাটন করেন। ১১৩ জন শিক্ষার্থী ও ছয়জন সহকর্মী নিয়ে কলেজের অধ্যক্ষের দায়িত্ব গ্রহণ করেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ড. ধীরেন্দ্র লাল দাশ।

কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের মঞ্জুরি লাভের জন্য প্রয়োজনীয় ১৩ একর সরকারি খাসজমি স্থায়ীভাবে বন্দোবস্ত নেয়ার পর ১৯৪৫ সালে কলেজটি বর্তমান জায়গায় স্থানান্তর করা হয়। তখন কলেজে কেবল কলা বিভাগ চালু ছিল। কলেজ কর্তৃপক্ষ কলেজে বিজ্ঞান বিভাগ চালুর সিদ্ধান্ত নেন। ফলে প্রয়োজন হয় ভবন ও বিজ্ঞানাগার নির্মাণের। কিন্তু টাকা আসবে কোথা থেকে এ নিয়ে সবাই চিন্তায় পড়েন। টাকা না হলে কলেজ থাকে না এবং কলেজ না থাকলে এখানকার শিক্ষার্থীদের উচ্চশিক্ষা বন্ধ হয়ে যায়।

এ অবস্থায় অর্থ সাহায্যের প্রস্তাব যায় ইটনার কৈবর্তরাজ গুরুদয়াল সরকারের কাছে। তিনি সানন্দে এ প্রস্তাব গ্রহণ করেন। তিনি কলেজের জন্য নগদ ৫০ হাজার টাকা দান করেন। এককালীন বিরাট অংকের টাকা প্রদানের জন্য কলেজের নতুন নামকরণ হয় ‘গুরুদয়াল কলেজ’। তাঁর এ টাকা প্রদানের ফলে কলেজটি বিপর্যয়ের হাত থেকে বেঁচে যায় এবং এ অঞ্চলের শিক্ষার্থীদের উচ্চশিক্ষার দ্বার খুলে যায়। ওই বছরই কলেজে বিএ ক্লাস খোলা হয় এবং কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুমোদন লাভ করে দ্বিতীয় শ্রেণীর কলেজ থেকে প্রথম শ্রেণীতে উন্নীত হয়।

কিশোরগঞ্জ অঞ্চলে চল্লিশ দশকে কলেজ প্রতিষ্ঠা এবং কলেজকে টিকিয়ে রাখা ছিল কঠিন ও চ্যালেঞ্জিং ব্যাপার। এ সময় গুরুদয়াল সরকার এগিয়ে না এলে কী হতো বর্তমান সময়ে বিষয়টি অনুমান করাও কঠিন। ওই সময় কলেজটি এ অঞ্চলে উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে ব্যাপক অবদান রাখতে সক্ষম হয়েছিল। কৈবর্তরাজের বদান্যতায় স্থাপিত কলেজটি তখন এলাকায় আলোকবর্তিকাস্বরূপ প্রতিষ্ঠা লাভ করেছিল।

১৯৪৫ সালে নবরূপে কলেজ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে প্রতিষ্ঠাতা গুরুদয়াল সরকারকে কলেজে আমন্ত্রণ করা হয়। তিনি কলেজ কর্তৃপক্ষের আমন্ত্রণ গ্রহণ করেন এবং শিক্ষার্থীদের জন্য দুই নৌকা বোঝাই আম, আনারস ও মিষ্টি নিয়ে হাজির হন। একই অনুষ্ঠানে কলেজ কর্তৃপক্ষ একটি বিষয়ে তাঁর সিদ্ধান্ত জানতে গিয়ে তাঁর মহত্ত্ব ও অসাম্প্রদায়িকতায় বিস্মিত হয়েছিলেন।

এ প্রসঙ্গে ‘কিশোরগঞ্জের ইতিহাস’ গ্রন্থে বর্ণিত অংশটি উদ্ধৃত করছি, “গুরুদয়াল সরকারের পরিবারের উত্তরাধিকারীর সুপারিশক্রমে চারজন ছাত্রছাত্রী বিনা বেতনে এ বিদ্যালয়টিতে পড়ার সুযোগ পাবে এ চুক্তিপত্র কলেজ কর্তৃপক্ষ তাঁর সামনে দিয়ে বলেছিলেন, ‘কোন সম্প্রদায়ের চারজনকে আপনি এ বৃত্তি দেবেন?’ উত্তরে মহৎপ্রাণ গুরুদয়াল সরকার বলেছিলেন, ‘সম্প্রদায় আবার কি? আমি মাছ বিক্রি করে খাই। আমার মাছ হিন্দু-মুসলিম, মালী-ঢুলি, চাঁড়াল-মেথর-ডোম- সবাই কিনে খায়। বৃত্তি পেলে সব জাতের ছেলেমেয়েই পাবে।”

তাঁর এ সিদ্ধান্ত থেকেই গুরুদয়াল সরকারকে আঁচ করা যায়। ধর্ম-বর্ণ এবং ছোট-বড় পক্ষপাতহীন একজন অসম্প্রদায়িক মানুষের চরিত্র তিনি চোখে আঙুল দিয়ে সকলকে দেখিয়ে গেছেন। তিনি ছিলেন একজন বিশাল হৃদয় ও মহৎপ্রাণের অধিকারী। তৎকালে এই কলেজটিতে বর্তমান জেলা ছাড়াও পার্শ্ববর্তী নেত্রকোনা, নরসিংদী এবং ময়মনসিংহ জেলার নান্দাইলের অসংখ্য ছাত্র-ছাত্রী পড়ার সুযোগ পেয়ে নানাভাবে উপকৃত ও প্রতিষ্ঠা পেয়েছে।

বর্তমান মহামান্য রাষ্ট্রপতি অ্যাডভোকেট মো. আবদুল হামিদ ছাড়াও সাবেক রাষ্ট্রপতি ও প্রধান বিচারপতি সাহাবুদ্দীন আহমদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি প্রফেসর শামসুল হক, বাংলাদেশের সেনাবাহিনীর সাবেক প্রধান নুরুদ্দিনসহ বহু কীর্তিমান ব্যক্তিত্ব এই কলেজে অধ্যয়ন করে পরবর্তী জীবন গড়ার সুযোগ লাভ করেছেন।

গুরুদয়াল সরকার তাঁর মহৎ কর্মের মধ্যেই বেঁচে থাকবেন। কলেজ কর্তৃপক্ষ তাঁর স্মৃতিরক্ষার্থে ২০.০৯.২০০৯ সালে কলেজ প্রাঙ্গণে গুরুদয়াল সরকারের ভাস্কর্য স্থাপন করেছে। কলেজ সূত্র জানিয়েছে, প্রতি বছর ৬ সেপ্টেম্বর কলেজ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে তাঁকে স্মরণ করা হয় এবং তাঁর মঙ্গলার্থে প্রার্থনা করা হয়। এই মহৎ প্রাণ, শিক্ষানুরাগী ও মনীষী চিরকাল তাঁর কীর্তির মাঝে বেঁচে থাকবেন। (তথ্য: তাঁর আত্মীয়স্বজন)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর