কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


দেবর-ভাবির পরকীয়ার বলি রেলওয়ে কর্মচারী মাহাবুব


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ১ ডিসেম্বর ২০১৯, রবিবার, ৭:২৮ | ভৈরব 


ভৈরবে নিজ বাসায় মাহাবুবুর রহমান নামে রেলওয়ের এক কর্মচারীর নিহত হওয়ার রহস্যের জট খুলেছে। নিহত মাহাবুবুর রহমানের স্ত্রী রোকসানা আক্তার ও দেবর (নিহতের চাচাতো ভাই) হাসিব মিয়ার পরকীয়া বলি হয়েছেন এই রেলওয়ে কর্মচারী।

পুলিশ জানায়, হাসিবের সঙ্গে রোকসানার অবৈধ প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠেছিল। এতে পথের কাঁটা ছিল স্বামী মাহাবুবুর রহমান। ফলে তাকে সরানোর পরিকল্পনা করে রোকসানা-হাসিব।

পরিকল্পনার অংশ হিসেবে মাহাবুবকে পায়েসের সঙ্গে প্রায় ৩০টি ঘুমের ট্যবলেট খাওয়ানো হয়। পরে তাদের কিলিং মিশন সম্পন্ন করা হয়।

গত বুধবার (২৭ নভেম্বর) গভীর রাতে কিশোরগঞ্জের ভৈরবে পৌর শহরের চন্ডিবের আইভি রহমান পাড়ায় এই ঘটনার পর ডাকাতির নাটক সাজায় স্ত্রী রোকসানা আক্তার।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ভৈরব থানার পরিদর্শক (তদন্ত) বাহালুল খান বাহার জানান, শনিবার (৩০ নভেম্বর) সকালে সন্দেহভাজন হিসেবে হাসিবকে তার বাড়ি থেকে আটক করা হয়। পরে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে হাসিব এ ঘটনায় নিজের সম্পৃক্তার বিষয়টি স্বীকার করে।

পরে হাসিবের দেয়া তথ্য অনুযায়ী রাতে বাড়ির কাছের একটি কচুক্ষেত থেকে কিলিং মিশনে অংশ নেয়ার সময় হাসিবের পরনের রক্তমাখা শার্ট ও প্যান্ট উদ্ধার করা হয়। ফলে রাতেই তাকে এই মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

এছাড়া বাজিতপুর জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নিহত মাহাবুবের স্ত্রী রোকসানাকেও গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। রোকসানাও স্বামীর কিলিং মিশনে অংশ নেয়ার বিষয়টি স্বীকার করে।

নিহতের স্বজনরা জানায়, মাহাবুব রেলওয়ে ঢাকা বিভাগীয় যান্ত্রিক প্রকৌশল বিভাগের এসএস ফিটার পদে কর্মরত ছিলেন। প্রায় এক যুগ আগে মাহাবুব-রোকসানার বিয়ে হয়। তাদের সংসারে তিন সন্তান রয়েছে। সাপ্তাহিক ছুটিতে প্রতি বৃহস্পতিবার বাড়িতে আসতেন নিহত মাহাবুব।

কিন্তু গত সপ্তাহে এক দিন আগেই অর্থাৎ বুধবার (২৭ নভেম্বর) রাতে বাড়িতে আসেন মাহাবুব। পরে রাতের আঁধারে বেডরুমে নিহত হন তিনি।

এ ঘটনায় নিহতের বড় ভাই হাবিবুর রহমান বাদী হয়ে মাহবুবের স্ত্রী রোকসানাকে সন্দেহের তালিকায় রেখে অজ্ঞাতনামা ৪ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ভৈরব থানার পরিদর্শক (তদন্ত) বাহালুল খান বাহার আরো জানান, শুরু থেকেই নিহতের স্ত্রীকে সন্দেহের তালিকায় রাখা হয়। আর মুঠোফোনের সূত্র ধরে হাসিবকে শনাক্ত করা হয়। আটকের পর হাসিব রোকসানার সঙ্গে প্রেমের কথা স্বীকার করেন। তারা মনে করেছিলেন, মাহাবুবকে সরিয়ে দিতে পারলে তাদের পথের বাধা দূর হয়ে যাবে। এরপরই তারা কিলিং মিশনে নামে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর