কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পণ্ডিত শ্রীনীরদচন্দ্র চৌধুরী: কিশোরগঞ্জ থেকে অক্সফোর্ড


 মু আ লতিফ, সাংবাদিক ও আঞ্চলিক ইতিহাস-ঐতিহ্য সন্ধানী লেখক | ১৯ নভেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৭:২২ | ব্যক্তিত্ব 


ঢাকা বিভাগের একটি অন্যতম জেলা কিশোরগঞ্জ। হাওর-বাঁওরে ঘেরা বৈচিত্র্যময় ভূ-প্রকৃতির এক অনন্য জনপদ কিশোরগঞ্জ। চন্দ্রাবতী, মহুয়া-মলুয়ার দেশ এই কিশোরগঞ্জ।এই জেলার ভৌগোলিক আয়তন প্রায় ২,৬৮৯ বর্গ কিলোমিটার। জেলার ১৩টি উপজেলার পরতে পরতে ছড়িয়ে রয়েছে ইতিহাস আর ঐতিহ্যের নিদর্শন। শিল্প-সাহিত্য আর লোকসংস্কৃতির এক সমৃদ্ধ ও উর্বর জনপদের নাম কিশোরগঞ্জ।

কিশোরগঞ্জ অসংখ্য কীর্তিমান মানুষের জন্মস্থান। মুক্তিযুদ্ধকালীন সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রয়াত রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান, বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রয়াত মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, র্যাং লার আনন্দমোহন বসু, পণ্ডিত শ্রীনীরদচন্দ্র চৌধুরী, মহারাজ ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী, উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী, বিপ্লবী রেবতী মোহন বর্মন, শিক্ষানুরাগী মুন্সি আজিমউদ্দিন আহমদ, শহীদ ডা. আবদুল আলীম চৌধুরী, শাহনামা অনুবাদক কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ এর মতো অনেক বিখ্যাত লোকের জন্মস্থান কিশোরগঞ্জ।

আমরা ধারাবাহিকভাবে পরিচিত হবো এমনই কিছু বিখ্যাত ব্যক্তিদের সাথে। আজ অষ্টম পর্বে আমরা তুলে ধরছি পণ্ডিত নীরদচন্দ্র চৌধুরী এঁর সংক্ষিপ্ত জীবনালেখ্য। লিখেছেন সাংবাদিক ও আঞ্চলিক ইতিহাস-ঐতিহ্য সন্ধানী লেখক মু আ লতিফ।

পণ্ডিত শ্রীনীরদচন্দ্র চৌধুরীর জন্ম কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলার বনগ্রামে। অগাধ প্রতিভা ও জ্ঞানের অধিকারী এই ব্যক্তিত্ব ১৮৯৭ সালে জন্মেছিলেন। তাঁর পিতার নাম শ্রীউপেন্দ্র নারায়ণ চৌধুরী ও মাতা সুশীলা সুন্দরী চৌধুরী। তিনি জীবনের অধিকাংশ সময় বিলেতে কাটিয়েছেন এবং সেখানেই লেখালেখির মাধ্যমে বিখ্যাত একজন পণ্ডিত হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছেন।

বাল্যকাল তাঁর কেটেছে গ্রামে ও কিশোরগঞ্জ শহরে। তিনি কিশোরগঞ্জ শহরের তৎকালীন রামানন্দ হাইস্কুলে কিছুকাল পড়েছেন। পরে তিনি কলিকাতায় চলে যান এবং সেখানেই লেখাপড়া করেন।

জানা যায়, তিনি ইতিহাসে অনার্স পরীক্ষায় প্রথম বিভাগে প্রথম স্থান লাভ করেছিলেন। মাস্টার্স শ্রেণিতে দুটি বিষয়ে পরীক্ষা দিয়ে তাঁর একাডেমিক পড়ার ইতি টানেন। তবে আনুষ্ঠানিক পড়াশোনার পাট চুকিয়ে দিলেও তিনি ছিলেন জ্ঞানপিপাসু একজন বিরল ব্যক্তিত্বের অধিকারী।

কলিকাতায় থাকাকালীন তিনি ‘মডার্ন রিভিউ’র সহকারী সম্পাদক, পরে জাতীয় কংগ্রেস নেতা শরৎচন্দ্র বসুর সচিব এবং দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় কলিকাতা রেডিওতে ভাষ্যকার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। ১৯৪২ সালে তিনি অল ইন্ডিয়া রেডিওতে চাকরি নিয়ে দিল্লি গমন করেন। অবশেষে তিনি অবসর নেন এবং ব্রিটিশ নাগরিকত্ব গ্রহণ করেন।

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের তিনি বিরোধিতা করেছিলেন। তাঁর এ বিরোধিতার কারণে তিনি দেশে ও বিদেশে নানাভাবে সমালোচিত ও বিতর্কিতও হয়েছেন।

শ্রীনীরদচন্দ্র চৌধুরীর বেশ কিছু গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে। অধিকাংশ গ্রন্থই ইংরেজিতে ও বাকিগুলো বাংলায় প্রকাশিত হয়েছে। তাঁর প্রকাশিত গ্রন্থগুলোর মধ্যে দশটি ইংরেজিতে, পাঁচটি বাংলায় প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়া বেশির ভাগ প্রবন্ধ ইংরেজিতে লেখা হয়েছে। তাঁর প্রথম ছাপা লেখা ইংরেজিতে ১৯২৫ সালে লিখিত হয়েছিল। তাঁর প্রথম ইংরেজি গ্রন্থ প্রকাশিত হয় ১৯৫১ সালে ও প্রথম বাংলা গ্রন্থ প্রকাশিত হয় ১৯৬৮ খ্রিস্টাব্দে।

তাঁর লেখা The Autobiography of an Unknown Indian অসাধারণ গ্রন্থ হিসেবে স্বীকৃত। তিনি নিজেই বইটি সম্পর্কে উল্লেখ করেছেন এভাবে, “এই বইটির জন্যই আমি ইংরেজীতে লেখক বলিয়া সুপ্রতিষ্ঠিত হই। উহা প্রকাশের পরই বিলাতে যেভাবে প্রশংসিত হইয়াছিল ও যেভাবে আলোচিত হইয়াছিল তাহা ইহার পূর্বে কোনও ভারতীয়ের লেখা ইংরেজী বই-এর বেলাতে দেখা যায় নাই, এমনকি জবাহরলাল নেহরুর আত্মজীবনীর জন্যও নয়।” (সূত্র : শারদীয় দেশ, ১৩৯৯ ব.)

এই গ্রন্থটির মাধ্যমে শ্রীনীরদচন্দ্র চৌধুরীর জন্মভূমির প্রতি গভীর ভালোবাসার উল্লেখ পাওয়া যায়। বিদেশ-বিভূঁইয়ে থেকেও তিনি তাঁর কিশোরগঞ্জকে ভোলেননি। তিনি তাঁর সেই বিখ্যাত গ্রন্থটির সূচনা করেছেন এইভাবে `Kishorganj My Birthplace’।

এ গ্রন্থে তিনি তাঁর শৈশব-কৈশোর এবং কিশোরগঞ্জের মাটি, মানুষ, নদী, প্রকৃতির বিশদ বর্ণনা করেছেন। গ্রন্থটিতে তিনি পাক-ভারত উপমহাদেশে ব্রিটিশ শাসনের বিস্তারিত বিবরণসহ এ শাসনকে এ অঞ্চলের মানুষের জন্য আশীর্বাদ বলে উল্লেখ করার প্রয়াস পেয়েছেন।

তাঁর বইটিকে ব্রিটিশরা উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করলেও এ দেশীয় সচেতন মানুষ গ্রহণ করেননি। এমনকি এজন্যে দেশে তাঁকে নানাভাবে বাধা-বিপত্তির সম্মুখীন হতে হয়েছিল। হয়তো সেজন্যই একদিন তিনি বিলেতপ্রবাসী হয়েছিলেন। তবে বিদেশ গমনের জন্য  তাঁর পত্নীর অনুরোধ ও চাপও ছিল।

এ কথা সত্য, তাঁর ইংরেজির উপর অসাধারণ দখল ছিল। তাঁর প্রকাশিত প্রতিটি গ্রন্থ দারুণভাবে সমাদৃত ও আলোচিত হতো। ১৯৫৯ সালে প্রকাশিত হয় তাঁর দ্বিতীয় গ্রন্থ A Passage to England. এটি প্রকাশের পর এর প্রশংসা প্রায় প্রতিটি ইংরেজি পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছিল।

জানা যায়, তাঁর প্রকাশিত ইংরেজি বইয়ের মধ্যে এটিই সর্বাধিক বিক্রি হয়। দুই বছরের মধ্যে এর সাতটি সংস্করণ প্রকাশিত হয়েছিল। এ গ্রন্থের উপজীব্য বিষয় ছিল ইংল্যান্ড ও ইংরেজদের জীবন ও সভ্যতা। তাঁর তৃতীয় ইংরেজি বই হলো The Continent of Circe. এ বইটির জন্য তিনি ডাফ-কুপার পুরস্কার লাভ করেন। কোনো বিদেশি লেখক এ পুরস্কার পাননি। তবে যেসব ইংরেজ লেখক এ পুরস্কার পেয়েছেন তাঁদের মধ্যে লরেন্স ডাবেল, জন বেচম্যান, মাইকেল হাওয়ার্ড ও প্র“স্তের বিখ্যাত জীবনীপ্রণেতা জর্জ পেন্টার অন্যতম। ইংল্যান্ডের রানি তাঁকে ১৯৯৩ সালে C.B.C. উপাধিতে ভূষিত করেন।

শ্রীনীরদচন্দ্র চৌধুরীর প্রথম বাংলা গ্রন্থ ‘বাঙালী জীবনে রমণী’ ১৯৬৮ সালে প্রকাশিত হয়। তাঁর দ্বিতীয় বাংলা গ্রন্থ হচ্ছে ‘আত্মঘাতী বাঙালী’। এর জন্য তিনি পান অক্সফোর্ডের ডি-লিট পুরস্কার। তাঁর ‘দ্য ল্যান্ড গ্রেট অ্যানার্ক’ গ্রন্থের জন্য তিনি আনন্দ পুরস্কার লাভ করেন। তিনি ছিলেন বহুভাষাবিদ এবং বাংলা সাহিত্যচর্চার পাশাপাশি ভূগোল, প্রাণীতত্ত্ব, শিল্পকলা, স্থাপত্য, পাশ্চাত্য সঙ্গীত ও রণকৌশল-ইতিহাস গবেষক।

১৯৫১ সালে তাঁর আত্মজীবনীর প্রথম খণ্ড প্রকাশিত হয়। এতে মহাত্মা গান্ধী, সুভাষ বসু এবং পাক-ভারতের স্বাধীনতা-উত্তর রাজনীতি, চীন ও পাকিস্তানের সাথে ভারতের যুদ্ধবিষয়ক মন্তব্যে তিনি সমালোচনার সম্মুখীন হন। পরে তিনি বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে মন্তব্য করেও বিতর্কের মুখে পড়েন। ফলে নন্দিত লেখক ও স্কলার হয়েও দেশে-বিদেশে তাঁকে বিতর্কিত হতে হয়েছে।

বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী ও ‘শনিবারের চিঠি’র একজন প্রখ্যাত লেখক নীরদচন্দ্র চৌধুরী ব্যক্তিগত জীবনে একজন কেতাদুরস্ত ও শৌখিন মানুষ ছিলেন। বাড়িতে ধুতি-পাঞ্জাবি পরতেন। তবে বাইরে একান্তই বিলেতি ছিলেন। তিনি বিয়ে করেছিলেন ১৯৩২ খ্রিস্টাব্দে। তাঁর স্ত্রীর নাম ছিল অমিয়া। তাঁদের তিন সন্তান ধ্রুব, কীর্তি ও পৃথ্বী।

তাঁর ভিন্ন মতের কারণে একসময় দেশে তাঁর লেখা প্রকাশে ‘বয়কট’ চলছিল। পরে তা উঠে গেলে প্রথমেই তাঁর লেখা ‘স্টেটসম্যানে’ প্রকাশিত হয়। তারপর ইংরেজি দৈনিক ‘Hindusthan Standard’-এ নিয়মিতভাবে সপ্তাহে একটি করে প্রবন্ধ শুরু করেন। পরে ‘দেশ’ পত্রিকায়ও লিখতে আরম্ভ করেন। এ সময় গজেনবাবুও এগিয়ে এলেন এবং তাঁদের মাসিকপত্র ‘কথাসাহিত্যে’ প্রবন্ধ লেখা শুরু করেন। পরে তাঁরাই তাঁর প্রথম বাংলা বই ‘বাঙালী জীবনে রমণী’ ১৯৬৮ সালে প্রকাশ করলেন। এভাবেই তিনি আবার সুপ্রতিষ্ঠা লাভ করেন।

শ্রীনীরদচন্দ্র চৌধুরী ১৯৫৫ সালে প্রথম বিলেতে যান। সেটি ছিল বিবিসি ও ব্রিটিশ কাউন্সিলের অর্থায়নে। শর্ত ছিল, তারা তাঁকে সেখানকার দ্রষ্টব্য জিনিস দেখাবে এবং তাঁকে কেবল প্রতিটি ৪০ মিনিটের চারটি ‘talk’ দিতে হবে। এর পর দ্বিতীয়বার ১৯৬৭ সালে ডাফ-কুপার মেমোরিয়াল সাহিত্যিক পুরস্কার গ্রহণের জন্য তিনি বিলেতে যান।

এরপর ১৯৬৮ সালে বিখ্যাত পণ্ডিত ও ভারতপ্রেমিক অধ্যাপক ফ্রেডরিখ ম্যাক্সমুলারের জীবনী লেখার জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়ে সস্ত্রীক এবং ১৯৭০ সালে চতুর্থবার সস্ত্রীক বিলেতে গেলেন বিখ্যাত পুস্তক-প্রকাশক ওয়াইডেনফেলড অ্যান্ড নিকলসন কোম্পানির জন্য হিন্দুধর্ম সম্বন্ধে একটি গ্রন্থ রচনা করার চুক্তিবদ্ধ হয়ে। সেখানে যাওয়ার পর এক পর্যায়ে তাঁর স্ত্রীর অনুরোধে অক্সফোর্ডে তিনি স্থায়ী হয়ে গেলেন।

এই পণ্ডিত ব্যক্তিত্ব বিদেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘লেকচার’ দেয়ার জন্য আমন্ত্রিত হয়েছেন। তিনি শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয়ে লেকচার দেন। ১৯৭৬ খ্রিস্টাব্দের শেষ দিকে তিনি কানাডার এগারোটি বিশ্ববিদ্যালয়ে বক্তৃতা করার আমন্ত্রণ পান। তখন তিনি আমেরিকার তিনটি বিশ্ববিদ্যালয়েও আমন্ত্রিত হয়ে বক্তৃতা করেন। তিনি অস্টিনে টেক্সাস বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রফেসর পদে ছয় মাস দায়িত্ব পালন করেন।  এভাবে তাঁর যথেষ্ট অভিজ্ঞতা অর্জনের পাশাপাশি বিরাট অংকের আর্থিক লাভও ঘটেছিল।

পণ্ডিত নীরদচন্দ্র চৌধুরী ছিলেন বিভিন্ন বিষয়ে জ্ঞানের ভাণ্ডার। ইতিহাস, রাজনীতি, ভূগোল, সমরনীতি, সঙ্গীত বিষয়েও তিনি ছিলেন পারদর্শী চিন্তক। তাঁর প্রতিটি ইংরেজি প্রবন্ধ উচ্চমূল্যে পত্রিকাগুলো কিনে নিত। বাংলা সাহিত্যেও তাঁর সাবলীল বিচরণ ছিল। একজন উৎকৃষ্ট চিন্তক ও বাঙালি লেখক হিসেবে তিনি চিরকাল বেঁচে থাকবেন।

বিপুল মনীষার অধিকারী কিশোরগঞ্জের এ কৃতী ব্যক্তিত্ব ১০১ বছর বয়সে ১৯৯৯ খ্রিস্টাব্দের ১২ জুলাই অক্সফোর্ডে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর