কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম সাংস্কৃতিক চত্বর প্রতিষ্ঠার দাবি


 জাহাঙ্গীর আলম জাহান | ১ নভেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, ১:১৩ | মত-দ্বিমত 


নরসুন্দা নদী অনেকটাই দখলমুক্ত হয়েছে। গৌরাঙ্গবাজার ব্রিজের পাশে একদিকে ৪তলা ব্র্যাক ব্যাংক ভবন অন্যদিকে তরুণ লাইব্রেরিসহ অন্যান্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের জায়গা অবমুক্ত হয়েছে। সড়কের পশ্চিম পাশে নরসুন্দার কুলঘেঁষা সুপরিসর জায়গা উদ্ধার হয়।

ভেবেছিলাম কিশোরগঞ্জ শহরে মুক্তিযুদ্ধের কোনো স্মৃতিসৌধ নেই, নেই কেন্দ্রীয় শহিদ মিনার। উদ্ধার হওয়া এই জায়গাটিতে একটি মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিসৌধ, একটি শহিদ মিনার, একটি মুক্তমঞ্চ ইত্যাদি নির্মাণ করে স্থানটিকে সাংস্কৃতিক চত্বর ঘোষণা করা হবে।

কিন্তু হা হতোষ্মি! কিছুদিন যেতে না যেতেই দেখতে পেলাম এখানে একটি শিশুপার্ক নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে। ভাবলাম, তবু তো ভালো কিছু হচ্ছে। কিন্তু আজ প্রায় চার বছর হতে চললো, শিশু পার্কের কিছু কাজ সমাধা করে সেই জায়গাতেই থমকে আছে। কোনো অগ্রগতি নেই। পার্কের জন্য যে সকল স্থাপনা এখানে বসানো হয়েছে, তা-ও তদারকির অভাবে নষ্ট হওয়ার পথে।

এদিকে ভ্রাম্যমাণ ব্যবসায়ীরা ধীরে ধীরে উদ্ধার করা এই জায়গায় নিজেদেরকে পাকাপোক্ত করে নিচ্ছে। কথা এই যে, শিশুপার্ক কারা করছে শহরবাসী কিছুই জানে না। যেহেতু শিশুপার্কের কাজও বন্ধ এবং সমাপ্ত হওয়ার লক্ষণও দেখা যাচ্ছে না, তাহলে এই জায়গাটি অপ্রয়োজনে ফেলে রেখে কাজ কী?

আসুন এখানে মুক্তিযুদ্ধের একটি স্মৃতিসৌধ, একটি কেন্দ্রীয় শহিদ মিনার, একটি মুক্তমঞ্চ ইত্যাদি নির্মাণের মাধ্যমে স্থানটিকে বীর মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম সাংস্কৃতিক চত্বর ঘোষণার আন্দোলন শুরু করি।

# জাহাঙ্গীর আলম জাহান, ছড়াকার, প্রাবন্ধিক, ইতিহাস-মুক্তিযুদ্ধ ও লোকসংস্কৃতির গবেষক।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর