কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে পিইসি পরীক্ষায় পাসের হার ৯৭.১৪ শতাংশ, ৪৭৮৮ জিপিএ-৫


 স্টাফ রিপোর্টার | ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার, ১:১০ | শিক্ষা  


২০১৯ সালের প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়েছে। এবার প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় কিশোরগঞ্জ জেলায় পাসের হার ৯৭.১৪ শতাংশ। এর মধ্যে জেলায় মোট জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪৭৮৮ জন।

মোট পাসের হার এবং জিপিএ-৫ প্রাপ্তিতে ছেলেদের তুলনায় এগিয়ে রয়েছে মেয়েরা। ফলাফলে মেয়েদের পাসের হার ৯৭.১৭ শতাংশ এবং ছেলেদের ৯৭.১২ শতাংশ।

এছাড়া মোট ২৭৩৬ জন মেয়ে জিপিএ-৫ পেয়েছে এবং মোট ২০৫২ জন ছেলে জিপিএ-৫ পেয়েছে।

উপজেলা ওয়ারী হিসাবে জিপিএ-৫ প্রাপ্তিতে শীর্ষস্থান দখল করেছে পাকুন্দিয়া উপজেলা। পাকুন্দিয়া উপজেলার মোট ১০৫১ জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। এর মধ্যে বালিকা ৬০৪ জন এবং বালক ৪৪৭ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে।

পাকুন্দিয়া উপজেলায় পাসের হার প্রায় ৯৭.৪৮ শতাংশ। এর মধ্যে পাসের হার বালিকা ৯৮.০৯ শতাংশ এবং বালক ৯৬.৮৬ শতাংশ।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় জিপিএ-৫ প্রাপ্তিতে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার মোট ৯৯৯ জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। এর মধ্যে বালিকা ৫৪৯ জন এবং বালক ৪৫০ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় পাসের হার প্রায় ৯৩.৬৯ শতাংশ। এর মধ্যে পাসের হার বালিকা ৯৩.৮৮ শতাংশ এবং বালক ৯৩.৪৯ শতাংশ।

কটিয়াদী উপজেলার মোট ৪৫২ জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। এর মধ্যে বালিকা ২৭১ জন এবং বালক ১৮১ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে।

কটিয়াদী উপজেলায় পাসের হার প্রায় ৯৫.৬ শতাংশ। এর মধ্যে পাসের হার বালিকা ৯৪.৯২ শতাংশ এবং বালক ৯৬.২৭ শতাংশ।

ভৈরব উপজেলার মোট ৪৩৩ জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। এর মধ্যে বালিকা ২৪০ জন এবং বালক ১৯৩ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে।

ভৈরব উপজেলায় পাসের হার প্রায় ৯৮.২৬ শতাংশ। এর মধ্যে পাসের হার বালিকা ৯৭.৬৯ শতাংশ এবং বালক ৯৮.৮২ শতাংশ।

বাজিতপুর উপজেলার মোট ৩৭২ জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। এর মধ্যে বালিকা ২১০ জন এবং বালক ১৬২ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে।

বাজিতপুর উপজেলায় পাসের হার প্রায় ৯৯.১২ শতাংশ। এর মধ্যে পাসের হার বালিকা ৯৯.১৪ শতাংশ এবং বালক ৯৯.০৯ শতাংশ।

করিমগঞ্জ উপজেলার মোট ৩২৭ জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। এর মধ্যে বালিকা ১৯৯ জন এবং বালক ১২৮ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে।

করিমগঞ্জ উপজেলায় পাসের হার প্রায় ৯৫.৫৩ শতাংশ। এর মধ্যে পাসের হার বালিকা ৯৫.৮৫ শতাংশ এবং বালক ৯৫.২০ শতাংশ।

তাড়াইল উপজেলার মোট ৩০৩ জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। এর মধ্যে বালিকা ১৮০ জন এবং বালক ১২৩ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে।

তাড়াইল উপজেলায় পাসের হার প্রায় ৯৯.৪৪ শতাংশ। এর মধ্যে পাসের হার বালিকা ৯৯.৪১ শতাংশ এবং বালক ৯৯.৪৬ শতাংশ।

হোসেনপুর উপজেলার মোট ৩০১ জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। এর মধ্যে বালিকা ১৬৮ জন এবং বালক ১৩৩ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে।

হোসেনপুর উপজেলায় পাসের হার ৯৬.৭০ শতাংশ। এর মধ্যে পাসের হার বালিকা ৯৬.৮৭ শতাংশ এবং বালক ৯৬.৫৩ শতাংশ।

কুলিয়ারচর উপজেলার মোট ১৭০ জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। এর মধ্যে বালিকা ৯১ জন এবং বালক ৭৯ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে।

কুলিয়ারচর উপজেলায় পাসের হার ৯৮.০২ শতাংশ। এর মধ্যে পাসের হার বালিকা ৯৮.৩৭ শতাংশ এবং বালক ৯৭.৬৭ শতাংশ।

অষ্টগ্রাম উপজেলার মোট ১২৮ জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। এর মধ্যে বালিকা ৭৯ জন এবং বালক ৪৯ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে।

অষ্টগ্রাম উপজেলায় পাসের হার প্রায় ৯৭.০৫ শতাংশ। এর মধ্যে পাসের হার বালিকা ৯৭.০৬ শতাংশ এবং বালক ৯৭.০৩ শতাংশ।

নিকলী উপজেলার মোট ১১৮ জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। এর মধ্যে বালিকা ৬৬ জন এবং বালক ৫২ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে।

নিকলী উপজেলায় পাসের হার প্রায় ৯৮.৪৪ শতাংশ। এর মধ্যে পাসের হার বালিকা ৯৮.৭৫ শতাংশ এবং বালক ৯৮.১২ শতাংশ।

ইটনা উপজেলার মোট ৮১ জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। এর মধ্যে বালিকা ৪৮ জন এবং বালক ৩৩ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে।

ইটনা উপজেলায় পাসের হার ৯৮.৩৫ শতাংশ। এর মধ্যে পাসের হার বালিকা ৯৫.১৭ শতাংশ এবং বালক ৯৫.৫৩ শতাংশ।

মিঠামইন উপজেলার মোট ৫৩ জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। এর মধ্যে বালিকা ৩১ জন এবং বালক ২২ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে।

মিঠামইন উপজেলায় পাসের হার প্রায় ৯৬.৯৩ শতাংশ। এর মধ্যে পাসের হার বালিকা ৯৮.০২ শতাংশ এবং বালক ৯৫.৮৩ শতাংশ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর