কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরবে পাদুকা শিল্প যান্ত্রিকীকরণে উদ্যোক্তাদের বেড়েছে আয়, বেড়েছে কর্মসংস্থান


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ৩০ ডিসেম্বর ২০১৯, সোমবার, ২:২৫ | অর্থ-বাণিজ্য 


১৯৭০ সালের দিকে এদেশে বৃহৎ পরিসরে চামড়াজাত পণ্য ও পাদুকা শিল্পের প্রসার ঘটতে শুরু হয়। পরে কালের পরিক্রমায় এদেশে চামড়াজাত পণ্যের বাজার দিনদিন বৃদ্ধি পায়। ফলে বর্তমান সময়ে বাংলাদেশে আন্তর্জাতিক মানের পাদুকা তৈরির প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে।

২০১৮-১৯ অর্থবছরে চামড়াজাত দ্রব্য রপ্তানী হয়েছে ১০০ কোটি ডলারের, যার মধ্যে ৬০ কোটি ডলার মূল্যের পাদুকা উৎপাদন হয়েছে। বর্তমানে পাদুকা রপ্তানীতে বাংলাদেশ বিশ্ব বাজারে ৮ম অবস্থানে রয়েছে।

এদেশে পর্যাপ্ত শ্রমশক্তি থাকা সত্ত্বেও বাংলাদেশের অবস্থান এতো পিছনে হওয়ার ক্ষেত্রে বেশকিছু প্রতিবন্ধকতা রয়েছে। যেমন- অদক্ষ শ্রমিক, সনাতন পদ্ধতি অনুসরণ, আধুনিক যন্ত্রপাতির অভাব, বিশ্ব বাজারে অবস্থান তৈরীতে অদক্ষতা, কলকারখানার পরিবেশ ও অবকাঠামোগত সমস্যা।

এসকল সমস্যা সমাধান করতে পারলে পাদুকা শিল্প দেশের তৈরি পোশাক শিল্পের ন্যায় বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনেও অগ্রণী ভূমিকা রাখবে। ফলে পাদুকা শিল্পের নানা সমস্যা দুরীকরণে এবং এই শিল্পের মানোন্নয়নে কাজ করছে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা পপি। এজন্যে চালু করা হয়েছে পপি-পেইস সু-ভ্যালু চেইন উন্নয়ন প্রকল্প।

পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) এর সহযোগীতায় আন্তর্জাতিক কৃষি উন্নয়ন তহবিল (ইফাদ) এর আর্থিক সহায়তায় পপি ভৈরবের ক্ষুদ্র পাদুকা শিল্পের যান্ত্রিকীকরণে সাধারণ সেবাকেন্দ্র স্থাপন করছে। ফলে উৎপাদিত পণ্যের বাজারজাত করণের মাধ্যমে উদ্যোক্তাদের যেমন আয় বৃদ্ধি করছে, তেমনি পাদুকা কারিগরদের সারা বছর কাজের জন্য কর্মসংস্থানের সংযোগ সৃষ্টি হয়েছে।

জানা গেছে, ভৈরবে পাদুকা শিল্পে যান্ত্রিকীকরণের মাধ্যমে কারখানায় টেকসই ও উন্নতমানে পাদুকা উৎপাদনের ফলে এশিয়াসহ মধ্যপ্রাচ্যের ৫টি দেশে এসব চামড়াজাত পণ্য রপ্তানী করা হচ্ছে। দেশের চাহিদা মিটিয়ে উৎপাদিত গুণগত মান সম্পন্ন এসকল পাদুকা সৌদি আরব, কুয়েত, দুবাই, ব্রুনাই ও নেপালে রপ্তানীর ফলে প্রচুর পরিমাণে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের মাধ্যমে অধিক পরিমাণে লাভবান হচ্ছেন পাদুকা কারখানার মালিকরা।

এছাড়া উপজেলার ৮ হাজার পাদুকা কারখানার মধ্যে প্রায় দু’হাজার কারখানা আধুনিক যান্ত্রিকীকরণের আওতায় এসেছে। ফলে ভৈরবে দেশ ও বিদেশের নামী-দামী ব্র্যান্ডের পাদুকা উৎপাদন হচ্ছে। এসব ব্যান্ডের মধ্যে রয়েছে, এপেক্স, বাটা, লট্টু, স্টেপ, ওয়ারকার, সম্রাট, আজাদ, লিবার্টি ও পায়ে পায়েসহ জাতীয় পর্যায়ের ৩৮টি ব্র্যান্ডের পাদুকা। ফলে এসব নামী-দামী পাদুকা উৎপাদিত কারখানায় অর্ধলক্ষাধিক কারিগরদের সারা বছর কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। ফলে দেশীয় পাদুকা শিল্পে দুর্দিনের বদলে বইছে সুদিনের হাওয়া।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দেশের দ্বিতীয় পাদুকার বাজার ভৈরবে পাদুকা শিল্পের উন্নয়নে ২০১৭ সাল থেকে কাজ করে যাচ্ছে পপি-পেইস সু-ভ্যালু চেইন উন্নয়ন প্রকল্প। পাদুকা শিল্পের টেকসই উন্নয়ন ও নানা দিককে গুরুত্ব দিয়ে সাজানো হয়েছে এই প্রকল্পের কার্যক্রম।

এরই ধারাবাহিকতায় পাদুকা শিল্পের সাথে জড়িত ১০ হাজার ১১০ জন উদ্যোক্তা, কারিগর, পাদুকা ডিজাইনার, উপকরণ বিক্রেতা, মেশিন ও যন্ত্রপাতি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানসহ এই শিল্পের সাথে জড়িতদের সাথে কাজ করে যাচ্ছে তারা।

ইতোমধ্যে আধুনিক ও মানসম্মত পাদুকা উৎপাদনের জন্য ৪ হাজার ৩৫৮ জনকে ওরিয়েন্টেশন প্রদান, ১ হাজার ৪৭৮ জনকে ট্রেনিং প্রদান, কারখানা যান্ত্রিকীকরণ ও আধুনিকায়নের জন্য ৩২ জন উদ্যোক্তাকে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়েছে।

একই সঙ্গে পাদুকা শিল্পে নারীদের অংশগ্রহণ বৃদ্ধির লক্ষ্যে কারখানাগুলোকে নারীবান্ধব করার জন্য উৎসাহী করা হচ্ছে। ফলে ২ হাজর ৩শ’ নারীকে কর্মসংস্থানের আওতায় আনা হয়েছে।

এছাড়া ১০ জন নারী উদ্যোক্তাকে আর্থিক ও কারিগরি সহায়তা প্রদান এবং ১ হাজার ৩৭৯ জন নারীকে ট্রেনিং ও ওরিয়েন্টেশন প্রদানসহ নারীর ক্ষমতায়নের জন্য বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে।

এর বাইরে কারখানার পরিবেশ ও স্বাস্থ্য সচেতনতার জন্য বিভিন্ন ক্যাম্পেইনের পাশাপাশি কারখানায় অগ্নি নির্বাপক সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষে অগ্নি নির্বাপক মহড়ার আয়োজন করা হয়েছে। সেই সাথে কারখানায় অগ্নি নির্বাপক সরঞ্জামাদী ও ফার্স্ট এইড বক্স রাখতে অনুপ্রাণিত করা হচ্ছে।

একই সঙ্গে প্রকল্প থেকে ই-মার্কেটিং এর ট্রেনিং দেয়া হচ্ছে এবং ২০ জন উদ্যোক্তা ই-মার্কেটিং এর মাধ্যমে পাদুকা বিক্রি করছে। এছাড়াও উৎপাদিত পণ্যের বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় ২টি রিসাইক্লিং সেন্টার স্থাপন করা হয়েছে ও উচ্ছিষ্ট চামড়া পুনঃব্যবহার করে চাবির রিং, সোপিস, ম্যানিব্যাগ, কার্ড হোল্ডার বানাতে উৎসাহিত করা হচ্ছে।

এ পর্যন্ত ভৈরবের ১৫% কারখানাকে প্রাতিষ্ঠানিকীকরণ করা হয়েছে যারা বর্তমানে যান্ত্রিক উপায়ে পাদুকা উৎপাদন করছে। এই প্রকল্প থেকে বিভিন্ন কার্যক্রম গ্রহণের ফলে অংশগ্রহনকারীদের গড় আয় শতকরা ৩৫% বৃদ্ধি হয়েছে এবং শ্রমিকদের মজুরী ৩০% পর্যন্ত বৃদ্ধি পেয়েছে।

ভৈরবে পপি-পেইস সু-ভ্যালু চেইন উন্নয়ন প্রকল্পের এ সকল উন্নয়ন কার্যক্রম সরেজমিনে দেখতে গত বৃহস্পতিবার (২৬ ডিসেম্বর) পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) এর নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আব্দুল্লাহ ও ডেপুটি ডিরেক্টর মো. ফজলুল কাদের একাধিক কারখানা পরিদর্শন করে সন্তুষ প্রকাশ করেন। তারা পাদুকা শিল্পের উন্নয়নে বিভিন্ন কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ শেষে স্থানীয় উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ীদের সাথে কুশল বিনিময় করেন।

এ সময় পপি’র নির্বাহী পরিচালক মোর্শেদ আলম সরকার বলেন, পাদুকা শিল্প যান্ত্রিকীকরণের মাধ্যমে দেশীয় ঐতিহ্য রক্ষায় কাজ করছি আমরা। একই সঙ্গে উন্নত বিশ্বের সাথে পাল্লা দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছি আমরা।

পপি- সু-ভ্যালু চেইন উপ-প্রকল্পের প্রকল্প ব্যবস্থাপক শাহ মো. নাজমুল হক জানান, টেকসই ও মান সম্পন্ন পাদুকা উৎপাদনের মাধ্যমে বিদেশে রপ্তানীর করে জাতীয় অর্থনীতিতে অগ্রণী ভূমিকা রাখবে এই পাদুকা শিল্প। সেই লক্ষেই কাজ করছে পপি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর