কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জের গর্ব কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ


  মু আ লতিফ, সাংবাদিক ও আঞ্চলিক ইতিহাস-ঐতিহ্য সন্ধানী লেখক | ১১ নভেম্বর ২০১৯, সোমবার, ২:১৭ | ব্যক্তিত্ব 


ঢাকা বিভাগের একটি অন্যতম জেলা কিশোরগঞ্জ। হাওর-বাঁওরে ঘেরা বৈচিত্র্যময় ভূ-প্রকৃতির এক অনন্য জনপদ কিশোরগঞ্জ। চন্দ্রাবতী, মহুয়া-মলুয়ার দেশ এই কিশোরগঞ্জ।এই জেলার ভৌগোলিক আয়তন প্রায় ২,৬৮৯ বর্গ কিলোমিটার। জেলার ১৩টি উপজেলার পরতে পরতে ছড়িয়ে রয়েছে ইতিহাস আর ঐতিহ্যের নিদর্শন। শিল্প-সাহিত্য আর লোকসংস্কৃতির এক সমৃদ্ধ ও উর্বর জনপদের নাম কিশোরগঞ্জ।

কিশোরগঞ্জ অসংখ্য কীর্তিমান মানুষের জন্মস্থান। মুক্তিযুদ্ধকালীন সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রয়াত রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান, বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রয়াত মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, র্যাংলার আনন্দমোহন বসু, পণ্ডিত শ্রীনীরদচন্দ্র চৌধুরী, মহারাজ ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী, উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী, বিপ্লবী রেবতী মোহন বর্মন, শিক্ষানুরাগী মুন্সি আজিমউদ্দিন আহমদ, শহীদ ডা. আবদুল আলীম চৌধুরী, শাহনামা অনুবাদক কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ এর মতো অনেক বিখ্যাত লোকের জন্মস্থান কিশোরগঞ্জ।

আমরা ধারাবাহিকভাবে পরিচিত হবো এমনই কিছু বিখ্যাত ব্যক্তিদের সাথে। আজ সপ্তম পর্বে আমরা তুলে ধরছি মহাকবি আবুল কাশেম ফেরদৌসির মহাকাব্য ‘শাহনামা’ অনুবাদক কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ এঁর সংক্ষিপ্ত জীবনালেখ্য। লিখেছেন সাংবাদিক ও আঞ্চলিক ইতিহাস-ঐতিহ্য সন্ধানী লেখক মু আ লতিফ

কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফের পূর্বপুরুষ মোহাম্মদ আরাবি বাগদাদ থেকে ভাগ্যান্বেষণে দিল্লিতে এসেছিলেন। পরে তৎকালীন বাংলার প্রাণপুরুষ ঈসা খাঁর পুত্র মুসা খাঁর বিদ্রোহ দমন করতে মোগল সম্রাট তাঁরই উত্তরপুরুষ নৌবাহিনী প্রধান করিম খাঁকে বাংলায় প্রেরণ করেন। করিম খাঁ কিশোরগঞ্জের বৌলাই নামক স্থানে এসে নরসুন্দা নদীতীরে তাঁর নৌবাহিনীর ঘাঁটি স্থাপন করেন। পরবর্তী সময়ে বিদ্রোহ প্রশমিত হলেও বাংলার রূপ-বৈচিত্র্য, সৌন্দর্য এবং সাধারণ মানুষের আনুগত্যে মুগ্ধ হয়ে তিনি এখানেই স্থায়ীভাবে বসবাসের সিদ্ধান্ত নেন। এভাবেই বৌলাই সাহেববাড়ির গোড়াপত্তন ও রাজত্বের সূত্রপাত হয়। কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ বিখ্যাত ওই পরিবারেরই অধস্তন বংশধর।

তবে কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ আসলে নিজের গুণেই পরিচিত।  সাহিত্যের নানা অঙ্গনে তাঁর উজ্জ্বল বিচরণ। বিশেষ করে যে কজন বাঙালি কবি, গবেষক ও অনুবাদক ফারসি ভাষার বিখ্যাত গ্রন্থসমূহ অনুবাদ করে বিশেষ কৃতিত্ব দেখিয়েছেন, তিনি তাঁদের মধ্যে অন্যতম। মহাকবি আবুল কাশেম ফেরদৌসির মহাকাব্য ‘শাহনামা’ বাংলায় অনুবাদ করে কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ বাংলা সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করেছেন। এ কাজের জন্য তিনিও চিরকাল অমর হয়ে থাকবেন।

প্রাসঙ্গিকভাবেই এখানে ‘শাহনামা’ সম্পর্কে কিছুটা আলোকপাত করা দরকার। বলা হয়, ফেরদৌসি গজনির অধিপতি সুলতান মাহমুদের অনুরোধেই এ মহাকাব্য লিখতে শুরু করেন। যদিও এ নিয়ে মতবিরোধ রয়েছে। ‘শাহনামা’ ইরানীয় জাতীয়তার উজ্জীবনের কাব্য। একে বলা হয় ইরানের জাতীয় মহাকাব্য। ফেরদৌসি এই কাব্যের মাধ্যমে তাঁর স্বদেশ ইরানের সুপ্ত প্রাণধর্মের অনুসন্ধান করেছেন। ‘ইতস্তত ছড়িয়ে থাকা কিংবদন্তি ও ইতিকথার উদ্ধারে’ তিনি ব্যাপৃত হয়েছেন। ইরানের অতীতের সব মহত্তম ইতিহাস উন্মোচনে তিনি সচেষ্ট হয়েছেন। তিনি ইরানের হৃৎপিণ্ডে নবরক্ত সঞ্চালনের মাধ্যমে তার গৌরবোজ্জ্বল অতীতের মতো ভবিষ্যৎকেও প্রাণপূর্ণ ও মহৎরূপে উদ্ভাসিত হতে আশাবাদী হয়েছেন। দীর্ঘ পঁয়ত্রিশ বছর সাধনার মাধ্যমে ষাট হাজার শ্লোকবিশিষ্ট ‘শাহনামা’ তিনি রচনা করেছিলেন, যা আজ এক মহামূল্যবান ঐতিহাসিক দলিল ও সম্পদ হিসেবে বিবেচিত।

কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ অনুবাদ-সাহিত্য ছাড়াও সাহিত্যাঙ্গনের নানা শাখায় কাজ করেছেন। সাহিত্যের প্রতিটি শাখায় তাঁর সুদৃঢ় ও উজ্জ্বল বিচরণ ছিল। কবিতা, প্রবন্ধ, গবেষণা, উপন্যাস, নাটক, অনুবাদ, শিশুসাহিত্য এমনকি চলচ্চিত্রাঙ্গনেও সক্রিয় ছিলেন।

কিশোরগঞ্জ জেলা শহর থেকে প্রায় তিন কিলোমিটার দূরে বৌলাই জমিদারবাড়ি। এটি বনেদি ও সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবার হিসেবে পরিচিত। এছাড়া এ পরিবারের রয়েছে সাহিত্যাঙ্গনে সৃষ্টিশীল অবদান। কবির পিতা মিসবাহউদ্দীন আহমদ ছিলেন আরবি-ফারসি চর্চায় সুপণ্ডিত। তাঁর চাচা খালেদ বাঙালি ছিলেন উর্দু ভাষার বিখ্যাত কবি। তৎকালীন সময়ে বৌলাই থেকে ‘আকতার’ নামে একটি উর্দু ভাষায় পত্রিকা প্রকাশিত হতো। এটি ওই খালেদ বাঙালি প্রকাশ করতেন।

পারিবারিক পরিবেশই তাঁর কবিমন সৃষ্টিতে অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে। আরবি-ফারসি চর্চায় একটা চমৎকার পরিবেশের মধ্য দিয়েই তিনি বড় হয়েছেন। কবির বাড়ি কিশোরগঞ্জের বৌলাই হলেও শৈশবের বেশি সময় অতিবাহিত হয়েছে নানার বাড়ি তাড়াইলের জাওয়ারে। জাওয়ার স্কুল থেকে ষষ্ঠ শ্রেণীতে উত্তীর্ণ হয়ে তিনি কিশোরগঞ্জ শহরের রামানন্দ হাইস্কুলে ভর্তি হন। পরে তিনি চলে যান ময়মনসিংহ এবং পরবর্তীকালে ঢাকায়।

পড়াশোনা করার সময়ই তাঁর লেখালেখি শুরু ও সাহিত্যজগতে হাতেখড়ি। তিনি তখন সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডেও জড়িয়ে পড়েন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় তাঁর একটি কবিতার বই প্রকাশিত হয় যার নাম ‘উপায়ন’। তাঁর সহপাঠীদের মধ্যে যাঁরা তাঁর খুবই অন্তরঙ্গ ছিলেন তাঁদের মধ্যে দৈনিক সংবাদের সৈয়দ নূরুদ্দিন, কবি সানাউল হক ও প্রখ্যাত ঔপন্যাসিক সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ অন্যতম। এ সময় তাঁর সাথে আবু জাফর শামসুদ্দীনেরও সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল।

ফারসি ও উর্দু কাব্যের তিনি ছিলেন বিদগ্ধ সমঝদার। রুমি, হাফিজ, ওমর খৈয়াম, শেখ সাদি, ফেরদৌসি, মির্জা গালিব থেকে মুখস্থ আবৃত্তি করে তিনি শোনাতেন এবং অর্থও বলে দিতেন। রবীন্দ্রনাথ, নজরুল, জীবনানন্দ দাশ প্রমুখ বাংলার শ্রেষ্ঠ কবিদের বহু কবিতা ও গান তাঁর মুখস্থ ছিল।

ছেলেবেলায় গড়ে ওঠা মন-মেজাজ বড় হয়ে ইংরেজি শিক্ষার প্রভাবেও বিলুপ্ত হয়নি। আরবি-ফারসির প্রতি এতটুকুও ভালোবাসা কমেনি। তিনি সাহিত্যে বাঙালি ও মুসলিম বাঙালির সমন্বয়ে গড়া এক নতুন বলয় তৈরি করেছিলেন। তিনি উর্দু-আরবি-ফারসি ভাষার পণ্ডিত ছিলেন। যে কারণে তিনি সহজেই ‘শাহনামা’সহ একাধিক ফারসি সাহিত্যের অনুবাদ দক্ষতার সাথে করতে পেরেছেন।

মরমী কবি জালালুদ্দিন রুমির অমর কাব্য ‘মসনবি’ এবং ইমাম গাজ্জালি, হাফিজ, খৈয়াম, গালিব ও ইকবালের মতো মহাশক্তিধর পণ্ডিতদের সাহিত্যাঙ্গনের তিনি ছিলেন মধুপিয়াসী ভ্রমর। ১৯৬০ সালে মহাকবি ইকবালের ‘বাঙ্গেদারা,’ ‘বালেজিব্রিল,’ ‘জারবেকলিম’ ও ‘আরমুগানে হেজাজ’ থেকে নির্বাচিত কবিতার অনুবাদ সংকলন হিসেবে ইকবালের কাব্য সঞ্চয়ন তিনি প্রকাশ করেন। ১৯৬৬ সালে  তাঁর আলোচিত রুমির মসনবি গ্রন্থাকারে প্রকাশিত হয়। অনেকের মতে, এটি বাংলা সাহিত্যে এক অনন্য সংযোজন।

কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফের অনন্য এবং বিস্ময়কর সৃষ্টি ‘শাহনামা’র পূর্ণাঙ্গ বঙ্গানুবাদ। তিনি এর অনুবাদ করেন দীর্ঘ ১৭ বছর পরিশ্রম ও সাধনার ফলে। বাংলা একাডেমি এটি ছয় খণ্ডে প্রকাশ করেছে। এটি কবির অবিস্মরণীয় কীর্তি এবং বাংলা সাহিত্যে এক অমূল্য সম্পদ হিসেবে গণ্য।

মনিরউদ্দীন ইউসুফকে আমরা কবি ও অনুবাদক হিসেবেই বেশি চিনি। তিনি শিশুতোষ গ্রন্থ, প্রবন্ধ, উপন্যাস, নাটক ও চরিতকথাও রচনা করেছেন। তিনি ‘ঝড়ের রাতের শেষে’সহ মোট তিনটি উপন্যাস লিখেছেন। স্বাধীনতা-উত্তর তাঁর ‘পনসের কাঁটা’ এবং ‘ওর বয়েস যখন এগারো’ দুটি উপন্যাসে এ দেশের সমাজছবি যেভাবে চিত্রায়ণ করেছেন তা থেকেই তাঁর সাহসিকতা ও বলিষ্ঠতা প্রমাণিত হয়।

তিনি বিশ্বাস করতেন, বাঙালি মুসলমানদের উন্নতি ও বিকাশের জন্য সাহিত্য-সংস্কৃতিচর্চা অপরিহার্য। এই মূল্যবোধ থেকেই তিনি সকল সৃষ্টিকর্মে নিজেকে নিয়োজিত করেছিলেন। যুক্তি, মুক্তবুদ্ধি ও মানবিক মূল্যবোধের প্রতি বিশ্বস্ত কবি কখনো কোনো নির্দিষ্ট রাজনীতির ছন্দে বাঁধা পড়েননি। একজন খাঁটি দেশপ্রেমিক হিসেবে প্রগতিশীল চিন্তাধারায় সবসময় মানবকল্যাণ ও মানুষের মুক্তির জয়গান গেয়েছেন। তিনি ছিলেন সকল মানুষের আপনজন।

কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফকে সাহিত্যের স্বীকৃতিস্বরূপ ১৯৬৮ সালে হাবিব ব্যাংক পুরস্কারে ভূষিত করা হয়। কবিকে তাঁর উৎকৃষ্ট ও কুশলী অনুবাদক হিসেবে বাংলা একাডেমি পুরস্কার দেওয়া হয় ১৯৭৮ খ্রিস্টাব্দে। ১৯৯৩ সালে তাঁকে মরণোত্তর একুশে পদকে ভূষিত করা হয়।

তাঁর চিন্তায় ইসলামি মূল্যবোধ ও মানবতার জয়গান প্রবলভাবে প্রস্ফুটিত হয়েছে। তিনি সময়ের দাবিকেও উপেক্ষা করেননি। বাস্তবতা ও আধুনিক  চিন্তার তিনি পরিপন্থী ছিলেন না।

অনেকের মতে, কবি তাঁর চিন্তার জগতে দুটি বিপরীতমুখী সংস্কৃতিকে ধারণ করতে সক্ষম হয়েছিলেন। ধর্মের অমিয় ধারা, সনাতন ও স্বকীয় বৈশিষ্ট্যকে তিনি গভীরভাবে লালন করেছেন। তিনি আধুনিক, যুগোপযোগী, অগ্রসর চিন্তা ও চেতনার সাথে একাত্মতা ঘোষণা করেছেন। এই দুই ধারার অপূর্ব সন্নিবেশ তাঁর লেখায়, চিন্তায় ও কার্যক্রমে প্রস্ফুটিত হয়েছে।  কোনো সংঘাত নয়, বরং অপূর্ব মিলনের সুর মূর্ত হয়ে উঠেছে তাঁর লেখায়।

সমাজ, রাষ্ট্র ও ব্যক্তিজীবনের একটি ক্ষেত্রে কবির এই অনুভব এবং চিন্তা বহুধাবিভক্ত জাতিকে নতুন পথের সন্ধান দিতে সক্ষম। এখানেই তাঁর সার্থকতা ও কৃতিত্ব।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর