কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরব-ময়মনসিংহ ১শ’ ৩২ কিলোমিটার রেলপথের বেহাল দশা


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ৪ ডিসেম্বর ২০১৯, বুধবার, ১২:৫২ | বিশেষ সংবাদ 


নিরাপদ ও আরামদায়ক ভ্রমণ মনে করে ভৈরব-ময়মনসিংহের ১শ’ ৩২ কিলোমিটার রেলপথে প্রতিদিন হাজার হাজার যাত্রীরা দেশের বিভিন্ন গন্তব্যে চলাচল করছেন। অথচ বছরের পর বছর ধরে রেলওয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দায়িত্বে অবহেলা আর গাফিলতির কারণে রেলপথ থেকে সরে গেছে পাথর। গজিয়েছে সবুজ ঘাস। এমন কি কোথাও কোথাও সরে যাচ্ছে মাটি, প্রতিনিয়ত চুরি হচ্ছে ক্লীপ। ফলে নড়েবড়ে অবস্থা ভৈরব-ময়মনসিংহ রেলপথের।

অথচ এই রেলপথের রক্ষণা-বেক্ষণের জন্য ভৈরবে রয়েছে শতাধিক কর্মচারী। আর তাদের নিয়ন্ত্রণের জন্য রয়েছে সহকারী নির্বাহী প্রকোশলীর অফিস। দিনের পর দিন আর বছরের পর বছর ধরে দায়িত্বে অবহেলা আর গাফিলতির কারণে ঝুকিঁপূর্ণ হয়ে ওঠেছে এই রেলপথ।

ফলে প্রায়ই ঘটছে দুর্ঘটনা। এসব দুর্ঘটনার কারণে ঘণ্টার পর ঘণ্টা আটকা পড়ে সীমাহীন ভোগান্তি আর দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে হাজার হাজার যাত্রীরা। এরপরও এসব যেন দেখার নেই কেউ।

শুধু তাই নয়, এই রেলপথের কালিকাপ্রসাদ রেলওয়ে স্টেশনটি কাগজে কলমে চালু থাকলেও গেল ৫ বছর ধরে নেই মালামাল বুুকিং কিংবা টিকেট বিক্রির কোন কার্যক্রম। অথচ প্রতিদিনই থামছে ট্রেন, ওঠা-নামা করছে যাত্রীরা।

স্থানীয় রেলওয়ে অফিস সূত্রে জানাগেছে, ভৈরব-ময়মনসিংহ রেলপথে ২১টি রেল স্টেশন রয়েছে। এর মধ্যে লোকবলের অভাবে বছরের পর বছর ধরে কালিকাপ্রসাদ, ছয়সূতি, হালিমপুর, বোকাইনগর, নীলগঞ্জ ও যশোদলসহ বেশ কয়েকটি স্টেশনের কার্যক্রম বন্ধ হয়ে পড়েছে।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, এই পথের বন্ধ স্টেশনগুলোতে বছরের পর বছর ধরে কোন কার্যক্রম না থাকার কারণে ব্যবসায়ীরা করতে পারছেন না মালামাল বুকিং আর যাত্রীদের মিলছে না টিকেট। ফলে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন ভুক্তভোগীরা।

অথচ এসব বন্ধ স্টেশনে প্রতিদিনই থামছে একাধিক ট্রেন, ওঠা-নামা করছে শত শত যাত্রীরা। বিনা টিকিটে রেল ভ্রমণের ফলে সরকার প্রতি বছর লাখ লাখ টাকা রাজস্ব হারাচ্ছে। এছাড়া একাধিক অরক্ষিত রেল ক্রসিং রয়েছে। আর সেতু গুলোতে বাঁশের বদলে দেখা মিলেছে কাঠের হালকা সেপটি।

কালিকাপ্রসাদের আনোয়ার হোসেন, মজনু মিয়া ও শিপন মিয়া মনে করেন, ব্রিটিশ আমলে নির্মিত এই রেলপথে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে হাজার হাজার যাত্রীরা প্রতিদিন যাতায়াত করলেও কিংবা একের পর এক ট্রেন দুর্ঘটনা ঘটলেও টনক নড়নি রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের।

কুলিয়াচরের ট্রেন যাত্রী নাজমুল মিয়া জানায়, ভৈরব-ময়মনসিংহ রেল পথে গেল দেড় মাসে ৩ বার ট্রেন লাইনচ্যূতির ঘটনা ঘটেছে। অথচ এ নিয়ে কারোই কোনো মাথা ব্যাথা নেই। তাই যত দ্রুত সম্ভব সরকার এই রেলপথ উন্নয়নের মাধ্যমে নিরাপদ ও আরামদায়ক ভ্রমণ নিশ্চিত করবে। একই সঙ্গে দোষীদের বিরুদ্ধে নেবে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা। এমনটাই প্রত্যাশা এই অঞ্চলের হাজার হাজার যাত্রীর।

রেলপথের নানা অসঙ্গতি নিয়ে কথা বলতে ভৈরব সহকারী নির্বাহী প্রকোশলী জিষাণ দত্তের অফিসে গিয়ে তাকে না পেয়ে মুঠোফোনে তার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি পরের দিন আসতে বলেন। পরের দিন তিনি কথা দিয়েও অফিসে আসেননি। ফলে তার কক্ষে তালা ঝুলতে দেখা যায়।

পরে এসব বিষয় নিয়ে ভৈরব স্টেশন মাস্টার কামরুজ্জামান প্রথমে বক্তব্য রাজি না হলেও তিনি পরে গেল দেড় মাসে ৩ বার ট্রেন লাইনচ্যূতির ঘটনা স্বীকার করে বলেন, আসলে কিছুটা হলেও দায়িত্বে অবহেলা রয়েছে। এছাড়া রেল লাইন দেখে রাখা সকলের দায়িত্ব বলে মনে করেন তিনি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর