কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


জন্মদিনে শুভেচ্ছায় সিক্ত করিমগঞ্জের সর্বজন শ্রদ্ধেয় রাজনীতিবিদ বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ইকবাল


 স্টাফ রিপোর্টার | ২৭ নভেম্বর ২০১৯, বুধবার, ১১:২৪ | করিমগঞ্জ  


জন্মদিনে ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত হয়েছেন করিমগঞ্জের সর্বজন শ্রদ্ধেয় রাজনীতিবিদ, ৭০ এর দশকের তুখোড় ছাত্রনেতা, করিমগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ইকবাল।

তাঁর ৬৮তম জন্মদিন উপলক্ষে বুধবার (১২ অগ্রহায়ণ, ২৭ নভেম্বর) উপজেলা শিল্পকলা পরিষদে প্রশাসনের কর্মকর্তাসহ, বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ তাঁকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান।

এছাড়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে তাঁকে দিনভর জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানান গুণগ্রাহী ও শুভানূধ্যায়ীরা।

১২ অগ্রহায়ণ ১৩৫৯ বঙ্গাব্দে করিমগঞ্জ পৌরসভার আয়লা গ্রামে মরহুম ডাঃ আব্দুল করিম ও রাজিয়া সুলতানার ২য় সন্তান মোঃ ইকবাল জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বড় ভাই বীর মুক্তিযোদ্ধা হারুন-অর রশীদ করিমগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এবং করিমগঞ্জে স্বাধীন বাংলার প্রথম পতাকা উত্তোলনকারী।

মোঃ ইকবাল ছিলেন উপজেলা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা প্রচার সম্পাদক। ছাত্রাবস্থায় সরকারি দপ্তর থেকে আইয়ুব খানের ছবি নামিয়ে ভাঙচুর করার দায়ে তাঁর বিরুদ্ধে তখন হুলিয়া জারি করা হয়েছিলো।

একজন তুখোড় বক্তা ও ছাত্রনেতা হিসেবে ৭০ এর নির্বাচনে তিনি সৈয়দ নজরুল ইসলামের স্নেহ ধন্য হয়ে তাঁর সাথে নির্বাচনী প্রচারণা চালান। পরবর্তীতে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে ভারতে মুজিব বাহিনীর সদস্য হিসেবে ট্রেনিং সমাপ্ত করে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন।

১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পর আওয়ামীলীগের চরম দুঃসময়ে মুক্তিযোদ্ধা ইকবাল দলের হাল ধরেন। কারা নির্যাতনের শিকার হয়েও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দলকে এবং একই সাথে ছাত্রলীগকে সংগঠিত করেন।

টানা দুই দশক আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে রাজপথে আন্দোলন সংগ্রাম করেন। দল পরিচালনা করতে গিয়ে নিজের কাপড়ের দোকান ও জমি বিক্রি করেন।

একজন সৎ, আদর্শবান ত্যাগী রাজনীতিবিদ হিসেবেই নয়, করিমগঞ্জের শিক্ষা ও সংস্কৃতিতে তার রয়েছে অনবদ্য অবদান। করিমগঞ্জ উপজেলা পাঠাগারের সাধারণ সম্পাদক, শিল্পকলা পরিষদের পৃষ্ঠপোষক, সাহিত্য পরিষদ ও লেখক সংঘের উপদেষ্টা, করিমগঞ্জ বাজার বণিক সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক, করিমগঞ্জ পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সভাপতি, মুক্তিযুদ্ধ গণ গবেষণা কেন্দ্র করিমগঞ্জের সভাপতি সহ অসংখ্য সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে তিনি সম্পৃক্ত রয়েছেন।

করিমগঞ্জের প্রবীণ রাজনীতিবদ হিসেবে সার্বক্ষণিক তিনি রাজনীতির পাশাপাশি জনকল্যাণমুখী কাজে সম্পৃক্ত। বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ইকবালের স্ত্রী মর্জিনা আক্তার একজন নিভৃতচারী নারী হিসেবে তার স্বামীকে জনসেবায় প্রেরণা দিয়ে যাচ্ছেন।

ছেলে তানভীর সালেহীন ইমন কুমিল্লা সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে সততা, সুনাম ও দক্ষতার সাথে কাজ করছেন। বড় মেয়ে ইয়াকুতুন্নেসা তুষা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক, মেঝো মেয়ে ইরিন তানভীর এশা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজ বিজ্ঞানে মাস্টার্স সম্পন্ন করেছেন এবং ছোট মেয়ে ফারহানা তানভীর ইমা কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিভাগে অধ্যযনরত।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর