কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সরষে ফুলের কদর, মিলছে হাতের নাগালেই


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৮ ডিসেম্বর ২০১৯, বুধবার, ৫:১৮ | ছবির খবর  


ক্ষেতের পর ক্ষেতজুড়ে হলুদের সমারোহ। বিস্তীর্ণ মাঠজুড়ে সরষে ফুলের হলদে আভা রাঙিয়ে দিয়েছে দিগন্ত। ওপরে নীল আকাশ আর জমিনে হরিদ্রাভ বর্ণের সরষে ফুল-দুয়ে মিলে প্রকৃতিকে মোহনীয় রূপে সাজিয়ে তুলেছে।

ক্ষেত থেকে ভেসে আসা হলুদ বরণ সরিষা ফুলের কাঁচা মিষ্টি গন্ধে কিশোরগঞ্জ জেলার গ্রামগঞ্জের চারদিক এখন মাতোয়ারা। মৌমাছিরা সে ঘ্রাণে আকৃষ্ট হয়ে ঝাঁকে ঝাঁকে আসছে ক্ষেতে। গুঞ্জরণে মেতে ওঠে ফুল থেকে মধু সংগ্রহ করে ফিরে যাচ্ছে।

বিচিত্র বর্ণের সব প্রজাপতির সরষে ফুলের ওপর উড়ে বেড়ানোর দৃশ্য প্রকৃতিকে আরো অপরূপা করে তুলেছে।

এ বছর আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় কৃষক সরষের বাম্পার ফলন আশা করছেন। কৃষকরা জানান, সরষে কাটা ও মাড়াই শুরু হতে আরো বেশ কিছুদিন লাগবে।

তবে জেলার চর অধ্যুষিত হোসেনপুর, পাকুন্দিয়া ও কটিয়াদীসহ বিভিন্ন উপজেলার অনেক কৃষকই সরষে মাড়াইয়ের দিকে চেয়ে না থেকে সরষে ফুল বিক্রির দিকে ঝুঁকছেন। কেননা সরষে পাতা/ফুলের যথেষ্ঠ কদর রয়েছে। ফলে সরষে পাতা/ফুল শাক হিসেবে বিক্রি করে কৃষক আর্থিক লাভে লাভবান হচ্ছেন।

বিভিন্ন হাট-বাজার ও এলাকা ঘুরে দেখা যাচ্ছে, শহর থেকে গ্রাম সর্বত্রই সব্জির বাজারে জায়গা দখল করে রয়েছে সরষে পাতা/ফুল। ক্ষেত থেকে সরিষা পাতাসহ ফুল তুলে ঠেলাগাড়ি, ভ্যান, রিকশাসহ বিভিন্ন যানবাহনে করে বাজারে নিয়ে যাচ্ছেন কৃষক।

বিশেষ করে জেলার হোসেনপুর, পাকুন্দিয়া, কটিয়াদী উপজেলার হাট-বাজারগুলোতে এই দৃশ্য বেশি চোখে পড়ে।

ক্রেতারা বলছেন, সরষে পাতা/ফুল শাক এবং বড়া হিসেবে মানুষের উপাদেয় খাবারের তালিকায় রয়েছে। শীতের এই সময়টাতে প্রায় সবার রান্নাঘরেই ঠাঁই পাচ্ছে সরষে পাতা/ফুল।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর