কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


আজিমউদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা মুন্সি আজিমউদ্দিন আহমদ


 মু আ লতিফ, সাংবাদিক ও আঞ্চলিক ইতিহাস-ঐতিহ্য সন্ধানী লেখক | ২৪ অক্টোবর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৯:৪৫ | ব্যক্তিত্ব 


ঢাকা বিভাগের একটি অন্যতম জেলা কিশোরগঞ্জ। হাওর-বাঁওরে ঘেরা বৈচিত্র্যময় ভূ-প্রকৃতির এক অনন্য জনপদ কিশোরগঞ্জ। চন্দ্রাবতী, মহুয়া-মলুয়ার দেশ এই কিশোরগঞ্জ।এই জেলার ভৌগোলিক আয়তন প্রায় ২,৬৮৯ বর্গ কিলোমিটার। জেলার ১৩টি উপজেলার পরতে পরতে ছড়িয়ে রয়েছে ইতিহাস আর ঐতিহ্যের নিদর্শন। শিল্প-সাহিত্য আর লোকসংস্কৃতির এক সমৃদ্ধ ও উর্বর জনপদের নাম কিশোরগঞ্জ।

কিশোরগঞ্জ অসংখ্য কীর্তিমান মানুষের জন্মস্থান। মুক্তিযুদ্ধকালীন সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রয়াত রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান, বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রয়াত মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, র‌্যাংলার আনন্দমোহন বসু, পণ্ডিত শ্রীনীরদচন্দ্র চৌধুরী, মহারাজ ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী, উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী, বিপ্লবী রেবতী মোহন বর্মন, শিক্ষানুরাগী মুন্সি আজিমউদ্দিন আহমদ, শহীদ ডা. আবদুল আলীম চৌধুরী, শাহনামা অনুবাদক কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ এর মতো অনেক বিখ্যাত লোকের জন্মস্থান কিশোরগঞ্জ।

আমরা ধারাবাহিকভাবে পরিচিত হবো এমনই কিছু বিখ্যাত ব্যক্তিদের সাথে। আজ চতুর্থ পর্বে আমরা তুলে ধরছি কিশোরগঞ্জ শহরের ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীট আজিমউদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা মুন্সি আজিমউদ্দিন আহমদ এঁর সংক্ষিপ্ত জীবনালেখ্য। লিখেছেন সাংবাদিক ও আঞ্চলিক ইতিহাস-ঐতিহ্য সন্ধানী লেখক মু আ লতিফ

তখন সময়টা ছিল প্রায়-অন্ধকার। কোথাও আলো নেই। আঁধারে ঢেকে ছিল মন-মস্তিষ্ক এবং সর্বোপরি জীবনাচার। বিশেষ করে এ অঞ্চলের পশ্চাৎপদ মুসলিম জনগোষ্ঠীর ক্ষেত্রে এ কথা বিশেষভাবে সত্য ছিল। সেই সময় আলোর মশাল জ্বালিয়ে এগিয়ে এলেন কিশোরগঞ্জের সাঁতারপুর গ্রামের মহৎপ্রাণ এক কৃতী ব্যক্তিত্ব। প্রতিষ্ঠা করলেন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ‘আজিমউদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়’। অবতীর্ণ হলেন অন্ধকার গহ্বরে নিমজ্জিত দিশাহীন সমাজের মানুষকে শিক্ষার আলোয় আলোকিত করার এক সাহসী সংগ্রামে।

এ আলো সাধারণ আলো নয়, শুধুই মশাল বা প্রদীপের আলো নয়- এ যে জ্ঞানের আলো। যে আলোতে উদ্ভাসিত হয়েছে অন্ধকারে হাতড়ানো দিশাহীন তরুণ-যুবাসহ এলাকার অগণিত মানুষ। আর এ কাজে ব্রতী হলেন জনদরদী, কিশোরগঞ্জ বারের বিশিষ্ট আইনজীবী ও  শিক্ষানুরাগী মুন্সি আজিমউদ্দিন আহমদ।

মুন্সি আজিমউদ্দিন জন্মেছিলেন আরবি শিক্ষিত কিন্তু আধুনিক শিক্ষায় আগ্রহী এক সাধারণ পরিবারে। তাই পিতার আগ্রহেই তিনি ভর্তি হন পাঠশালায়। প্রতিভাধর আজিমউদ্দিন সহজেই পাস করেন ছাত্রবৃত্তি পরীক্ষা। তবে পাস করলে কী হবে, অর্থাভাবে তাঁর আর উচ্চতর পড়া হলো না। দরিদ্র পরিবারে তাঁকেই ধরতে হলো সংসারের হাল। তিনি চাকরি নিলেন শিক্ষকতার। কিন্তু স্বপ্ন যার বড় হবার তাকে কি দাবিয়ে রাখা যায়? জগৎসংসারে কর্মবীরের কীর্তি রচিত হবে নির্দ্বিধায়। সাহসী তাঁর মন। ফলে কে আটকায় তাঁকে। তিনি মনস্থ করলেন আইনজীবী হবেন। কিনে আনলেন মোক্তারি পড়ার বই।

শুরু হয় জীবনসংগ্রাম। বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের শিক্ষাদানের পাশাপাশি তিনিও পড়েন আইনের বই। বিদ্যালয়ে আসা-যাওয়ার পথেও তিনি আইনের বই পড়েন। এদিকে সংসার চালাবার জন্য টিউশনি নিয়ে ছাত্রদের বাড়িতে পড়াতে যান। এ যে পরিশ্রমী জীবন, যার নাম সাধনা। অবশেষে তিনি আইনের পরীক্ষায়ও কৃতিত্বের সাথে পাস করেন। যোগ দেন কিশোরগঞ্জ বারে এবং প্রথম দিন কোর্টে গিয়ে উপার্জন করেন তেরো টাকা। তাঁর প্রথম উপার্জিত টাকা দিয়ে তিনি কিনে আনেন মায়ের জন্য বেনারসি শাড়ি। মায়ের হাতে এ শাড়ি তুলে দিয়ে তিনি নিজেকে ধন্য মনে করেন। অন্যদিকে জননীও ছেলেকে অন্তর থেকে আশীর্বাদ করেন আরো বড় হওয়ার।

এদিকে মেধাবী ছাত্র আজিমউদ্দিন আইন পেশাতে এসেও বিজ্ঞতা ও দক্ষতার পরিচয় দিলেন। একজন বুদ্ধিদীপ্ত এবং সুকৌশলী আইনজীবী হিসেবে স্বল্প দিনের মধ্যে তাঁর সুনাম সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ে। জমে ওঠে তাঁর আইন পেশা এবং এর সাথে ঘটে যথেষ্ট অর্থের সমাগম।

অনেকের জন্যই অর্থ অনর্থের মূল। কিন্তু তাঁর বেলায় তা সত্য নয়। তিনি ছিলেন ভিন্ন প্রকৃতির। তাঁর মধ্যে ছিল মানুষের প্রতি ভালোবাসা এবং দুঃখীজনের জন্য মমত্ববোধ। হয়তো তিনি তাঁর অতীতকে ভোলেননি। তাঁর জীবনের দুঃখ-যাতনা এবং পরিশ্রম তাঁকে দরিদ্র ও অসহায়দের প্রতি দুর্বল করেছে। কবি নজরুলের ভাষায়, ‘হে দারিদ্র্য, তুমি মোরে করেছ মহান।’ হয়তো দারিদ্র্যের দুঃখবোধ থেকেই মুন্সি আজিমউদ্দিনও মহৎ কিছু করার প্রেরণা লাভ করেছিলেন।

তৎকালে মুসলিম সমাজের অনগ্রসরতা, ব্যাবসা-বাণিজ্য ও চাকরিসহ সামাজিক মর্যাদায় পিছিয়ে থাকার দুঃখবোধ তাঁকে পীড়া দিত। তিনি ভাবতেন কী করে এই সব অবহেলিত, অশিক্ষিত, অগণিত মানুষের কল্যাণ সাধন সম্ভব। তিনি সেই সময় অকাতরে দান করতেন। জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে তিনি গরিব-অসহায় ও দুস্থদের সাহায্য করতেন। শিক্ষাবঞ্চিত শিশুদের জন্য অর্থের জোগান দিতেন। পীড়িত অথবা অভাবগ্রস্তদের তিনি সহায়তা করতেন। কিন্তু সামগ্রিকভাবে সমাজের সার্বিক উন্নয়ন সাধনই ছিল তাঁর মূল লক্ষ্য। এ ভাবনাই তাঁর মাথায় ঘুরপাক খাচ্ছিল।

পূর্বেই উল্লেখ করেছি, ওই সময়টা ছিল মুসলিম সমাজের প্রায়-অন্ধকার যুগ। আবার সেই যুগেই মুসলিম জাগরণের সূচনা। পশ্চাৎপদতার খোলস ভেদ করে আত্মপরিচয় আর জাতীয় চেতনার জাগৃতির কালটিতেই মুন্সি আজিমউদ্দিনরা বাস করছিলেন। ইংরেজরা মুসলমানদের হাত থেকে রাজদণ্ড কেড়ে নিয়ে মুসলমানদের সর্বতোভাবে পশ্চাতে ফেলার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিল। এ থেকে উত্তরণের ভাবনায় তখনকার মুসলিম সচেতন নেতৃবৃন্দ মুসলমানদের আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত করার তাগিদ অনুভব করছিলেন।

মুন্সি আজিমউদ্দিন সেই সচেতন ব্যক্তিদের একজন। আইন পেশায় তিনি তখন প্রতিষ্ঠিত। আয়ও করছেন প্রচুর। কিন্তু অর্থ তাঁকে মোহগ্রস্ত ও আত্মকেন্দ্রিক করতে পারেনি। তিনি ভোলেননি ছেলেবেলায় তাঁর প্রতি পদে পড়ার প্রতিবন্ধকতার কথা। তাই তিনি মনস্থির করলেন গড়ে তুলবেন একটি বিদ্যাপীঠ। শিক্ষার আলোয় আলোকিত করবেন চারপাশ। যে কথা সেই কাজ।

১৯১৬ সালের ২৮ জানুয়ারি প্রতিষ্ঠা করলেন সেই বিদ্যালয়। প্রথমে তাঁর বাড়ির আঙিনায় তৈরি করে দিলেন বিরাট দোচালা ভবন। আরো দিলেন নগদ বিশ হাজার টাকা। শুধু তাই নয়, সংগ্রহ করলেন অন্ধকারে পড়ে থাকা শিক্ষাবঞ্চিত শিক্ষার্থীদের। সবাই মিলে নবপ্রতিষ্ঠিত বিদ্যালয়ের নাম দিলেন ‘আজিমউদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়’।

প্রথম বছর ছাত্র ভর্তি করা হলো তৃতীয় শ্রেণি থেকে অষ্টম শ্রেণির। পরের বছর নবম শ্রেণির এবং এর পরের বছর দশম শ্রেণির। এ সময় তিনি বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করে ও অর্থদান করেই বসে রইলেন না, গ্রামে গ্রামে ঘুরে ঘুরে তিনি ছাত্র সংগ্রহ করলেন। অন্ধকারে পড়ে থাকা অবহেলিত আলোবঞ্চিত শিশু-কিশোরদের লেখাপড়ায় উজ্জীবিত করে চললেন। অসচেতন অভিভাবকদের শিক্ষার উপকারিতা ও গুরুত্ব বুঝিয়ে তাদের সন্তানদের বিদ্যালয়মুখী করার উদ্যোগ নিলেন। প্রয়োজনে অর্থাভাবগ্রস্ত বহু ছাত্রের পড়ার খরচ নিজের কাঁধে তুলে নিলেন। ফলে কয়েক বছরেই বিদ্যালয়টি জমে উঠল এবং দ্রুতগতিতে বেড়ে গেল এর ছাত্রসংখ্যা। এ সময় বিদ্যালয়টি স্থানান্তর করা হলো বর্তমান জায়গায়।

মুন্সি আজিমউদ্দিন শুধু বিদ্যোৎসাহী ছিলেন না, তিনি একজন জনদরদী ও দানবীরও ছিলেন। তাঁর জীবনে আর্থিক সচ্ছলতা যখন এল তিনি তাঁর অতীত ভোলেননি। তাই তিনি দরিদ্রদের নানাভাবে সাহায্য করতেন। অভাবগ্রস্তদের অভাব পূরণে এগিয়ে যেতেন। টাকার অভাবে পড়ালেখা বন্ধ হয়েছে, এমন শিশুর জন্য সাহায্যের হাত প্রসারিত করতে তিনি এক দণ্ডও দ্বিধান্বিত হতেন না। দারিদ্র্যপীড়িত প্রতিভা যাতে লোকচক্ষুর অন্তরালে ঝরে না যায় সেদিকে তাঁর তীক্ষ্ম দৃষ্টি ছিল। সব ধর্মের, সব জাতের অভাবগ্রস্ত শিক্ষার্থীদের তিনি অকৃপণ হস্তে সাহায্য করেছেন।

আঁধারের গহ্বর থেকে আলোর পথযাত্রীদের তিনি শুধু পথই দেখাননি, পৌঁছে দিয়েছেন গন্তব্যে। তাঁর অর্থানুকূল্যে অগণিত ছাত্র শিক্ষিত হয়েছে, জ্ঞান অর্জন করে জীবনে প্রতিষ্ঠা লাভ করেছে। অথচ এমন একদিন তাঁর ছিল যখন তিনি অর্থাভাবে উচ্চতর শিক্ষা নিতে পারেননি। তিনি যতটুকু জ্ঞান অর্জন করেছেন তার জন্যও তাঁকে কঠোর পরিশ্রম করতে হয়েছিল। প্রাইভেট পড়িয়ে ও স্কুলে শিক্ষকতা করে উপার্জনের অর্থ দিয়ে আইনের শিক্ষা গ্রহণ করেছেন। প্রাথমিক শিক্ষার সময় বহু বাধা, পরিবেশের প্রতিকূলতা ও মানুষের গঞ্জনা তাঁকে সহ্য করতে হয়েছে।

যে বয়সে পরের বাড়িতে কাজ করে জীবিকা অর্জন করবে, সে বয়সে সে কিনা বিদ্যালয়ে যাবে- প্রতিবেশীদের এ ধরনের বাক্যবাণও তাঁকে শিক্ষার্জনের পথ থেকে বিচ্যুত করতে পারেনি। তাই আমরা দেখি, বালক আজিমউদ্দিন শত প্রতিবন্ধকতা অতিক্রম করে বিদ্যালয়ে যায়, শিক্ষকতা করার সময় স্কুলে যাবার পথে আইনের বই পড়ে। আবার অর্থাভাব মেটাতে প্রাইভেট টিউশনি করে।

সাধনাই মানুষকে সাফল্যের স্বর্ণচূড়ায় পৌঁছে দেয়। দৃঢ়প্রতিজ্ঞ মুন্সি আজিমউদ্দিন আহমদ এর উৎকৃষ্ট উদাহরণ। জগৎসংসারে শিল্পী অংকন করেন ‘মোনালিসা’র মতো ছবি, বিজ্ঞানী করেন নব নব আবিষ্কার, প্রেমিকের হাতে গড়ে উঠে ‘তাজমহল’ আর দিব্যদৃষ্টিসম্পন্ন বিদ্যোৎসাহীদের হাতে তৈরি হয় অসংখ্য ‘বিদ্যাপীঠ’। সেই বিদ্যাপীঠ থেকেই জন্ম হয় শত শত বিজ্ঞানী, শিল্পী-কবি এবং দেশ গড়ার কারিগর।

আজিমউদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ফল হলো ব্যাপক ও সুদূরপ্রসারী। দলে দলে এ অঞ্চলের শিক্ষাবঞ্চিত ছাত্ররা এ বিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার সুযোগ পেল। বাবু হিরণ চন্দ্র গোস্বামী কিছুদিন এ বিদ্যালয়ের পরিচালনার দায়িত্ব পালন করেন। পরে বাবু বসন্ত কুমার চক্রবর্তী প্রধান শিক্ষক হিসেবে শক্ত হাতে এর হাল ধরেন। ফলও পাওয়া গেল। ১৯২২ সালে এ বিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্র রেবতী মোহন বর্মণ কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে এন্ট্রান্স পরীক্ষায় প্রথম স্থান অধিকার করে রেকর্ড সৃষ্টি  করেন। এরপর আরো অনেকেই রাখেন কৃতিত্বের স্বাক্ষর।

বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার সময়টির কথায় ফিরে যাই। যে কালে আজিমউদ্দিন উচ্চবিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয় তখনকার কালটিতে সমাজ ছিল অনগ্রসর। বিশেষ করে মুসলমানরা ছিল শিক্ষা-সংস্কৃতিবঞ্চিত এবং কুসংস্কারাচ্ছন্ন সমাজ হিসেবে পরিচিত। কারণ, তৎকালীন ব্রিটিশ-ভারতীয় সমাজ-রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থা ও পরিবেশ থেকে মুসলমানরা ছিলেন একেবারে বিচ্ছিন্ন। অথবা সংকীর্ণ চিন্তা, পরিবেশ বা কূটকৌশলের কারণে তারা ছিলেন শিক্ষা-সংস্কৃতি, আধুনিকতা ও উন্নয়নের সম্পূর্ণ বাইরে। এসব কারণে তাদেরকে চাকরিতে দেখা যেত না, শিক্ষাঙ্গনে তারা ছিলেন অনুপস্থিত, বড় কোনো ব্যবসায়েও তাদের কোনো স্থান ছিল না। এমনকি সামাজিকভাবেও মুসলমানরা ছিলেন কোণঠাসা।

এমনি অবস্থায় মুসলমানদের শিক্ষামুখী করা এবং এর প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করার দিব্যজ্ঞান মুন্সি আজিমউদ্দিন আহমদকে বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায় অনুপ্রাণিত করেছিল। তাঁর এ প্রয়াস যে কতটা গুরুত্ববহ, দূরদৃষ্টিসম্পন্ন ও অসাধারণ বিচক্ষণতার উদাহরণ, পরবর্তীকালে এ অঞ্চলে শিক্ষার প্রসার, অনেক মেধাসম্পন্ন ছাত্রের সৃষ্টি ও অজস্র শিক্ষার্থীর আবির্ভাবই তার জ্বলন্ত প্রমাণ।

এই কৃতী ব্যক্তিত্ব ১৯৪২ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি ইন্তেকাল করেন। কিন্তু তিনি কিশোরগঞ্জের মানুষের হৃদয়ে চিরকাল বেঁচে রইবেন, এতে কোনো সন্দেহ নেই।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর