কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ওয়ালীনেওয়াজ খান কলেজের প্রতিষ্ঠাতা ওয়ালীনেওয়াজ খান


 মু আ লতিফ, সাংবাদিক ও আঞ্চলিক ইতিহাস-ঐতিহ্য সন্ধানী লেখক | ১ নভেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, ৬:৩৩ | ব্যক্তিত্ব 


ঢাকা বিভাগের একটি অন্যতম জেলা কিশোরগঞ্জ। হাওর-বাঁওরে ঘেরা বৈচিত্র্যময় ভূ-প্রকৃতির এক অনন্য জনপদ কিশোরগঞ্জ। চন্দ্রাবতী, মহুয়া-মলুয়ার দেশ এই কিশোরগঞ্জ।এই জেলার ভৌগোলিক আয়তন প্রায় ২,৬৮৯ বর্গ কিলোমিটার। জেলার ১৩টি উপজেলার পরতে পরতে ছড়িয়ে রয়েছে ইতিহাস আর ঐতিহ্যের নিদর্শন। শিল্প-সাহিত্য আর লোকসংস্কৃতির এক সমৃদ্ধ ও উর্বর জনপদের নাম কিশোরগঞ্জ।

কিশোরগঞ্জ অসংখ্য কীর্তিমান মানুষের জন্মস্থান। মুক্তিযুদ্ধকালীন সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রয়াত রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান, বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রয়াত মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, র্যাংলার আনন্দমোহন বসু, পণ্ডিত শ্রীনীরদচন্দ্র চৌধুরী, মহারাজ ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী, উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী, বিপ্লবী রেবতী মোহন বর্মন, শিক্ষানুরাগী মুন্সি আজিমউদ্দিন আহমদ, শহীদ ডা. আবদুল আলীম চৌধুরী, শাহনামা অনুবাদক কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ এর মতো অনেক বিখ্যাত লোকের জন্মস্থান কিশোরগঞ্জ।

আমরা ধারাবাহিকভাবে পরিচিত হবো এমনই কিছু বিখ্যাত ব্যক্তিদের সাথে। আজ পঞ্চম পর্বে আমরা তুলে ধরছি কিশোরগঞ্জ শহরের অন্যতম উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ওয়ালীনেওয়াজ খান কলেজের প্রতিষ্ঠাতা ওয়ালীনেওয়াজ খান এঁর সংক্ষিপ্ত জীবনালেখ্য। লিখেছেন সাংবাদিক ও আঞ্চলিক ইতিহাস-ঐতিহ্য সন্ধানী লেখক মু আ লতিফ

মানুষের মুক্তি, ধর্মনিরপেক্ষ ভাবাদর্শ, অসাম্প্রদায়িক রাজনীতি ও শোষণমুক্ত রাষ্ট্রব্যবস্থার স্বপ্ন ও সংগ্রাম ওয়ালীনেওয়াজ খানের জীবনের অন্যতম প্রধান দিক। ওই দিকটির সঙ্গে এসে যুক্ত হয়েছে মানব ও শিক্ষার কল্যাণে আত্মনিবেদনের ব্রত। উত্তাল বিংশ শতাব্দীর রাজনৈতিক ইতিহাসে কিশোরগঞ্জের প্রেক্ষাপটে তিনি একজন স্বতন্ত্র ও উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিত্ব। সংগ্রামী গণরাজনীতি দিয়ে তাঁর জীবনের সূচনা আর সমাজকল্যাণের ক্ষেত্রে আদর্শ স্থাপনকারী অবদানের মাধ্যমে তার সমাপ্তি। কিন্তু তাঁর নশ্বর জীবনের ইতি হলেও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও কর্মের স্মৃতিতে তাঁর ইতিহাসের সমাপ্তি হয়নি; এখনো অক্ষয় রয়েছেন তিনি।

রাজনৈতিক সংগ্রামে যাঁরা আত্মত্যাগ ও জীবনবাজি রেখে অবিরাম সংগ্রাম করেছেন তাঁদেরই একজন ছিলেন ওয়ালীনেওয়াজ খান। কৃষক, মজদুর ও নির্যাতিত সাধারণ মানুষের অধিকার আদায়ের আন্দোলনে আপসহীন এই সাহসী মানুষটি জীবনসায়াহ্নে এসে সর্বস্ব দান করে উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। শিক্ষা বিস্তারের জন্য এক অনন্য প্রতিষ্ঠানের জন্ম দিয়ে জনসাধারণের প্রতি তাঁর ভালোবাসার নিদর্শন রেখে গেছেন।

ওয়ালীনেওয়াজ খান মানুষের অধিকারে বিশ্বাসী ছিলেন। তাঁর দৃঢ় বিশ্বাস ছিল শোষণমুক্ত সমাজেই কেবল মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠিত হতে পারে। ফলে তিনি শোষণ-বঞ্চনা আর অনাচারের বিরুদ্ধে সবসময় সোচ্চার ছিলেন। ছাত্রজীবনেই তিনি বিপ্লবী হয়ে উঠেছিলেন। ব্রিটিশ খেদাও আন্দোলনে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেছেন। এজন্য তাঁকে বহু ত্যাগ স্বীকার করতে হয়েছে। হুলিয়া মাথায় নিয়ে পালিয়ে এবং কারাবন্দিত্ব সহ্য করেও তিনি মানুষের কথাই বলে গেছেন। যতদূর জানা গেছে, তিনি প্রথম গ্রেফতার হন ১৯২৮ সালে এবং জীবনে সর্বমোট প্রায় ২৪ বছর কারাভোগ করেন।

বাল্যকালেই তিনি বিপ্লবী মন্ত্রে দীক্ষা নিয়েছিলেন। ময়মনসিংহ শহরে ওই সময় একটি ঘটনা থেকেই তাঁর বিপ্লবী চেতনার বহিঃপ্রকাশ লক্ষ করা যায়। ছাত্ররা বিভিন্ন দাবিতে আন্দোলন করছিল। আন্দোলনের অংশ হিসেবে একদিন ছাত্ররা স্কুলের ফটকে শুয়ে প্রতিবাদ জানাচ্ছিল। ওই সময়ের ময়মনসিংহ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মি. গ্রাহাম ফটকে শুয়ে থাকা ছাত্রদের মাড়িয়ে স্কুলে প্রবেশ করছিলেন। এ অবস্থায় বালক ওয়ালীনেওয়াজের রক্তে স্ফুলিঙ্গ বয়ে যায়। ম্যাজিস্ট্রেটের অমানবিক আচরণ তিনি সহ্য করতে পারেননি। আচমকা উঠেই তিনি মি. গ্রাহামের গায়ে ঘুষি মারেন এবং কেউ কিছু বুঝে ওঠার আগেই দৌড়ে পালিয়ে যান। পুলিশ তাকে ধরতে পারেনি। তিনি চলে আসেন কিশোরগঞ্জ।

এ দেশের মানুষের প্রতি ব্রিটিশের ঘৃণ্য আচরণ বাল্যকাল থেকেই তাঁকে বিক্ষুব্ধ করে তুলেছিল। অন্যায়, অবিচার, বৈষম্য তাঁকে পীড়া দিত ও বিক্ষুব্ধ করে তুলত। এ কারণেই তিনি তৎকালীন কমিউনিস্ট নেতা কমরেড নগেন সরকারের হাত ধরে রাজনীতিতে প্রবেশ করেন এবং ধীরে ধীরে কুলিয়ারচরের স্বদেশী-বিপ্লবী এবং পরবর্তী সময়ে ভারতখ্যাত সংগ্রামী নেতা মহারাজ ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তীর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে অনুশীলন সমিতির সাথে জড়িয়ে পড়েন এবং মুক্তির  জন্য বিপ্লবী পথকেই বেছে নেন।

