কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মন্ত্রীত্বের পর দলেও নেই কিশোরগঞ্জের প্রতিনিধিত্ব


 আশরাফুল ইসলাম, প্রধান সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ২২ ডিসেম্বর ২০১৯, রবিবার, ৭:২৭ | রাজনীতি 


বৃহত্তর ফরিদপুরের গোপালগঞ্জের পর আওয়ামী লীগের দ্বিতীয় দুর্গ নামে পরিচিত বৃহত্তর ময়মনসিংহের কিশোরগঞ্জ। রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে শনিবার (২১ ডিসেম্বর) আওয়ামী লীগের ২১তম জাতীয় সম্মেলনে সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ কেন্দ্রীয় কমিটির নাম ঘোষণা করা হয়েছে। কিন্তু ঘোষিত এই কমিটিতে নেই কিশোরগঞ্জ জেলার কেউ।

মুক্তিযুদ্ধকালীন সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে ছিলেন নেতৃত্বের সেকেন্ডম্যান।

শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম ১৯৬৪-র ৮ মার্চ কাউন্সিল অধিবেশনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি নির্বাচিত হন। ১৯৬৬-র ৮ মে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির অস্থায়ী সভাপতির দায়িত্ব গ্রহণ করেন। ১৯৬৯-এর ২১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ পরিচালনার গুরুদায়িত্ব পালন করেন।

১৯৭৫-এর ২৪ ফেব্রুয়ারি বঙ্গবন্ধুকে চেয়ারম্যান করে বাংলাদেশ কৃষক-শ্রমিক আওয়ামী লীগ ‘বাকশাল’ গঠিত হলে সৈয়দ নজরুল ইসলাম বাকশালের ১৫ সদস্যবিশিষ্ট কার্যনির্বাহী কমিটির ২ নম্বর সদস্য নির্বাচিত হন।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর প্রয়াত রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রথম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। সে সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন দলের সভাপতি।

১৯৭২ সালের ৭ থেকে ৮ এপ্রিল নবম কাউন্সিলের পর ১৯৭৪ সালের ১৮ থেকে ২০ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত ১০ম কাউন্সিলেও মো. জিল্লুর রহমান বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

পরবর্তিতে ১৯৭৫ সালে বাংলাদেশ কৃষক শ্রমিক আওয়ামী লীগ গঠিত হলে জিল্লুর রহমান এর প্রথম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৯২ এবং ১৯৯৭ সালে দলীয় কাউন্সিলে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান পর পর দু’বার দলের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

২০০২ সালে অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের ১৭তম জাতীয় কাউন্সিলে প্রয়াত সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। এক-এগারোতে সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা গ্রেফতার হলে সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও দলীয় মুখপাত্র হিসাবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।

২০০৯ সালের ২৪ জুলাই অনুষ্ঠিত হয় আওয়ামী লীগের ১৮তম জাতীয় কাউন্সিলে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। ২০১২ সালের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের ১৯তম জাতীয় কাউন্সিলে পুনরায় সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।

২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ২০তম কাউন্সিলে দুই বারের সাধারণ সম্পাদক প্রয়াত সৈয়দ আশরাফুল ইসলামকে জায়গা পান প্রেসিডিয়ামে।

এরই মধ্যে সবাইকে শোকের সাগরে ভাসিয়ে গত ৪ জানুয়ারি চিরবিদায় নিয়েছেন কিশোরগঞ্জ-১ (কিশোরগঞ্জ সদর-হোসেনপুর) আসনের টানা পাঁচবারের সংসদ সদস্য কিশোরগঞ্জবাসীর অহংকার সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।

এরপর কিশোরগঞ্জবাসীর প্রথম ধাক্কাটা খায় মন্ত্রিসভায়। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর গত ৬ জানুয়ারি গঠিত মন্ত্রিসভায় জায়গা হয়নি কিশোরগঞ্জের কারো। এবার দলেও উপেক্ষিত হলো কিশোরগঞ্জ। মন্ত্রীত্বের পর দলেও নেই কিশোরগঞ্জের প্রতিনিধিত্ব।

রাজনীতি সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, এবারের কাউন্সিলে আওয়ামী লীগের কমিটিতে কিশোরগঞ্জের কেউ না থাকা হতাশার বিষয়। স্বাধীনতার পর এই প্রথম কোন মন্ত্রিসভায় কিশোরগঞ্জের প্রতিনিধিত্ব নেই। এরপর এখন দলেও প্রতিনিধিত্ব নেই। এটা মানতে জেলাবাসীর কষ্ট হচ্ছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর