কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বিয়াম ল্যাবরেটরি স্কুলে কচি প্রাণের উচ্ছ্বাস


 স্টাফ রিপোর্টার | ২৫ নভেম্বর ২০১৯, সোমবার, ১১:৫০ | কলকাকলি 


কিশোরগঞ্জে বিয়াম ল্যাবরেটরি স্কুলে ক্লাস পার্টি অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার (২৫ নভেম্বর) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত নানা আনন্দ আয়োজনে বিদ্যালয়টি প্রাণের উচ্ছ্বাসে মুখরিত করে রাখে শিক্ষার্থীরা। সাজানো-গোছানো বিদ্যালয়ের প্রতিটি শ্রেণিকক্ষে পৃথকভাবে প্লে-গ্রুপ থেকে অষ্টম শ্রেণির ছাত্র-ছাত্রীরা কেক কাটা, হৈ-হুল্লোড়, নাচ-গান আর খাওয়া-দাওয়ার মধ্য দিয়ে ছড়িয়ে দেয় কচি প্রাণের উচ্ছ্বাস।

ছাত্র-ছাত্রীদের এই আনন্দ আয়োজনে বাদ যাননি শিক্ষক-শিক্ষিকারাও। তারাও ছাত্র-ছাত্রীদের সাথে এসব আনন্দ আয়োজনে অংশ নিয়ে দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখেন।

বিদ্যালয়টির ২০১৯ শিক্ষাবর্ষের শেষ ক্লাসকে উপলক্ষ করে এই ক্লাস পার্টির আয়োজন করা হয়। শিক্ষার্থীদের এই প্রাণময় উৎসবকে নিজের আন্তরিক উপস্থিতি আর স্বতস্ফূর্ত অংশগ্রহণ দিয়ে রাঙিয়ে দেন বিয়াম ল্যাবরেটরি স্কুলের অধ্যক্ষ ও কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান।

এতে আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে যোগ দেন সিনিয়র সাংবাদিক সাইফুল হক মোল্লা দুলু, মোস্তফা কামাল, আশরাফুল ইসলাম, জেলা স্কাউটের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আউয়াল মুন্না সহ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ। এছাড়াও জেলা প্রশাসনের বেশ কয়েকজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ক্লাস পার্টিতে উপস্থিত ছিলেন।

ক্লাস পার্টিকে উপলক্ষ করে বিদ্যালয়ের সবকটি শ্রেণিকক্ষের প্রতিটিতে অভিনব ও সুন্দর করে বানানো হয় মঞ্চ, সেখানে রাখা হয় বিভিন্ন ডিজাইনের নান্দনিক সব বিশাল কেক। ওই কেককে ঘিরে একেকটি শ্রেণির শিক্ষার্থীদের চলে নাচ-গানসহ নানা আনন্দ আয়োজন।

শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি বিপুল সংখ্যক অভিভাবকের প্রাণময় উপস্থিতিতে উৎসবের রূপ নেয় ক্লাস পার্টির আয়োজন।

বিদ্যালয়ের ভাইস-প্রিন্সিপাল হামিম খান ক্লাস পার্টির পুরো আয়োজন তদারকি করেন। ল্যাবরেটরি স্কুলের অধ্যক্ষ ও কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান আমন্ত্রিত অতিথিদের সাথে নিয়ে কেক কেটে প্রতিটি শ্রেণিকক্ষের ক্লাস পার্টির উদ্বোধন করেন। এর আগে প্রতিটি শ্রেণিকক্ষে ফিতা কাটা হয়। ছাত্র-ছাত্রী, অভিভাবক, শিক্ষক-শিক্ষিকাসহ ক্লাস পার্টিতে অংশ নেয়া সবাই ছবি তোলাসহ প্রাণের উচ্ছ্বাসে মাতিয়ে রাখেন পুরোটা সময়।

বিদ্যালয়ের ভাইস-প্রিন্সিপাল হামিম খান বলেন, বছরের এই একটি দিন ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য উন্মুক্ত। নিয়মমাফিক ক্লাশের বাইরে গিয়ে এই দিনটি তারা আনন্দ-বিনোদনের মধ্য দিয়ে পার করে। এর মাধ্যমে সারা বছরের ক্লাসের একঘেঁয়েমি থেকে বেরিয়ে এসে তারা পরীক্ষার জন্য নিজেকে সজিব করে তুলতে পারে। আমরা শিক্ষক-শিক্ষিকারাও তাদের এই আনন্দ ভাগাভাগি করে নেই।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর