কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পাকুন্দিয়ায় প্রেমিকা বধূর সাথে দেখা করতে গিয়ে লাশ, বিচার দাবিতে বিক্ষোভ মানববন্ধন


 সাখাওয়াত হোসেন হৃদয় | ২ ডিসেম্বর ২০১৯, সোমবার, ৬:৩৭ | পাকুন্দিয়া  


কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার হোসেন্দী দাখিল মাদ্রাসার নবম শ্রেণির ছাত্র ইকরাম হোসেন রাহাতকে পিটিয়ে ও বিষ খাইয়ে হত্যা করার অভিযোগ উঠেছে। রাহাত হত্যার সাথে জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে সোমবার (২ ডিসেম্বর) বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্ধন ও সড়ক অবরোধ কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।

দুপুর দেড়টার দিকে হোসেন্দী দাখিল মাদ্রাসা, হোসেন্দী উচ্চ বিদ্যালয় ও এলাকাবাসীর ব্যানারে উপজেলা পরিষদ গেটের সামনে কিশোরগঞ্জ-ঢাকা সড়কে ঘন্টাব্যাপী এসব কর্মসূচি পালন করা হয়।

মানববন্ধন চলাকালে বক্তব্য দেন, হোসেন্দী দাখিল মাদ্রাসার সুপার মাওলানা মো. সালাহ উদ্দিন, হোসেন্দী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আমজাদ হোসেন সবুজ, হোসেন্দী ইউনিয়ন ছাত্রলীগ নেতা আমরু প্রমুখ।

বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, হোসেন্দী নয়াপাড়া গ্রামের রেনু মিয়ার ছেলে ইকরাম হোসেন রাহাত। সে হোসেন্দী দাখিল মাদ্রাসায় নবম শ্রেণিতে পড়তো। এ সুবাদে তার সহপাঠী জেরিন আক্তারের সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। জেরিন উপজেলার সাটিয়াদী গ্রামের আলাউদ্দিনের মেয়ে।

প্রেমের সম্পর্ক থেকে গত ২০ অক্টোবর কিশোরগঞ্জ আদালতে নোটারী পাবলিকের মাধ্যমে জেরিনকে বিয়ে করে রাহাত। বিয়ের পর রাহাতের বাড়িতে তারা একসঙ্গে কয়েক দিন ঘর সংসারও করে। একপর্যায়ে গত ১১ নভেম্বর জেরিন বাপের বাড়ি চলে যায়। এতে মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়ে রাহাত।

গত ১৬ নভেম্বর রাহাতের বন্ধু পার্শ্ববর্তী মোকামপাড়া গ্রামের হাসানের সাথে কথা বলে সে রাহাতকে জানায়, জেরিন তার খালার বাড়ি আজলদী গ্রামে আছে। এমন খবরে রাহাত ওই দিন রাতেই আজলদী গ্রামে জেরিনের খালার বাড়িতে যায়।

সেখানে যাওয়ার পর জেরিনকে তালাক দিতে বলা হয়। রাহাত এতে সম্মত না হওয়ায় তাকে বেঁধে বেদম মারধর করে। এক পর্যায়ে রাহাত পানি খেতে চাইলে তার মুখে পানি না দিয়ে কীটনাশক ঢেলে দেওয়া হয়।

এতে রাহাতের অবস্থা খারাপ হতে থাকলে তাকে পাকুন্দিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। পরে অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য রাহাতকে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে স্থানান্তর করে। সেখানে ১০ দিন পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২৫ নভেম্বর রাহাত মারা যায়।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর