কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ময়মনসিংহ প্রেসক্লাব পদক পাচ্ছেন সিনিয়র সাংবাদিক মু আ লতিফ


 বিশেষ প্রতিনিধি | ৪ ডিসেম্বর ২০১৯, বুধবার, ৮:১৩ | বিশেষ সংবাদ 


সাংবাদিকতায় বিশেষ অবদানের জন্য ময়মনসিংহ প্রেসক্লাব পদক ২০১৯ পাচ্ছেন সিনিয়র সাংবাদিক ও আঞ্চলিক ইতিহাস-ঐতিহ্য সন্ধানী লেখক মু আ লতিফ। আগামী ১০ ডিসেম্বর (মঙ্গলবার) সন্ধ্যায় ময়মনসিংহ প্রেসক্লাব মিলনায়তনে ময়মনসিংহ প্রেসক্লাব পদক ২০১৬-২০১৯ প্রদান অনুষ্ঠানে আনুষ্ঠানিকভাবে তাঁকে এই পদক প্রদান করা হবে।

ময়মনসিংহ প্রেসক্লাব সভাপতি ও জেলা প্রশাসক মো. মিজানুর রহমানের সভাপতিত্বে ময়মনসিংহ প্রেসক্লাব পদক ২০১৬-২০১৯ পদক প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এমপি।

অনুষ্ঠানে ২০১৬ থেকে ২০১৯ এই চার বছরের জন্য মোট ৯ গুণীজনকে সাংবাদিকতা ও সাহিত্যে ময়মনসিংহ প্রেসক্লাব পদক প্রদান করা হবে। এর মধ্যে ময়মনসিংহ প্রেসক্লাব পদক ২০১৬ পাচ্ছেন সাংবাদিকতায় মজিবুর রহমান ফুলপুরী (মরণোত্তর) ও সাহিত্যে সাজাহান শিরাজী (মরণোত্তর)।

ময়মনসিংহ প্রেসক্লাব পদক ২০১৭ পাচ্ছেন সাংবাদিকতায় আব্দুল হাসিম ও সাহিত্যে নাসরিন জাহান। ময়মনসিংহ প্রেসক্লাব পদক ২০১৮ পাচ্ছেন সাংবাদিকতায় মোল্লা জালাল ও আতাউল করিম খোকন এবং সাহিত্যে জাহাঙ্গীর ফিরোজ। ময়মনসিংহ প্রেসক্লাব পদক ২০১৯ পাচ্ছেন সাংবাদিকতায় মু আ লতিফ ও সাহিত্যে গাউসুর রহমান।

ময়মনসিংহ প্রেসক্লাব পদক ২০১৯ এর জন্য নির্বাচিত হওয়া মু আ লতিফ এর পুরো নাম মুহম্মদ আব্দুল লতিফ। সাংবাদিকতা ও লেখালেখির ক্ষেত্রে মু আ লতিফ হিসাবে তিনি সমধিক পরিচিত।

১৯৪৮ সালের ১ ফেব্রুয়ারি কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের পুরানথানা এলাকার জামিয়া রোডের ওয়াহেদ মঞ্জিলে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা মরহুম মো. আব্দুল ওয়াহেদ ও মাতা মরহুমা হাবিবা আক্তার খাতুন।

তিনি স্থানীয় ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ আজিম উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৯৬৪ সনে এস.এস.সি এবং স্থানীয় গুরুদয়াল সরকারি কলেজ থেকে ১৯৬৯ সনে বি.এ পাশ করেন। কলেজে অধ্যায়নকালে ১৯৬৭ সালে ছাত্র ইউনিয়নের প্রার্থী হিসাবে গুরুদয়াল কলেজ ছাত্র সংসদে খেলাধূলা বিষয়ক সম্পাদক পদে নির্বাচিত হন।

কলেজ জীবন থেকেই তিনি লেখালেখির সাথে জড়িত। এসময় তিনি বিশিষ্ট কলেজ শিক্ষক ও সাহিত্যিক অধ্যাপক জিয়া উদ্দিন আহমদ প্রতিষ্ঠিত সাহিত্য মজলিশ এবং বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যক্ষ নরেন্দ্র চন্দ্র ঘোষের সাহিত্য সংসদের একজন সক্রিয় সদস্য হিসাবে কাজ করেন। পরে তিনি বন্ধুদের নিয়ে গড়ে তুলেন তরুণ লেখক গোষ্ঠী। এ গোষ্ঠীর উদ্যোগে বেশ ক’টি সাহিত্য ম্যাগাজিন প্রকাশিত হয়। এর মধ্যে সংবর্ত, ইদানিং অন্যতম।

স্বাধীনতা পরবর্তি সময়ে তিনি সাংবাদিকতা পেশায় যুক্ত হন। মাওলানা ভাসানী প্রতিষ্ঠিত ও সৈয়দ ইরফানুল বারী সম্পাদিত ‘হক-কথা’র রিপোর্টার হিসাবে কাজ শুরু করেন। পরবর্তিতে তিনি ময়মনসিংহ থেকে প্রকাশিত ‘তকবীর’ এবং দৈনিক ইনসাফ–এর সাথে যুক্ত হন। পরে তিনি ঢাকা থেকে প্রকাশিত দৈনিক দেশ, দৈনিক আজাদ, দৈনিক দিনকাল, বাংলাবাজার পত্রিকা, মানবজমিন সহ বেশ কয়েকটি দৈনিকে জেলা প্রতিনিধি হিসাবে দায়িত্বপালন করেন। এছাড়া তিনি স্যাটেলাইট চ্যানেল ‘আরটিভি’র জেলা প্রতিনিধিরও দায়িত্ব পালন করেছেন।

এরমধ্যে তাঁর সম্পাদনায় কিশোরগঞ্জ থেকে পাক্ষিক নরসুন্দা নামে একটি পত্রিকা প্রকাশিত হয় যা ১৯৯৩ সনে সাপ্তাহিক নরসুন্দা’য় উন্নীত করা হয়। এছাড়া কিশোরগঞ্জ থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক মণিহার- এর সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি, দৈনিক শতাব্দীর কণ্ঠ ও দৈনিক আজকের সারাদিন– এর উপদেষ্টা সম্পাদক হিসাবে এগুলোর প্রতিষ্ঠায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন।

বর্তমানে তিনি বাংলাদেশ বেতার এর কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধির দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি দৈনিক বাংলাবাজার পত্রিকা এবং দৈনিক মানবজমিন- এর কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি হিসাবে “সেরা দশ” সংবাদকর্মীর সম্মাননা লাভ করেন। তিনি বাংলাদেশ সাংবাদিক সমিতি’র পদক অর্জন ছাড়াও সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে বিশেষ যত্নশীল ও অবদানের জন্য কিশোরগঞ্জ রিপোর্টার্স ক্লাব তাকে সম্মাননা ও সংবর্ধনা প্রদান করেছে।

মূলত তিনি একজন সংবাদকর্মী হলেও সাহিত্য, ইতিহাস ও গবেষণা বিষয়েও তিনি অসামান্য অবদান রেখে চলেছেন। ইতোমধ্যে তার সম্পাদনায় কিশোরগঞ্জ ইতিহাস সম্মেলন ২০০৪ – এর স্মারকগ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে। কিশোরগঞ্জ জেলা পাবলিক লাইব্রেরি থেকে প্রকাশিত ত্রৈমাসিক সাহিত্য সাময়িক সৃষ্টি’র সম্পাদক অধ্যাপক জিয়াউদ্দীন আহমদ – এর ইন্তেকালের পর তিনি এর সম্পাদনার দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

সাংবাদিকতা, লেখালেখি ছাড়াও তিনি সামাজিক ও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে সক্রিয়ভাবে যুক্ত রয়েছেন। তিনি ১৯৯৭-১৯৯৯ মেয়াদকালে কিশোরগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি হিসাবে প্রেসক্লাবটির উন্নয়নে যথেষ্ঠ ভূমিকা পালন করেন। তার সময়েই প্রেসক্লাব চত্বরে নির্মিত হয় প্রেসক্লাব মুক্তমঞ্চ।

মু আ লতিফ বর্তমানে কিশোরগঞ্জ জেলার আঞ্চলিক ইতিহাস-ঐতিহ্য নিয়ে লেখালেখিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন। প্রকাশিত মোট ১১টি গ্রন্থের মাধ্যমে তিনি কিশোরগঞ্জের ‍মুক্তিযুদ্ধ, ইতিহাস-ঐতিহ্য, ক্রীড়া-সংস্কৃতি অত্যন্ত সুচারু ও শিল্পিত রূপে উপস্থাপন করেছেন। তার সর্বশেষ প্রকাশিত গ্রন্থের নাম ‘কিশোরগঞ্জ আমার প্রিয় কিশোরগঞ্জ’। প্রকাশনা সংস্থা ‘কালো’ গ্রন্থটি প্রকাশ করেছে।

তিনি লেখালেখি, সমাজকর্ম ও সাংবাদিকতার পাশাপাশি খেলাধূলা পছন্দ করেন। ফুটবল তার প্রিয় খেলা, তার ক্রীড়াঙ্গনের অন্যান্য বিষয়ও তিনি বেশ উপভোগ করেন। তার স্ত্রী বেগম রোকেয়া একজন গৃহিনী । তিনি এক পুত্র ও এক কন্যা সন্তানের জনক। একজন সজ্জন ব্যক্তি হিসাবে তিনি সকলের নিকট সমাদৃত।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর