কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কালনী নদীর কাল 'ভিন জাল'


 শাহআলম সরকার | ২৬ নভেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার, ১:২৬ | মত-দ্বিমত 


হাওর (সাগর সদৃশ) কথাটির শব্দে মিশে আছে মানুষের পশ্চাৎপদতা ও বঞ্চনার চলমান করুণ বাস্তবতা। সরকার বাহাদুর ইতিমধ্যে ১৬টি উপজেলাকে যোগাযোগ, শিক্ষা, চিকিৎসা অন্যান্য বাস্তবতা উপলব্ধি করে  বিশেষ অঞ্চল ঘোষণা করেছে। যা রাষ্ট্রের হাওর বাওড় চর দ্বীপের বঞ্চিত নিগৃহীত মানুষের প্রতি ভালবাসার নির্দশন।

সেই এক দশক আগেও হাজার হাজার ফসলি জমির মাঠ- প্রান্তর, খাল-বিল, ধুলোময় পথ, কখনো কাঁদা মাটির রাস্তা পেরিয়ে নিতে হত মৌলিকতার চিকিৎসা ও যোগাযোগের স্বাদ।  কেননা নদী কালনী শুকিয়ে চৌচির তাই। এপার হতে ওপার হেঁটে নদী পারাপার সহসাই হওয়া যেত।পানির অভাবে দূর্গম হাওরে সেচ বন্ধ- এসবই ছিল একদশক আগের কালনী নদীর ইতিহাস।

হাওরের মানুষের দুর্গতি দেখে  মহামান্য রাষ্ট্রপতির কল্যাণে সরকার এই গুরুত্বপূর্ণ কালনী নদীর খনন কাজ শুরু করে এবং নাব্যতা ফিরিয়ে আনে। হাজার হাজার জমিতে ফসল ফলাতে সেই নদীকে খরস্রোতা করে ভারত বাংলাদেশের নৌ যোগাযোগের উপযোগি করে। কিন্তু মানুষ নামক কিছু অমানুষদের স্বার্থপরতায় বিলীন হতে যাচ্ছে মানুষের স্বপ্ন।

থেমে নেই মানুষরূপী হায়ানাদের থাবা। এই চলতি নদীতে মাছ ধরতে ভিন জাল, খেউ (আঞ্চলিক ভাষায়)  দিয়ে নদী ভরাট করতে তারা এতটুকু ভাবছে না। ব্যক্তি স্বার্থে হাওরের ভাগ্যকে কবর দিচ্ছে তারা। এতে নদী ভরাট সহ নদী ভাঙন হয়তো আবার ঘটবে!

অষ্টগ্রামের কদমচাল, কলিমপুর, কলমা, আদমপুর ও বাংগালপাড়া হয়ে কালনীর শেষ পর্যন্ত এই ভিন জালের  অবিচার চলছেই । এতে পানির স্বাভাবিক প্রবাহ, নৌ যোগাযোগ, নদী ভাঙন, নদী ভরাটসহ নানাবিধ সমস্যার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

মহামান্য রাষ্ট্রপতির  বারংবার কঠোর মনোভাব দেখানোর পরও মুষ্ঠিমেয় স্বার্থবাদীরা পরোয়া করছে না। ভাটির এই গুরুত্বপূর্ণ নদীটির এমন অনাচার রোধে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছি। নয়তো সরকারের হাজার কোটি টাকার চলমান প্রকল্প ভেস্তে যাবে এ বেপরোয়া বিবেকশূন্য মানুষদের জন্য।

শাহআলম সরকার, সহকারী শিক্ষক (মাধ্যমিক), আব্দুল্লাপুর, অষ্টগ্রাম, কিশোরগঞ্জ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর