কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


চিকিৎসক দম্পতির উদ্যোগে উন্নত মানের খাবার খেল দেড় শতাধিক প্রতিবন্ধী শিশু


 স্টাফ রিপোর্টার | ৮ নভেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, ৮:০০ | বাজিতপুর 


এক চিকিৎসক দম্পতির উদ্যোগে তৃপ্তি সহকারে বৃহস্পতিবার (৭ নভেম্বর) দুপুরের খাবার গ্রহণ করেছে বাজিতপুরে মৃত্তিকা প্রতিবন্ধী শিশু পাঠশালা ও পুনর্বাসন কেন্দ্রের দেড় শতাধিক প্রতিবন্ধী শিশু ও তাদের অভিভাবকেরা।

মানবিক এই চিকিৎসক দম্পতি হলেন, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক ও ফিজিক্যাল মেডিসিন বিভাগের প্রধান ডা. মুহাম্মদ আজিজুর রহমান ও প্রেসিডেন্ট আব্দুল হামিদ মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যাপক ডা. মীর রাবেয়া আক্তার।

এই চিকিৎসক সম্পতি নিজেরা উপস্থিত থেকে প্রতিবন্ধী শিশুদের মাঝে দুপুরের খাবার পরিবেশন করেন। খাবারের মেন্যুতে ছিল ভাত, সবজি, ডাল, গরু ও মুরগির মাংস।

এমরান উদ্দিন ভূঁইয়া এংরাজ এর সভাপতিত্বে খাবার পরিবেশন পূর্ব আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন বাজিতপুর পাইলট স্কুলের সাবেক শিক্ষক আবুল কাশেম ভূঁইয়া, প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক নূরে হায়াত, সিনিয়র শিক্ষক আনোয়ার পারভেজ, সহকারী প্রধান শিক্ষক আতাউর রহমান ভূঁইয়া, সহকারী শিক্ষক রেখা আক্তার, নাহিদা পারভীনসহ অন্যান্য শিক্ষক ও কর্মকর্তাগণ।

বাজিতপুর উপজেলার পিরিজপুর ইউনিয়নের গোথালিয়া গ্রামে পাঠশালা মাঠ প্রাঙ্গণে সকাল থেকে প্রতিবন্ধী শিশুদের মাঝে এক আনন্দের ঢেউ বয়ে যায়। শিশুরা সারাদিন খেলাধুলা, গান বাজনা ও সবশেষে সুষম ও পুষ্টিকর খাবার খেয়ে ভীষণ আনন্দ উপভোগ করে। শিশুদের মায়েরা রান্নার সকল কাজ সমাপন করেন এবং তারা নিজ হাতে শিশুদের খাইয়ে দেন।

এ বিষয়ে ডা. মীর রাবেয়া আক্তার বলেন, আজ থেকে আমি এ সকল প্রতিবন্ধী শিশুদের মা। বছরে একবার হলেও আমরা আমাদের শিশুদের চিকিৎসা, ঔষধ ও খাবারের আয়োজন করব।

ডা. আজিজুর রহমান বলেন, সমাজের সবাই যদি এ সকল অবহেলিত প্রতিবন্ধী শিশুদের শিক্ষা-স্বাস্থ্য কল্যাণে এগিয়ে আসে তাহলে তারাও একদিন এদেশের মুখ উজ্জ্বল করবে।

প্রতিবন্ধী শিশু স্কুলের সকল শিক্ষক-কর্মকর্তাগণ চিকিৎসক দম্পতির এ মহতী উদ্যোগের জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

বুদ্ধি প্রতিবন্ধী শিশু রিজার মা জহুরা বেগম বলেন, বাই (ভাই) আজ অনেক দিন পর এরা কুব (খুব) আনন্দ কইরা এক সাথে গরুর গুস্ত (মাংস) দিয়া খাইছে। আমরা বাই গরিব মানুষ কইত্বে (কোথা হতে) এত বালা (ভাল) খাওন (খাওয়া) কাইয়াম (খাব)। ডাক্তারের বউয়ের মনডা কুব বালা। আল্লাহ হেরারে বালা রাহুক (রাখুক)।

এ বিষয়ে বিশিষ্ট সাংবাদিক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব নাসরুল আনোয়ার বলেন, অনেকের বিত্ত-বৈভব থাকে কিন্তু সহায়হীন মানুষের পাশে দাঁড়ানোর মন মানসিকতা থাকে না। এই সব শিশুদের পাশে দাঁড়ানো, তাদের জন্য নিজ হাতে পুষ্টিকর খাবার পরিবেশন এটি একটি মহৎ কাজ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর