কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


চিরসবুজ নায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন


 কিশোরগঞ্জ নিউজ ডেস্ক | ১৫ নভেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, ১২:৩০ | বিনোদন 


জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত চিরসবুজ নায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন। ৪২ বছরের অভিনয় জীবনে সাড়ে তিনশো’রও বেশি ছবিতে অভিনয় করেছেন। তার অভিনীত প্রথম ছবি ‘বসুন্ধরা’ মুক্তি পায় ১৯৭৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর। সর্বশেষ ছবি ২০১৮ সালে মুক্তি পাওয়া ‘বিজলী’। তার সবচেয়ে জনপ্রিয় ছবি ১৯৮৯ সালে মুক্তি পওয়া ‘বেদের মেয়ে জোসনা’।

‘নিরাপদ সড়ক চাই’ আন্দোলনের প্রবক্তা ইলিয়াস কাঞ্চন তাঁর প্রচেষ্টায় ২২ অক্টোবরকে ‘জাতীয় নিরাপদ দিবস’ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। ১৯৯৩ সালের ২২ অক্টোবর ইলিয়াস কাঞ্চনের শুটিং দেখতে যাওয়ার পথে সড়ক দুর্ঘটনায় তার প্রথম স্ত্রী জাহানারা কাঞ্চন মারা যান। স্ত্রী জাহানারা কাঞ্চনের মৃত্যুর পর তিনি নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলন গড়ে তুলেন। সমাজসেবায় তার এই অবদানের জন্য ২০১৮ সালে সমাজসেবায় একুশে পদকের সম্মানে ভূষিত হয়েছেন গুণী এই অভিনেতা। ইলিয়াস কাঞ্চন প্রতিষ্ঠিত নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) নামের সংগঠনটি জাতিসংঘেও প্রশংসিত হয়েছে।

সুভাষ দত্ত পরিচালিত ‘বসুন্ধরা’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মধ্যদিয়ে চলচ্চিত্রে অভিষেক হয় ইলিয়াস কাঞ্চনের। ১৯৭৭ সালের ২৬ মার্চ তিনি প্রথম ক্যামেরার সামনে দাঁড়ান। সে বছরই ৩১ ডিসেম্বর ‘বসুন্ধরা’ চলচ্চিত্রটি মুক্তি পায়। এতে তার বিপরীতে অভিনয় করেছিলেন ববিতা। সেই থেকে এ পর্যন্ত প্রতি বছরই তার অভিনীত চলচ্চিত্র মুক্তি পেয়েছে। ৩৫০টিরও বেশি চলচ্চিত্রে তিনি অভিনয় করেছেন।

দীর্ঘ চলচ্চিত্র জীবনে তিনি ইন্ডাস্ট্রিতে উপহার দিয়েছেন অসংখ্য ব্যবসা সফল ও দর্শক নন্দিত সিনেমা। অভিনেত্রী অঞ্জু ঘোষের সঙ্গে ‘বেদের মেয়ে জোসনা’ ছবিটি ঢাকাই ছবির ইতিহাসে সর্বাধিক ব্যবসা করা সিনেমার তালিকায় প্রথম হয়ে আছে আজও। এছাড়াও তিনি দিতি ও চম্পার সঙ্গে জুটি বেঁধে সফল হয়েছেন।

অভিনয় জীবনের পথচলায় বাবুরাজ পরিচালিত ‘পাষাণ’ চলচ্চিত্রে তিনি এবং অঞ্জু ঘোষ প্লে-ব্যাকও করেছিলেন। ইলিয়াস কাঞ্চন দুটি চলচ্চিত্র পরিচালনা করেছেন, একটি ‘বাবা আমার বাবা’ এবং অন্যটি ‘মায়ের স্বপ্ন’। চলচ্চিত্র অভিনয়ের পাশাপাশি তিনি চলচ্চিত্র প্রযোজনা করেছেন। তার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের নাম ‘জয় চলচ্চিত্র’।

ইলিয়াস কাঞ্চনের গ্রামের বাড়ি কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জের আশুতিয়াপাড়ায়। তিনি ১৯৫৬ সালের ২৪ ডিসেম্বর জন্মগ্রহণ করেনে। তার বাবার নাম হাজী আব্দুল আলী এবং মায়ের নাম সরুফা খাতুন।

১৯৮৬ সালে আলমগীর কবির পরিচালিত ‘পরিণীতা’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য শ্রেষ্ঠ অভিনেতা বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে ভূষিত হন তিনি। এছাড়া ২০০৫ সালে চাষী নজরুল ইসলাম পরিচালিত রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গল্প অবলম্বনে শাস্তি চলচ্চিত্রে অভিনয় করে শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্রে অভিনেতা বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন।

ইলিয়াস কাঞ্চন ১৯৭৭ সাল থেকে একের পর এক ব্যবসা সফল ছবি উপহার দিয়েছেন। কুশলী অভিনয়ের মাধ্যমে চলচ্চিত্রের এই প্রবাদ পুরুষ চিরদিনের মত বাংলা চলচ্চিত্র প্রেমীদের অন্তরে জায়গা করে নিয়েছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর