কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরবে নিজ বাসায় রেলওয়ে কর্মচারী নিহত, স্ত্রী আহত, রহস্যের খোঁজে পুলিশ


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ২৮ নভেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১১:২২ | ভৈরব 


ভৈরবে নিজ বাসায় মাহবুবুর রহমান নামে এক রেলওয়ে কর্মচারী রহস্যজনকভাবে নিহত হয়েছেন। পৌর শহরের চ-িবের উত্তর পাড়া এলাকায় বৃহস্পতিবার (২৮ নভেম্বর) ভোর রাতে মর্মান্তিক এই ঘটনাটি ঘটেছে। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী রোকসানা বেগমও আহত হন।

তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য বাজিতপুর জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছেন।

তবে বাসায় কোনো দুর্বৃত্ত ঢুকে এ হ’ত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে তার কোন আলামত পায়নি পুলিশ। ফলে বিষয়টিকে রহস্যজনক মনে করছেন আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা। নিহতের মরদেহের পাশ থেকে একটি ছুরি উদ্ধার করা হয়।

নিহতের স্বজনেরা জানায়, নিহত মাহাবুব তিন সন্তানের জনক। মাহাবুব বাংলাদেশ রেলওয়ে ঢাকা এস ফিডার লুকো সেটে চাকুরী করেন। তিনি সাপ্তাহিক ছুটিতে প্রতি বৃহস্পতিবার বাড়িতে আসতেন। প্রতিবারের ন্যায় তিনি সাপ্তাহিক ছুটিসহ দুদিন ছুটি বাড়িয়ে বুধবার (২৭ নভেম্বর) সন্ধ্যায় বাড়িতে আসেন।

রাতের আঁধারে কোন এক সময় ঘুমের মধ্যে ছুরিকাঘাতে নিহত হন মাহাবুব। পরদিন বৃহস্পতিবার (২৮ নভেম্বর) ভোরে স্বজনদের চিৎকার-আর্তনাদে এলাকাবাসী ঘটনাস্থলে গিয়ে খাটের উপর মাহাবুব রহমানের মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশকে খবর দেন।

ঘটনাটিকে রহস্যজনক মনে করছেন নিহতের স্বজনরা। স্বজনেরা বলছেন, নিহতের স্ত্রী রোকসানা একেক সময় একেক বিভ্রান্তিকর তথ্য দিয়ে মৃত্যুর রহস্য আরো ঘণিভূত করছেন।

নিহতের ছোট ভাই আল আমিন জানান, ভোর সাড়ে ৪টায় নিহত বড় ভাইয়ের ছেলে আজিজুল ফোন করে বাবার নিহত হওয়ার কথা জানায়। সে আরো জানায়, ছেলে মেয়েদের চিৎকারে পাশের বাড়ির প্রতিবেশীরা গিয়ে তাদের উদ্ধার করে।

নিহতের স্ত্রী রোকসানার দাবি, গভীর রাতে কে বা কারা তাদের ঘরে ঢুকে হা’মলা করে। তবে তাদের ডাকাত দল বলে সন্দেহ করা হচ্ছে এবং তারা স্বর্ণালংকার ও টাকা নিয়ে যায়। ডাকাতিকালে নিহত মাহাবুবকে একাধিক ছুরিকাঘাত করে ডাকাতদল এবং তিনি বাধা নিষেধ দিলে তাকেও ছুরি দিয়ে দুই হাতে আঘাত করে। একাধিক ছুরিকাঘাতে মাহাবুব রক্তরণ হয়ে মারা যায়।

নিহতের ভাই সিনিয়র সাংবাদিক হাবিবুর রহমান জানান, আমি ও আমার ছোট ভাই আল আমিন পরিবার নিয়ে ঢাকায় বসবাস করি। আমার ভাই মাহাবুবও চাকুরীর সুবাধে ঢাকায় বসবাস করে। সে তেজগাঁও রেলওয়ে শ্রমিক নেতা ছিল। তার পরিবার ভৈরবের বাড়িতে থাকে। সে সুবাধে প্রতি সাপ্তাহিক ছুটিতে বাড়িতে আসে।

বুধবার (২৭ নভেম্বর) দিবাগত রাত সাড়ে ৪টার দিকে মা-বোনের আর্তনাদ শুনে ঘুম থেকে উঠে শুনি, কে বা কারা আমার ছোট ভাই মাহাবুবকে ভৈরবের বাড়িতে মেরে ফেলে গেছে। খবর পেয়ে মা বোনকে নিয়ে ঢাকা থেকে ভৈরবে আসি। তবে বাড়িতে এসে দেখি বাড়ির মেইন গেইট, দরজা, ঘরের জিনিসপত্র সব কিছুই অক্ষত রয়েছে।

কিন্তু ডাকাতের মাধ্যমে আমার ভাই নিহত হওয়ার কোন আলামত পাইনি। ঢাকা থেকে ভৈরব থানা পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ এসে ঘটনাস্থল থেকে আমার ভাইয়ের মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

এ সময় তিনি বলেন, আমার ভাইকে পরিকল্পিতভাবে হ’ত্যা করা হয়েছে।

এদিকে হ’ত্যাকাণ্ডের খবর পেয়ে ভৈরব খানা পুলিশ ও র‌্যাব সদস্যরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ভৈরব থানার পরিদর্শক (তদন্ত) বাহালুল খান বাহার জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করি। সেই সাথে নিহতের স্ত্রী রোকসানাকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য বাজিতপুর জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান।

এছাড়া ময়নাতদন্তের জন্য মাহাবুবের মরদেহ কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে এবং বাদীর অভিযোগে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার প্রস্তুতি চলছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর