কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভেষজ উদ্ভিদ পুদিনা


 মোহাম্মদ নূর আলম গন্ধী | ২৫ নভেম্বর ২০১৯, সোমবার, ১:৩২ | রকমারি 


পুদিনা গুল্মজাতীয় ভেষজ উদ্ভিদ। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে পুদিনা জন্মে। এর ইংরেজি ও অন্যান্য স্থানীয় নাম Mint, Mentha, Menthol plant ইত্যাদি। পরিবার Lamiaceae, উদ্ভিদ তাত্ত্বিক নাম Mentha arvensis. এর আদিনিবাস জাপান, থাইল্যান্ড, চীন, ইন্দোনেশিয়া ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশ।

তাছাড়া বাংলাদেশ, ভারত, আফ্রিকা ও অষ্টেলিয়ার বিভিন্ন অঞ্চলে এর দেখা মিলে। পৃথিবীজুড়ে প্রায় ৬৫০ প্রজাতির পুদিনার দেখা মিলে এদের অধিকাংশই বহুবর্ষজীবি এবং কিছু পরিমাণ পুদিনা রয়েছে যারা একবর্ষজীবি। গাছ দ্রুতবর্ধনশীল। উচ্চতা গড়ে ৬০ সেন্টিমিটার। রয়েছে এর ভূগর্ভস্থ রাইজোম ও শাখা-প্রশাখা।

পাতা গন্ধযুক্ত ও গাঢ় সবুজ রঙের এবং কোন কোন ক্ষেত্রে ধুসর সবুজ। পাতার কিনারা করাতের মতো খাঁজ কাটা ও তাতে ছোট কাঁটা থাকে। লম্বায় প্রায় ৫ সেন্টিমিটার। খাড়া পুস্পদন্ডে হাল্কা বেগুনী রঙের ক্ষুদ্রাকৃতি ফুল গুচ্ছভাবে ধরে। ফুল শেষে গাছে ফল হয়। ফল আকারে ক্যাপসুলের মতো এবং এর ভেতর থাকে ক্ষুদ্র আকারের বীজ।

পুদিনা বেলে দো-আঁশ থেকে দো-আাঁশ মাটিতে সবচেয়ে ভাল জন্মে। ভেজা হাল্কা স্যাঁতস্যাঁতে মাটি যেখানে পানি জমেনা এরূপ স্থান এবং রৌদ্রউজ্জল থেকে হাল্কা ছায়াযুক্ত স্থানে ও বাসা-বাড়ির ছাদের টবে ও বেলকনির টবেও চাষ করা যায়। সাধারণত আর্দ্র আবহাওয়া ও আর্দ্র মাটিতে ভাল জন্মে। তবে পুদিনা দাঁড়ানো পানি সহ্য করতে পারেনা পানি নিকাশের ব্যবস্থা রাখতে হবে এবং প্রয়োজনে সেচ দিতে হবে।

কাটিং চারার মাধ্যমে এর বংশ বিস্তার করা হয়। কাটিং চারার ক্ষেত্রে ১০ সেন্টিমিটার দৈর্ঘ্য করে কাটিং নিতে হবে। চাষাবাদের জন্য পুদিনার ভাল ও জনপ্রিয় জাত-পিপারমিন্ট, স্পিয়ারমিন্ট ও আ্যাপেলমিন্ট।

সাধারণত নভেম্বর-ডিসেম্বর মাসে কাটিং চারা লাগানো হয়। তাছাড়া জমিতে পর্যাপ্ত রস থাকলে বছরের যে কোন সময়ই লাগানো যায়। প্রতি ৩০ সেন্টিমিটার দূর দূর কাটিং চারা লাগাতে হবে।

ভেষজগুণে গুণান্বিত পুদিনার রয়েছে বহু রকম ভেষজ গুণ-বদহজম, বমি,উদরাময়, মাথা ধরা নিয়ন্ত্রণ, কাশি, পেশী সংকোচন নিয়ন্ত্রয়ণ, অ্যাজমা, ফুসফুস-শ্বাসনালী পরিস্কারে, স্তন ও লিভার ক্যানসার ও ত্বকের ক্যানসার প্রতিরোধে বিশেষ কার্যকরী।

এছাড়া চা, পানীয়, জেলি, সিরাপ, ক্যান্ডি ও আইসক্রিমের সাথে ব্যবহার হয়। আমদের দেশে পুদিনার চাটনি, সালাদ ও ভর্তার বেশ কদর রয়েছে এবং এর মিন্ট অয়েল হতে প্রাপ্ত মেন্থল বহু কসমেটিক্স ও পারফিউম তৈরির প্রধান উপাদান।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর