কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মোটর সাইকেল চুরি ঠেকাবে বিপ্লবের সিকিউরিটি সিস্টেম


 মোস্তফা কামাল | ৯ মার্চ ২০১৮, শুক্রবার, ১:৩৩ | তথ্য প্রযুক্তি 


মোটর সাইকেল বা অন্যান্য যেকোন মোটর বাইক চুরির ঘটনা অহরহই ঘটছে, দেশব্যাপী ঘটছে। এবার বাজারে আসার অপেক্ষায় ‘স্মার্ট কী’র মাধ্যমে যাদুকরি মোটরবাইক সিকিউরিটি সিস্টেম। কিশোরগঞ্জের এক উদ্ভাবক কাজ করছেন অত্যন্ত সাশ্রয়ী এই সিকিউরিটি সিস্টেম নিয়ে। তিনি সম্প্রতি কিশোরগঞ্জের ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলায় প্রযুক্তিটি প্রদর্শন করে শ্রেষ্ঠ তরুণ উদ্ভাবকের পুরস্কারও পেয়েছেন।

বাসা, অফিস, আদালত, হাসপাতাল, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, জনবহুল মার্কেট, কোথাও যেন মোটর সাইকেল নিরপদ নয়। এক শ্রেণির প্রশিক্ষিত অপরাধী বাসার গেট খুলে মোটর সাইকেল নিয়ে যাচ্ছে। অফিস প্রাঙ্গণ বা জনবহুল মার্কেট এলাকা থেকেও মোটর সাইকেল নিয়ে নিরাপদে কেটে পড়ছে।

অপরাধীদের কাছে এক ধরনের ‘মাস্টার কী’ থাকে। যে কোন যানবাহন বা বাসার তালা যেন যাদুর মত খুলে ফেলে, এসিড দিয়ে গলিয়ে ফেলে। আবার মোটর সাইকেলের ছোটখাট কারিগরি বিদ্যাও তাদের রপ্ত করা আছে। ফলে খুব সহজেই মোটর সাইকেল তারা নিয়ে পালিয়ে যায়। এরপর এসব মোটর সাইকেল অন্যান্য জেলায় পাচার করে দেয়। সাধারণত চোরাই মোটর সাইকেল নিজ জেলায় কেনাবেচা করে না। পুলিশও অনেক সময় নিজ জেলায় অন্য জেলার মোটর সাইকেল উদ্ধার করতে সক্ষম হলেও নিজ জেলার মোটর সাইকেল খুব একটা উদ্ধার করতে পারে না।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার কাঁটাবাড়িয়া এলাকায় রয়েছে কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান- ‘টিটিসি’। সেই প্রতিষ্ঠানের অটোমোবাইল ইনস্ট্রাক্টর বিপ্লব হাসান উদ্ভাবন করেছেন মোটরবাইক আই.বি.টি (ইগনিশন সিস্টেম.ব্রেক.ট্র্যাকিং) সিকিউরিটি সিস্টেম। এই প্রযুক্তি সংযোজন করার ফলে কেউ স্মার্ট কী ছাড়া কোন ভাবেই মোটর বাইকটি চালু করতে পারবে না।

ইগনিশন লাইনের তারটি কেটে সংযোগ দিলেও বাইকটি চালু হবে না। এমনকি মোটর সাইকেলের চাবিটি কোনভাবে ছিনিয়ে নিয়ে বা চুরি করে নিলেও তা দিয়ে বা এসিড প্রয়োগ করেও মোটর সাইকেল চালাতে বা ঠেলে ঠেলে নিয়ে যেতে পারবে না। চাকায় আলাদা কোন তালা ব্যবহারেরও প্রয়োজন নেই।

কেউ ভ্যানে করে মোটর সাইকেলটি নিয়ে যেতে চাইলে জিপিএস (গ্লোবাল পোজিশন সিস্টেম) ট্র্যাকিংয়ের মাধ্যমে এটিকে সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণে রাখা যাবে। দেশের বাইরে নিয়ে গেলেও এর অবস্থান জানা যাবে। এসময় চুরিরোধক এলার্ম বাজানো যাবে। এমনকি চোরকে ৭০ থেকে ৮০ ভোল্টের বৈদ্যুতিক শকও দেয়া যাবে।

উদ্ভাবক বিপ্লব হাসান জানান, স্মার্ট কী একটি ডিভাইস, যা মোটর বাইকের সামনের চাকায় বসানো থাকে। এটি আপাতত চীন থেকে সীমিত পরিমাণে আমদানি করা হচ্ছে। যে কারণে এখন একটি মোটর বাইকের সিকিউরিটি সিস্টেমের জন্য খরচ পড়ছে প্রায় ৫ হাজার টাকার মত। প্রযুক্তিটির বাণিজ্যিক ব্যবহার শুরু হলে এক সময় হয়ত ১৮শ’ টাকার মত খরচ হবে।

তিনি আরো জানান, স্মার্ট কী’র অন্যান্য সুবিধার মধ্যে রয়েছে, এটি এক ধরনের রিমোট কন্ট্রোল ডিভাইস। এর মাধ্যমে দূর থেকে গাড়িকে চালু বা বন্ধ করা যাবে। গাড়িকে বা ছোট বাচ্চাদেরকেও সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণ করা যাবে। হারানো বা চুরি করা জিনিসের অবস্থান নির্ণয় করা যাবে। গাড়িকে অনেক কম খরচে নিরাপত্তা প্রদান করা যাবে।

এই প্রযুক্তিটি কিশোরগঞ্জেই বিশ্বে প্রথম ব্যবহার করা হয়েছে বলে বিপ্লব হাসান দাবি করেন।

গত ২৬ থেকে ২৮ ফেব্রুয়ারি কিশোরগঞ্জ শহরের পুরাতন স্টেডিয়ামে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এটুআই প্রকল্পের সহযোগিতায় জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আয়োজন করা হয়েছিল ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলার। সেখানে স্থানীয় উদ্যোক্তাসহ বিভিন্ন স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান ও সরকারি দপ্তরের মোট ৭৪টি স্টল স্থাপন করে ডিজিটাল সেবা প্রদর্শন এবং মেলায় বসেই বিভিন্ন ডিজিটাল সেবা প্রদান করা হয়। সেই মেলাতেই কিশোরগঞ্জ কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র (টিটিসি) তাদের মোটর বাইক সিকিউরিটি সিস্টেম সম্পর্কে ধারণা প্রদর্শন করেন।

প্রযুক্তিটির যুগোপযোগিতা এবং এর নতুনত্ব বিবেচনা করে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) গোলাম মোহাম্মদ ভূঁইয়া প্রযুক্তিটির উদ্ভাবক বিপ্লব হাসানকে ‘তরুণ উদ্ভাবক’ হিসেবে পুরস্কৃত করেছেন।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর
















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail .com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