ওয়ালীনেওয়াজ খান বিদেশি শাসক ও তাদের ঔপনিবেশিক শোষণের তীব্র বিরোধী ছিলেন। এ কারণে তিনি বৈপ্লবিক-বামপন্থী রাজনীতির সংস্পর্শে এসেছিলেন এবং শোষণবিরোধী একজন বিপ্লবী নেতা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। স্বদেশী আন্দোলন, ’৪২-এর আগস্ট আন্দোলন, ’৪৬ সালের দাঙ্গা প্রতিরোধ, তেভাগা আন্দোলন, টংক আন্দোলন, ১৯৪৮ সালে ‘এ আজাদি ঝুটা হ্যায়, লাখো মানুষ ভুখা হ্যায়’ ইত্যাদি আন্দোলনে কিশোরগঞ্জের পুরোধা ছিলেন কমরেড নগেন সরকার আর ওয়ালীনেওয়াজ খান।

চরমপন্থায় মুক্তির পথ খুঁজেছেন তিনি। এজন্যে বহুবার জেল খেটেছেন এবং জীবনকে তুচ্ছজ্ঞান করে বৃহত্তর ময়মনসিংহ এবং এপার বাংলা ও ওপার বাংলার বিপ্লবীদের সাথে সখ্য গড়ে তুলেছিলেন। পশ্চিম বাংলার বাম রাজনীতিবিদ প্রয়াত মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসু, মহারাজ ত্রৈলোক্যনাথ, কমরেড মণি সিংহ, খোকা রায়, নগেন সরকার, জমিয়ত আলীসহ অন্যান্যের প্রগতিশীল রাজনীতির তিনিও সহযোগী হয়েছিলেন।

সাম্রাজ্যবাদী শক্তির বিরুদ্ধে তাঁর আপসহীন সংগ্রাম সেই সময় ব্রিটিশের রক্তচক্ষু ও  মৃত্যুভয় কোনো কিছুই তাঁকে দমাতে পারেনি। ব্রিটিশসৃষ্ট ’৪৩-এর দুর্ভিক্ষের সময় তিনি ভুখা মানুষের পাশে ছিলেন। ১৯৪৬ সালে হিন্দু-মুসলিম দাঙ্গার সময় মাথায় পাগড়ি বেঁধে খোলা তলোয়ার নিয়ে ঘোড়ায় চড়ে কিশোরগঞ্জ শহরের এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্ত চষে বেড়িয়েছেন। তিনি কোনো দাঙ্গা হতে দেননি। তাঁর এই দুঃসাহসিক ভূমিকার কথা বয়স্করা আজও শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন।

১৯৪৭ সালে সিলেট ভারতের অংশ হবে না পকিস্তানের অংশ হবে এ নিয়ে ভোটাভুটির সময় কমরেড নগেন সরকার ও ওয়ালীনেওয়াজ খানের নেতৃত্বে কয়েক হাজার কর্মী সিলেটে গিয়ে পাকিস্তানের পক্ষে কাজ করেছিলেন। পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর তাঁকে সক্রিয় রাজনীতিতে আর দেখা যায়নি। তবু তাঁকে দু বার কারাগারে যেতে হয়েছিল। তবে পাকিস্তান আমলে সক্রিয় রাজনীতি না করলেও তিনি নানাভাবে মানুষের সাথে সম্পৃক্ত থেকেছেন।

মানবিক গুণাবলি, ন্যায়নিষ্ঠা ও অসাম্প্রদায়িক ব্যক্তিত্বের বহিঃপ্রকাশ ঘটেছিল তাঁর চরিত্রে। শৈশবে বা কৈশোরে মানুষের প্রতি ভালোবাসার যে তাগিদ অনুভব করেছিলেন, সক্রিয় রাজনীতিতে অনুপস্থিত থেকেও বাকি জীবনে তিনি ন্যায়ের পক্ষাবলম্বন ও দুঃখীর পাশে দাঁড়ানোর নীতি অবলম্বন করেছিলেন। এ কারণে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষের কাছেও তিনি খুবই আপনজন ও বিশ্বস্ত ব্যক্তিত্ব হিসেবে পরিগণিত হয়েছিলেন। শহরের বড়বাজার এলাকার হিন্দু ব্যবসায়ীগণ তাকে যেমন মানতেন, তিনিও তাদের আপদকালীন যে কোনো পরিস্থিতির মোকাবিলায় সাহসের সাথে এগিয়ে যেতেন। কেউ কেউ বলেন, শহরের বত্রিশ, বড়বাজার, তারাপাশা, শোলাকিয়া ও বয়লা এলাকার হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রধানরা তাঁর সাথে পরামর্শ করেই অনেক সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করতেন।

বর্তমানে আমরা এক অবক্ষয়কাল অতিক্রম করছি। ন্যায় ও অন্যায়ের বাছ-বিচার নেই বললে ভুল হবে না। ন্যায় প্রতিষ্ঠা অনেকটাই কঠিন হয়ে উঠেছে। সবলের পক্ষে কথা বলার লোকের কোনো অভাব হয় না। কিন্তু দুর্বল ও অসহায়ের পক্ষে কথা বলার যেন কেউ নেই। অর্থ দিয়ে প্রভাবিত করা যায় যে কোনো সালিশ-দরবার। সমাজে এমন দরবারি বর্তমানে অগণিত। কিন্তু ওয়ালীনেওয়াজ খান ছিলেন এর ব্যতিক্রম। একজন উত্তম বিচারক হিসেবে তিনি ছিলেন সকলের কাছে সমাদৃত। যে কোনো সালিশ দরবারে ধনী-দরিদ্র, প্রভাবশালী অথবা অসহায় তাঁর ন্যায়বিচার থেকে কখনো বঞ্চিত হতেন না। তিনি যে সালিশে উপস্থিত থাকতেন, সেই সালিশে অন্যান্য দরবারিরাও অন্যকিছু ভাবতেন না। ফলে শতভাগ সুষ্ঠু বিচার নিশ্চিত হতো।

রাজনৈতিক জীবনে ওয়ালীনেওয়াজ খান ব্রিটিশের শোষণ, অনাচারের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করেছেন। সেই সময়কার দেশীয় সামন্ত জমিদার ও অত্যাচারী ধনিক-বণিকের বিরুদ্ধেও তিনি অসম সাহসিকতার সাথে প্রতিবাদ জানিয়েছেন। সাধারণ কৃষকের উপর সামন্ত জমিদারদের অত্যাচার, জমি বন্ধকির নামে জুলুম এবং জমি কেড়ে নেওয়ার বিরুদ্ধে সংগ্রামে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেছেন। ওই সময়টা ছিল সামন্ত জমিদারদের একচ্ছত্র আধিপত্য। তাদের দাপটে প্রজাকূল সবসময় তটস্থ থাকত। সাধারণ মানুষের উপর জুলুম-নির্যাতন ছিল নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনা।

জমিদারদের বিরুদ্ধে সাহস করে কেউ প্রতিবাদ করত না। একদিকে ব্রিটিশের শোষণ, অন্যদিকে জমিদার ও মহাজনদের অত্যাচারে জর্জরিত ছিল কৃষক ও সাধারণ মানুষ। ওই সময়টাতেই ওয়ালীনেওয়াজ খানের মতো সাহসী বিপ্লবীরা সাধারণের ত্রাণকর্তারূপে এগিয়ে আসেন। জানা যায়, ১৯৩০ সালে কিশোরগঞ্জ মহকুমায় ইয়ং কমরেডস সংগঠনের মাধ্যমে নগেন সরকার, ওয়ালীনেওয়াজ খান, সুধাংশু অধিকারী, মনীন্দ্র চক্রবর্তী প্রমুখ জমিদার, তালুকদার ও মহাজনদের জুলুমের বিরুদ্ধে তীব্র কৃষক আন্দোলন গড়ে তোলেন। এ আন্দোলন দেশব্যাপী আলোড়ন সৃষ্টি করে।

এ প্রসঙ্গে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের তথ্য ও সংস্কৃতি বিভাগের প্রকাশিত ‘মুক্তির সংগ্রামে ভারত’ গ্রন্থের একটি উদ্ধৃতি নিম্নে তুলে ধরছি: ‘আন্দোলনের সূত্রপাত হয় কিশোরগঞ্জের ১০ মাইল দূরে এক গ্রামে এক অত্যাচারী মুসলমান মহাজনের বাড়ির উপর হিন্দু-মুসলমান কৃষকের মিলিত অভিযান দিয়ে। তারা তাঁর কাছারি বাড়ি তছনছ করে, জ্বালিয়ে দেয় সব বন্ধকি দলিল। কিশোরগঞ্জ মহকুমার জাঙ্গালিয়া, হোসেনপুর, মঠখোলা, গোবিন্দপুর প্রভৃতি গ্রামে দেখতে দেখতে আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ে। এর মধ্যে সব থেকে উল্লেখযোগ্য জাঙ্গালিয়া গ্রামের প্রবল অত্যাচারী মহাজন কৃষ্ণ রায় সংক্রান্ত ঘটনাটি। সেখানে কৃষ্ণ রায়ের বাড়ির সামনে হিন্দু-মুসলমান কৃষকেরা দাবি করে সমস্ত ঋণপত্র ও বন্ধকি দলিল তাদের হাতে তুলে দিতে হবে। জবাবে কৃষ্ণ রায় ও তার কর্মচারীরা জনতার উপরে নির্বিচারে গুলি চালায়। তাতে আটজন কৃষক নিহত ও বহু কৃষক আহত হন। এরপর জনতা ক্ষেপে গিয়ে দরজা ভেঙ্গে বাড়িতে ঢুকে জিনিসপত্র তছনছ ও কৃষ্ণ রায়কে হত্যা করে এবং সমস্ত ঋণপত্র জ্বালিয়ে দেয়।’

পাকিস্তান সৃষ্টির পর ওয়ালীনেওয়াজ খানকে সক্রিয় রাজনীতিতে আর দেখা যায়নি। তিনি ব্যবসা-বাণিজ্যতেই অবশিষ্ট সময় অতিবাহিত করেন। তবে তিনি স্থানীয় নির্বাচন ও অন্যান্য কয়েকটি নির্বাচনে নিজের পছন্দের ব্যক্তির পক্ষে বিশেষ করে তাঁর ভ্রাতুষ্পুত্র আবদুল আউয়াল খানের জন্য কাজ করেছেন বলে জানা যায়। অনেকের মতে, আবদুল আউয়াল খান ওয়ালীনেওয়াজ খানের কারণেই পাকিস্তান আমলে এমপি এবং পরবর্তীকালে কিশোরগঞ্জ পৌরসভার চেয়ারম্যান ও সদর উপজেলা পরিষদেরও চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন।

তাঁর ব্যবসায়িক জীবনের ন্যয়নিষ্ঠা নিয়েও নানা কথা শোনা যায়। শহরের বড়বাজারে একসময় তিনি পাটের ব্যবসা করতেন। কৃষকদের কাছ থেকে পাট কিনে বিভিন্ন কোম্পানিতে পাট চালান দিতেন। ক্ষুদ্র কৃষকদের কাছ থেকে পাট কেনার সময় ওজনে কম দেখিয়ে কম মূল্য প্রদান করা তাঁর গদিতে নিষেধ ছিল। ওজন করার কয়ালদের প্রতি এভাবেই তাঁর নির্দেশনা দেয়া ছিল। ফলে পাটচাষিরা তাঁর গদিতে পাট বিক্রি করে ঠকতে অথবা হয়রানির শিকার হতেন না। আজকের দিনে এমনটা কল্পনাও করা যায় না।

ওয়ালীনেওয়াজ খানের একটি কাপড়ের  দোকান ছিল। এর নাম ছিল জুবিলি বস্ত্রালয়। যতদূর জানা গেছে, এর সাথে শৈলেন্দ্র শেখর সরকারও (কালু বাবু) জড়িত ছিলেন। কালু বাবুর সাথে খান সাহেবের হৃদ্যতা ও সখ্য ছিল বলেও জানা যায়। একসময় কালু বাবু কিশোরগঞ্জ পৌরসভার কমিশনার ছিলেন। তিনি একজন সমাজ হিতৈষী ব্যক্তি হিসেবে সকলের নিকট পরিচিত ছিলেন। ওয়ালীনেওয়াজ খানের প্রায় প্রতিটি কাজের পরামর্শদাতা ও সহযোগী ছিলেন কালু বাবু। খান সাহেবের সাথে দেখাসাক্ষাৎ ও পরামর্শ নিতে অনেকেই ওই বস্ত্রালয়ে যেতেন। শহরের বর্তমান নূর মসজিদের পশ্চিম পাশেই ঢালুতে কালু বাবুর বাসভবন ছিল। আখড়াবাজারের কিশোরগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠার সাথেও কালু বাবু জড়িত ছিলেন। ওয়ালীনেওয়াজ খানের সাথে সখ্য ছিল ন্যাপ নেতা জমিয়ত আলী, কিরাটনের খুর্শিদ উদ্দিন, তাড়াইলের কমিউনিস্ট নেতা আবদুর রাজ্জাক ভূঁইয়া, গঙ্গেশ সরকার, যশোদলের চেয়ারম্যান আবু হানিফ ও সিরাজুল ইসলামসহ মুক্তচিন্তার অনেকের।

কিশোরগঞ্জ শহরে একটি কলেজ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে শিক্ষার প্রতি তাঁর অনুরাগের বিষয়টি স্পষ্ট হলেও এর আগেই তিনি তাঁর পিতা-মাতার নামে শহরের তারাপাশা এলাকায় আরজত-আতরজান হাইস্কুল প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। পরে তিনি ওয়ালীনেওয়াজ খান কলেজ প্রতিষ্ঠা করে উচ্চশিক্ষা প্রসারে সময়োপযোগী ও যুগান্তকারী উদ্যোগ গ্রহণ করেন।

এ প্রসঙ্গে কিশোরগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ জালাল আহমদ বলেন,  এমন একটি সময়ে খান সাহেব কলেজ প্রতিষ্ঠা করেন যখন গুরুদয়াল কলেজের পক্ষে এখানকার শিক্ষার্থীদের উচ্চশিক্ষার চাপ বহন করা একেবারেই অসম্ভব হয়ে উঠেছিল। ছাত্রছাত্রীরা ভর্তি সমস্যায় ভুগছিল। সেই মুহূর্তে ওয়ালীনেওয়াজ খান কাণ্ডারি হিসেবে আবির্ভূত হন এবং নিজ অর্থে ওয়ালীনেওয়াজ খান কলেজ প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৮৩ সালে ত্রাণ ও দুর্যোগ মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম-সচিব মেজর (অব.) আলী আহম্মদ খান কলেজের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন এবং পরে তিনি কলেজের অবকাঠামো নির্মাণে ত্রাণ মন্ত্রণালয় থেকে বিভিন্নভাবে সাহায্য করেন।

জানা গেছে, ওয়ালীনেওয়াজ কলেজ প্রতিষ্ঠায় আরো যাঁরা নানাভাবে সাহায্য করেছেন তাঁদের মধ্যে তৎকালীন ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের উপ-পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ও কিশোরগঞ্জের সন্তান মীর নুরুদ্দীন অন্যতম। এছাড়া তৎকালীন কিশোরগঞ্জ পৌরসভার চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল খান, অধ্যক্ষ জালাল আহমদ, শৈলেন্দ্র সরকার, মানিক কাজী, ননী ঘোষ, বীরেশ্বর ঘোষ, আবু তাহের মিঞা, হাজী আবদুল করিম, আলহাজ মো. বজলুল হক, মহিউদ্দিন ভূঁইয়াসহ (এসডিওর নাজির) অনেকেই নানাভাবে সাহায্য করেছেন।

আরো জানা যায় যে, প্রাথমিকভাবে কলেজের ক্লাস পরিচালনার জন্য মহিলা কলেজের শিক্ষকমণ্ডলী দায়িত্ব পালন করেন। এ সময় মহিলা কলেজের শিক্ষক মো. আশরাফউদ্দিন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হিসেবে খণ্ডকালীন দায়িত্ব পালন করেন। ওই সময় কিশোরগঞ্জের মহকুমা প্রশাসক ছিলেন ম. আ. মোতালিব মিঞা। তিনি কলেজটি প্রতিষ্ঠার পেছনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন বলে জানা যায়। প্রাথমিক পর্যায়ে কেউ কেউ কোনো ব্যক্তিবিশেষের নামে কলেজ করার বিরোধিতা করলেও পরে অর্থের জোগান দিতে ব্যর্থ হয়ে তারাও শেষ পর্যন্ত ব্যক্তিনামে কলেজ করার পক্ষে মত দেন। এ অবস্থায় ওয়ালীনেওয়াজ খানের নামে কলেজ করার সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। প্রশাসনিক সহযোগিতা ও স্থানীয়ভাবে সর্বস্তরের মানুষের আগ্রহের ফলেই ওয়ালীনেওয়াজ খান কলেজটি খুব দ্রুত দৃঢ় ভিত্তির ওপর দাঁড়াতে সক্ষম হয়। ফলে এ অঞ্চলে উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে ভর্তিসমস্যার নিরসন হয় এবং একই সঙ্গে উচ্চশিক্ষার প্রসার ঘটে।

কিশোরগঞ্জের মুদ্রণশিল্পেও খান সাহেবের অবদান বেশ গুরুত্বপূর্ণ। ‘জুবিলি প্রেস’ নামে তাঁর একটি ছাপাখানা ছিল। এটি শহরের একরামপুরে অবস্থিত ছিল। কিশোরগঞ্জে বিভিন্ন সময় গণতান্ত্রিক আন্দোলনের সাথে এ প্রেসটির নাম বিশেষভাবে জড়িয়ে রয়েছে। রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনে এ প্রেসটি উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করেছে।

বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা যায়, ভাষা আন্দোলনকালীন ছাত্ররা গোপনে এ প্রেস থেকে লিফলেট ছাপিয়ে বিলিবণ্টন করতেন। গণতান্ত্রিক আন্দোলনের প্রচারপত্রও জুবিলি প্রেস থেকে ছাপা হতো। অনেক সময় এ জন্য কোনো অর্থ নেওয়া হতো না। ওয়ালীনেওয়াজ খান সক্রিয় রাজনীতিতে না থেকেও রাজনীতিকে তিনি পরোক্ষভাবে সাহায্য করেছেন।

সাহিত্য-সংস্কৃতির প্রতিও ছিল তাঁর গভীর অনুরাগ ও ভালোবাসা। সত্তরের দশকে আমরা বেশ কজন মিলে ‘তরুণ লেখক গোষ্ঠী’ নামে একটি সাহিত্য সংগঠন করি। এ সময় এ সংগঠনের উদ্যোগে কয়েকটি সাময়িকী প্রকাশ করা হয়। এটি আমরা জুবিলি প্রেস থেকে ছাপাই। তখন আমরা খান সাহেবের কাছ থেকে যথেষ্ট উৎসাহ পাই। বেশ ছাড় দিয়ে তিনি আমাদের সাময়িকী প্রকাশে সহায়তা করেন। সাহিত্য-সংস্কৃতির প্রতি ভালোবাসার তাগিদেই তিনি তা করেছিলেন। সাহিত্য-সংস্কৃতির সাথে জড়িত তরুণ-যুবকদের তিনি নানাভাবে উৎসাহ দিতেন। এজন্যে তিনি আমাদের খুবই স্নেহ করতেন।

একটি ঘটনার কথা আজও বেশ মনে পড়ে। সম্ভবত সেটি ১৯৬৭-৬৮ সালের কথা। ‘শতদল’ নামে আমাদের একটি সাংস্কৃতিক সংগঠন ছিল। আমরা ওই সংগঠনের উদ্যোগে একুশের সাময়িকী প্রকাশ করছিলাম। জুবিলি প্রেসে ছাপার কাজ হচ্ছিল। একুশে ফেব্রুয়ারির আগের দিনও আমরা প্রচ্ছদ তৈরি করতে না পারায় বেশ চিন্তায় পড়ে যাই। জিঙ্ক দস্তা দিয়ে মেটালিক প্রচ্ছদ তৈরি করতে হলে ঢাকা ছাড়া সম্ভব নয়। তখন সে সময়ও নেই। আবার কাঠখোদাই প্রচ্ছদ করাও একদিনে অসম্ভব।

এ অবস্থায় কী করব আমরা যখন ভেবে পাচ্ছিলাম না তখনই খান সাহেব আমাদের পরামর্শ দেন, পাঁচ আঙুলসহ ডান হাতে লাল রঙ লাগিয়ে ছাপ দিয়ে প্রচ্ছদ করতে। তাঁর কথামতো হাতের পাঁচ আঙুলের লাল রংয়ের প্রচ্ছদে একুশের ‘শতদল’ সাময়িকী সত্যিই সকলের নজর কেড়েছিল। সময়মতো ও সুন্দর পরামর্শের কারণেই সেদিন শতদলের শহীদ দিবসের সাময়িকী প্রকাশ করা সম্ভব হয়েছিল।

সাহিত্য-সংস্কৃতির প্রতি তাঁর ভালোবাসার আর একটি উদাহরণ দিলেন কিশোরগঞ্জের প্রবীণ লেখক ও ‘জীবনের বাঁকে বাঁকে’ উপন্যাসের রচয়িতা মো. মতিউর রহমান। তিনি জানান, তার স্কুলজীবনে ‘সবুজ কাফেলা’ নামে একটি সাময়িকী প্রকাশের সমুদয় ব্যয়ভার ওয়ালীনেওয়াজ খান বহন করেছিলেন। যে কোনো সৃষ্টিশীল কাজে খান সাহেবের অকৃত্রিম সহযোগিতা পাওয়া যেত। তাছাড়া মানবিক ও শিক্ষামূলক কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকতে তিনি সবসময় স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করতেন।

ওয়ালীনেওয়াজ খান বিয়ে করেন ১৯৫০ সালে কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জের এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে। স্ত্রী মিসেস আমেনা খানম। তাঁদের কোনো সন্তান ছিল না। ওয়ালীনেওয়াজ খানের রাজনৈতিক ও সামাজিক জীবনে তাঁর স্ত্রী আমেনা খানমেরও অনুপ্রেরণা ছিল। স্বামীর প্রতিটি কাজে ও কঠিন সময়ে তিনি তাঁকে সাহস জুগিয়েছেন। অসাম্প্রদায়িক, সংস্কৃতিবান, শিক্ষানুরাগী ও স্বাধীনচেতা এ মানুষটি ১৯৮৬ খ্রিস্টাব্দের ২৫ নভেম্বর না ফেরার দেশে চলে যান।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর