কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরব উদয়ন স্কুলে ছড়াকার জগলুল হায়দার পাঠাগার উদ্বোধন


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ৫ নভেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার, ১১:৪৯ | ভৈরব 


ভৈরব উদয়ন স্কুলে ছড়াকার জগলুল হায়দার পাঠাগার উদ্বোধন করা হয়েছে। মঙ্গলবার (৫ নভেম্বর) সকালে স্থানীয় বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান- ‘ভৈরব উদয়ন স্কুল’ এর নিজস্ব ভবনের ২য় তলায় আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করে- ‘ছড়াকার জগলুল হায়দার পাঠাগার’।

শিক্ষার্থীদের মেধা ও মননয়ন বিকাশে প্রচলিত পাঠ্যবইয়ের পাশাপাশি নিয়মিত ভাবে পাঠাভ্যাস বাড়ানো তথা বহুমুখি জ্ঞানের বিকাশের লক্ষ্যে বিদ্যালয়ের পাঠাগারটি প্রতিষ্ঠা করা হয়।

পাঠাগার কক্ষের সামনে ফিতা কেটে তা উদ্বোধন করেন, ভৈরব পৌর মেয়র, বিশিষ্ট রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, বীরমুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট ফখরুল আলম আক্কাছ।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, স্থানীয় কাউন্সিলর মো. নজরুল  ইসলাম সরকার, ভৈরব প্রেসক্লাবের সভাপতি ও বিদ্যালয়ের পরিচালনা পরিষদের সভাপতি মো. জাকির হোসেন কাজল, ডক্টরস্ ক্লাব অব ভৈরব সাধারণ সম্পাদক ও বিদ্যালয়ের পরিচালনা পরিষদের সদস্য ডা. মো. মিজানুর রহমান কবির, বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সদস্য নাট্যঅভিনেতা মানিক চৌধুরী, বিদ্যালয়ের পরিচালক ও লেখক অভিনেতা এম. মতিউর রহমান সাগরসহ শিক্ষক-শিক্ষার্থীবৃন্দ।

মুদ্রিত বই পাঠের আনন্দ ও প্রয়োজনীয়তা- দুটোই এখনো নতুন প্রজন্মের কাছে বিদ্যমান। তাই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য পাঠ্যবইয়ের পাশাপাশি তাদের মননয়ন বিকাশের জন্য বিদ্যালয়টি নিজস্ব পাঠাগার প্রতিষ্ঠা করে।

১৫৬২টি বিভিন্ন ধরনের বই দিয়ে পাঠাগারটি চালু করা হয়, যেখানে ছড়া-কবিতা-গল্প-উপন্যাস, ইতিহাস বা প্রবন্ধ জাতীয় বই রয়েছে, যার বেশির ভাগই শিশুতোষ বই। পরবর্তীতে এটি কলেবরে বৃদ্ধির পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানান বিদ্যালয়ের সভাপতি।

পাঠাগারটি উদ্বোধনকালে প্রতিষ্ঠানের পরিচালক ও লেখক এম. মতিউর রহমান সাগর বলেন, ‘প্রত্যেকটি সরকারি-বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব পাঠাগার থাকা অত্যন্ত জরুরী। শিশুদের পরিপূর্ণ মানসিক বিকাশে পাঠ্যবইয়ের পাশাপাশি সহপাঠের বিকল্প নেই।’

দেশের বিশিষ্ট ছড়াকার জগলুল হায়দারের নামে এই পাঠাগারটি প্রতিষ্ঠা করা হয়। বর্তমান সময়ের অন্যতম সেরা একজন কবি ও ছড়াকার জগলুল হায়দারের জন্ম ভৈরবে না হলেও এই গুণী কবির শৈশব-কৈশোর কেটেছে মেঘনা পাড়ের ছোট্ট শহর ভৈরবে। ভৈরবের সাথে তার যোগাযোগটুকুও বিদ্যমান ছিল নিয়মিতই।

তারই ধারাবাহিকতায় এই পাঠাগারটি প্রতিষ্ঠায় তিনি অনুপ্রেরণা হিসাবে কাজ করেন এবং বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তার নামে পাঠাগারটি চালু করে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর