www.kishoreganjnews.com

মানুষের স্বাধীনতা ও সীমা লঙ্ঘনের অধিকার



[ আহমাদ ফরিদ | ১৮ আগস্ট ২০১৭, শুক্রবার, ৯:০৬ | মত-দ্বিমত ]


সৃষ্টিজগতে সেরা জীব মানুষকে আপাতদৃষ্টিতে স্বাধীন মনে হলেও সৃষ্টিতত্ত্ব মতে সে স্বাধীন নয়, পরাধীন। স্রষ্টার ইচ্ছায়  পৃথিবীতে প্রেরণের সময় তাকে অনেক শর্ত, নিয়ম কানুন, আচরণবিধি হাতে ধরিয়ে দেয়া হয়েছে। পৃথিবীতে এসে মানুষ সে অনুযায়ী নিজেকে পরিচালিত করবে- এটাই সৃষ্টিকর্তার বিধান। মানুষকে নিয়তি দিয়ে বেধে ফেলা হয়েছে। নিয়তিকে এড়িয়ে যাওয়া মানুষের পক্ষে অসম্ভব। নিয়তি ছাড়াও মানুষের জন্য রয়েছে বিস্তারিত আচরণবিধি। আচরণবিধিতে মানুষকে সীমিত স্বাধীনতা দেয়া হয়েছে। চাইলে মানুষ তার আচরণবিধি পরিবর্তন করতে পারে। অর্থাৎ মানুষ ইচ্ছা করলে ভালো কিংবা খারাপ যেকোন পথে চলতে পারে। এই সীমিত স্বাধীনতা দিয়ে সৃষ্টিকর্তা মানুষকে পরীক্ষা করছেন। সৃষ্টিকর্তার বিধান মত চলতে হলে মানুষকে সৃষ্টিকর্তা যে সীমা বেধে দিয়েছেন তার মধ্যে থাকতে হবে। বিধান মতে চললে মানুষকে এর সীমা লঙ্ঘনের কোন অধিকার দেয়া হয়নি। মানুষ সম্পুর্ণ স্বাধীন হলে সীমা লঙ্ঘনের এই নিষেধাজ্ঞা তার জন্য থাকতো না।

সৃষ্টিতত্ত্বের বাইরেও রয়েছে মানুষের সামাজিক আচরণবিধি। মানুষ সেখানেও পরাধীন। সেখানেও রয়েছে পদে পদে দায়বদ্ধতা। দায়বদ্ধতা নিয়ে স্বাধীনতা উপভোগ করা যায়না। তবে এই দায়বদ্ধতার জন্যই মানুষ সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ জীবের আসন লাভ করেছে সৃষ্টি জগতে। এ দায়বদ্ধতা, এই পরাধীনতা কিন্তু মানুষের জন্য গর্বের। আত্মমর্যাদাবোধের কারণে মানুষ নিজেই তার মনুষ্যত্বের কাছে দায়বদ্ধ। এই দায়বদ্ধতাই মানুষকে মানুষ হিসাবে বেঁচে থাকার অনুপ্রেরণা যোগায়। সৃষ্টির খেলায় পাশ করায়।

একটা নির্দিষ্ট সীমার ভিতর মানুষের জীবনযাপন, বিচরণ। এই সীমার বাইরে তার যাওয়া বারণ। তার যত কল্যাণ যত মঙ্গল সব এই সীমার ভিতরেই। সীমার বাইরে তার জন্য রয়েছে অকল্যাণ আর সর্বনাশ। কাজেই নিজের মঙ্গল চাইলে কেউ তার সীমা লঙ্ঘন করবে না। সৃষ্টিকর্তা তার সৃষ্টি মানুষের মঙ্গল চান বলেই তিনি সীমা লঙ্ঘনের অধিকার মানুষকে দেননি।

পশুদের সাথে রয়েছে মানুষের একটা সীমানা প্রাচীর। মানুষ যদি সেই প্রাচীর টপকাতে চায় তাও সীমা লঙ্ঘন। এখানেও মানুষের জন্য রয়েছে নিষেধাজ্ঞা। মানুষের মত মানুষ থাকতে চাইলে সেই সীমাও লঙ্ঘন করা যাবে না। আচরণগত দিক দিয়ে পশুদের জগতে মানুষের প্রবেশ নিষেধ। তারপরও কেউ সেখানে প্রবেশ করলে সেটাও হবে সুষ্পষ্ট সীমা লঙ্ঘন। এই সীমা মানুষদের মধ্যে যে বা যারা লঙ্ঘন করবে তারাও পশু সমতুল্য হয়ে যাবে। কারণ তারা সীমা লঙ্ঘনকারী।

মানুষকে যেহেতু সীমা লঙ্ঘনের অধিকার দেয়া হয়নি, কাজেই মানুষ  স্বাধীন নয়। তার শ্রেষ্ঠত্বের মর্যাদা ধরে রাখার সংগ্রাম, স্বাধীনতার চাইতেও মানুষের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। যা খুশি তা করা মানুষের কাজ নয়, পশুদের কাজ। সেই অর্থেই বলছিলাম মানুষ স্বাধীন হতে পারে না। পদে পদে সে তার নিয়তি আর মানবিক ও সামাজিক আচরণবিধির কাছে দায়বদ্ধ। একটা নির্দিষ্ট সীমার ভিতর তাকে জীবন যাপন করতে হয়। সেই সীমা লঙ্ঘনের কোন অধিকার সৃষ্টিকর্তা ও সমাজ কেউই  তাকে দেয় না। তাইতো তিনি বারবার সীমা লঙ্ঘনকারীদের বিষয়ে হুসিয়ারী উচ্চারণ করেছেন। তার এ হুসিয়ারী মানব জাতির কল্যাণের জন্য, মুক্তির জন্য। যা কোনমতেই  উপেক্ষা করা যায় না। যারা উপেক্ষা করেন, তাদের সর্বপ্রকার সর্বনাশ সুনিশ্চিত। এ ব্যাপারে পৃথিবীর  প্রায় সকল ধর্মই একমত।

কাজেই যা খুশি তা করার স্বাধিনতা মানুষের প্রয়োজন নেই। মানুষের প্রয়োজন সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ হয়ে থেকে পরকালের পরীক্ষায় পাশ করে, তার মানব জীবনকে সার্থক করা। মানুষের কাজ সীমা লঙ্ঘন না করা। নিজের সীমার ভিতর মর্যাদাপূর্ণ ও  সর্বশ্রেষ্ঠ জীবন যাপন করা। মানুষের জন্য মানানসই আচরণবিধি অনুসরণ করা। তা হলেই জীবজগতে মানুষের শ্রেষ্ঠত্ব বজায় থাকবে। পৃথিবীতে মানুষ মানুষের মত সার্থক জীবন যাপন করবে আর মৃত্যুর পরে সীমা লঙ্ঘন না করার পুরস্কার পাবে। আর যারা মানব জীবনে যা খুশি তা করার স্বাধীনতার কথা বলে পৃথিবীতে বার বার সীমা লঙ্ঘন করবে, তারা সর্বশ্রেষ্ঠ মর্যাদা হারাবে এবং মৃত্যুর পরে সীমা লঙ্ঘনের শাস্তি ভোগ করবে। এ বিষয়েও পৃথিবীর সকল ধর্মই একমত।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]



প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম

সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ

সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার

কিশোরগঞ্জ-২৩০০

মোবাইল: +৮৮০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮

ইমেইল: kishoreganjnews247@gmail.com

©All rights reserve www.kishoreganjnews.com