কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরবে ঔষধ প্রশাসন ও ভোক্তা অধিদপ্তরের জনসচেতনতা সভা


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৭:৪১ | ভৈরব 


নকল, ভেজাল, রেজিষ্ট্রেশন বিহীন ও মেয়াদ উত্তীর্ণ ঔষধ প্রতিরোধে জনসচেতনতামূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১২ ডিসেম্বর) সকালে ভৈরব প্রেসক্লাব মিলনায়তনে কিশোরগঞ্জ ঔষধ প্রশাসন, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর ও ভৈরব উপজেলা ঔষধ ব্যবসায়ী সমিতির আয়োজনে এ জনসচেতনতামূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ভৈরব উপজেলা ঔষধ ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি চন্দন কুমার পাল এর সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, কিশোরগঞ্জ ঔষধ তত্ত্বাবধায়ক মোছাম্মৎ ফোরায়া ইয়াছমিন।

এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, কিশোরগঞ্জ ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর সহকারী পরিচালক মো. ইব্রাহীম হোসেন।

এছাড়া অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন, ভৈরব পৌর ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. আল আমিন, উপজেলা ঔষধ ব্যবসায়ী সমিতি সহ-সভাপতি নবী আনোয়ার, সাধারণ সম্পাদক আক্রাম হোসেন, গজারিয়া ইউনিয়ন ঔষধ ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা হাজী আবু জাফর সালেহ, শিবপুর ইউনিয়ন ঔষধ ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মো. আসাদুল্লাহ, শিমুলকান্দি ইউনিয়নের ঔষধ ব্যবসায়ী সভাপতি জহিরুল ইসলাম, ঔষধ সমিতির কর্মকর্তা মিঠু ও রিয়াজ মেডিকেল হল ফার্মেসির মালিক জিল্লুর রহমান প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি মোছাম্মৎ ফোয়ারা ইয়াছমিন বলেন, ফার্মেসি ব্যবস্থাপনায় ঔষধ প্রশাসন অধিদফতরের লক্ষ্য তিনটি। সেগুলো হচ্ছে- জনসচেতনতা বাড়ানো, ঔষধ বিক্রয়কারী প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের জন্য প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা এবং প্রচলিত ঔষধ আইনের প্রয়োগ।

তবে শুধু আইনের প্রয়োগ করলেই চলবেনা, জনসচেনতাও বাড়াতে হবে। নকল ও আনরেজিস্টার্ড ঔষধ কিভাবে চেনা যাবে, ফার্মেসি ব্যবস্থাপনা কিভাবে করতে হবে, ফার্মেসিতে কিভাবে সংরক্ষণ করতে হবে এবং ইনভয়েসের মাধ্যমে ঔষধ ক্রয় করা আবশ্যক। এসব না জেনে অনেক সময় ফার্মেসির মালিক কিংবা ফার্মাসিস্টরা অপরাধ করে থাকেন। তাই এ বিষয়গুলো সম্পর্কে ধারণা নিতে হবে।

নকল, ভেজাল ও মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষধ প্রতিরোধ করে বাংলাদেশের ফার্মেসি ব্যবস্থাপনাকে উন্নত করতে হবে। জনস্বাস্থ্য রক্ষায় এর কোনো বিকল্প নেই।

এছাড়া তিনি আরো বলেন, মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষধের ব্যাপারে ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়কেই সচেতন হতে হবে। তিনি জনসাধারণকে মেয়াদোত্তীর্ণ তারিখ দেখে ঔষধ ক্রয় এবং ঔষধের সঙ্গে নিবন্ধন আছে কিনা অর্থাৎ ঔষধের মোড়কে ডিএআর বা এমএ নম্বর আছে কিনা তা দেখে ক্রয় করার অনুরোধ করেন।

অন্যান্য বক্তারা আরও বলেন, ড্রাগ লাইসেন্সবিহীন ও ফার্মাসিস্টবিহীন ফার্মেসি ব্যবসা আর পরিচালনা করা যাবে না। ফার্মেসিতে আইনতভাবে ফার্মাসিস্টের উপস্থিতি বাধ্যতামূলক। এছাড়া আনরেজিস্টার্ড, নকল, ভেজাল, মিসব্র্যান্ডেড ও কাউন্টারফেইট ঔষধ, ফিজিশিয়ান স্যাম্পল, সরকারি ঔষধ, রোগ নিরাময় করে এমন ফুড সাপ্লিমেন্ট ফার্মেসিতে মজুদ ও বিক্রয় করা যাবে না।

নকল, ভেজাল ও আনরেজিস্টার্ড ঔষধ বিক্রয় বন্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। পাশাপাশি প্রেসক্রিপশন ছাড়া ওটিসি ব্যতীত অ্যান্টিবায়োটিকসহ অন্য কোনো ঔষধ বিক্রি করা যাবে না। সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য কিংবা নির্দেশক মূল্যের চাইতে অধিক মূল্যে ঔষধ বিক্রয় করা যাবে না।

এছাড়া তাপ সংবেদনশীল ঔষধগুলো সঠিক তাপমাত্রায় সংরক্ষণ করতে হবে। পাশাপাশি অন্যান্য সব ঔষধই নির্দেশিত তাপমাত্রায় সংরক্ষণ করতে হবে।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন, ভৈরব উপজেলা ঔষধ ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. নজরুল ইসলাম মুন্সি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর