কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জের কীর্তিমান লোকগবেষক মোহাম্মদ সাইদুর


 মু আ লতিফ, সাংবাদিক ও আঞ্চলিক ইতিহাস-ঐতিহ্য সন্ধানী লেখক | ৫ জানুয়ারি ২০২০, রবিবার, ১১:৫৯ | ব্যক্তিত্ব 


ঢাকা বিভাগের একটি অন্যতম জেলা কিশোরগঞ্জ। হাওর-বাঁওরে ঘেরা বৈচিত্র্যময় ভূ-প্রকৃতির এক অনন্য জনপদ কিশোরগঞ্জ। চন্দ্রাবতী, মহুয়া-মলুয়ার দেশ এই কিশোরগঞ্জ। এই জেলার ভৌগোলিক আয়তন প্রায় ২,৬৮৯ বর্গ কিলোমিটার। জেলার ১৩টি উপজেলার পরতে পরতে ছড়িয়ে রয়েছে ইতিহাস আর ঐতিহ্যের নিদর্শন। শিল্প-সাহিত্য আর লোকসংস্কৃতির এক সমৃদ্ধ ও উর্বর জনপদের নাম কিশোরগঞ্জ।

কিশোরগঞ্জ অসংখ্য কীর্তিমান মানুষের জন্মস্থান। মুক্তিযুদ্ধকালীন সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রয়াত রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান, বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রয়াত মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, র‌্যাংলার আনন্দমোহন বসু, শহীদ ডা. আবদুল আলীম চৌধুরী, পণ্ডিত শ্রীনীরদচন্দ্র চৌধুরী, মহারাজ ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী, উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী, বিপ্লবী রেবতী মোহন বর্মন, শিক্ষানুরাগী মুন্সি আজিমউদ্দিন আহমদ, শাহনামা অনুবাদক কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ এর মতো অনেক বিখ্যাত লোকের জন্মস্থান কিশোরগঞ্জ।

আমরা ধারাবাহিকভাবে পরিচিত হবো এমনই কিছু বিখ্যাত ব্যক্তিদের সাথে। আজ একাদশ পর্বে আমরা তুলে ধরছি কীর্তিমান লোকগবেষক মোহাম্মদ সাইদুর এঁর সংক্ষিপ্ত জীবনালেখ্য। লিখেছেন সাংবাদিক ও আঞ্চলিক ইতিহাস-ঐতিহ্য সন্ধানী লেখক মু আ লতিফ

প্রাচীন ঐতিহাসিক নিদর্শন দেখলেই আমাদের স্মৃতিপটে যাঁর মুখটি ভেসে ওঠে তিনি হলেন আমাদের সকলের প্রিয় ব্যক্তিত্ব মোহাম্মদ সাইদুর। পুঁথিপাঠ, মুর্শিদিগান, বিয়ের গীত, জারিগান, প্রবাদ-প্রবচন, নৌকাবাইচ, লাঠিখেলাসহ অসংখ্য লোকজ ঐতিহ্যের সংগ্রাহক ও গবেষক, নকশিকাঁথায় মোড়ানো মোহাম্মদ সাইদুরের বর্ণিল জীবন আমাদের এক অমূল্য সম্পদ।

তাঁর প্রকাশিত বাংলার ঐতিহ্যবাহী বয়নশিল্প বিষয়ক গ্রন্থ ‘জামদানী’ এবং অপ্রকাশিত ‘কলাবাড়িয়া গ্রাম: সমাজ ও সাংস্কৃতিক বিশ্লেষণ’ লোকঐতিহ্যের ভাণ্ডারে অমূল্য সংযোজন। পল্লীসাহিত্যের ‘তীর্থভূমি’ খ্যাত বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলের মাটি ও এর রসাস্বাদন করে গড়ে উঠেছে মোহাম্মদ সাইদুরের উজ্জ্বল ভুবন।

গ্রামীণ জনপদের গভীর থেকে কুড়িয়ে আনা সেই ঐতিহ্যের মুক্তোরাজি, লোকজীবন, লোকমানস, লোকসংস্কৃতি প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম আমাদের উজ্জ্বল আলো বিকিরণ করবে নিঃসন্দেহে। তিনি ছিলেন একজন বড়মাপের গবেষক ও নিবেদিত প্রাণপুরুষ।

আমার সাংবাদিকতার পেশায় আসার পেছনে সাইদুর ভাইয়ের অনুপ্রেরণা ছিল। তিনি আমার সহোদর আজিজ ভাইয়ের বন্ধু ছিলেন। সে সুবাদে বড়ভাইয়ের সাথে যাতায়াতের কারণে আমাকে তিনি খুবই স্নেহ করতেন। তাঁরা উভয়ই শিল্প-সংস্কৃতি অঙ্গনের লোক হওয়ায় তাঁদেরকে আমারও ভালো লাগত।

একসময় আমি সাইদুর ভাইয়ের ভক্ত হয়ে পড়ি। এ সময় সাইদুর ভাই গ্রামে-গঞ্জে লোকঐতিহ্য সংগ্রহ ও সাংবাদিকতা পেশায় ঘুরে বেড়াতেন। প্রথম প্রথম তাঁর সাথে শখের বশে আমিও ঘুরে বেড়াতে শুরু করি। এভাবে একদিন পাকুন্দিয়ার এগারসিন্দুর, আবার অন্য একদিন হয়তো করিমগঞ্জের জঙ্গলবাড়ি। পরের সপ্তাহে আবার হয়তো হাওরের অষ্টগ্রামে। এভাবে তাঁর সাথে চারণের মতো ঘুরতে ঘুরতেই সাংবাদিকতার মতো গুরুত্বপূর্ণ পেশায় আমারও প্রবেশ ঘটেছিল।

সাইদুর ভাই ‘পূর্বদেশ’ এবং ‘দৈনিক বাংলা’য় রিপোর্ট করতেন। রিপোর্টিং ও লোকশিল্প সংগ্রহের কাজে তখন প্রায়ই আমি তাঁর সাথী হতাম এবং তাঁর কোডাক ক্যামেরায় ছবি ধারণ করতাম। একবার আমি তাঁর সাথে করিমগঞ্জের নয়াকান্দি গ্রামে যাই। সেখান থেকে তিনি বেশ কিছু মৃৎশিল্প সংগ্রহ করেন। সেখানকার মৃৎশিল্পীদের সাথে তাঁর সহজ-সরল মেলামেশা দেখে আমি সহজেই বুঝতে পারি তাঁর সাথে এদের কত চেনা-জানা, তিনি তাদের কত আপনজন।

পাকুন্দিয়ার এগারসিন্দুরে সম্রাট শাহজাহানের রাজত্বকালে নির্মিত সাদী মসজিদের সামনে দাঁড়িয়ে সাইদুর ভাই আমাকে বলছিলেন, ‘পোড়ামাটির অলংকরণে সমৃদ্ধ এই মসজিদটি সম্পূর্ণ ইটের তৈরি। এ ধরনের টেরাকোটা মসজিদ খুবই বিরল।’

তাঁর এ কথা আজো কানে বাজে। প্রাচীন মসজিদ অথবা মন্দিরসহ যে কোনো পুরাতন স্থাপনার নির্মাণশৈলীর নিখুঁত বর্ণনা করতেন তিনি বিশেষজ্ঞের মতো। সাইদুর ভাইয়ের সাথে নীলগঞ্জের কাচারিপাড়া গ্রামে আদি নারী কবি চন্দ্রাবতীর শিবমন্দির এবং জঙ্গলবাড়িতে বীর ঈসা খাঁর দুর্গ পরিদর্শনে আমি তাঁর সঙ্গী ছিলাম।

শেকড়সন্ধানী লোক-ঐতিহ্য সংগ্রাহক ও গবেষক মোহাম্মদ সাইদুর ছিলেন আমার সাংবাদিকতা জীবনের অনুপ্রেরণার অন্যতম অগ্রজ। পরবর্তীকালে তাঁর ও অধ্যাপক জিয়াউদ্দিন স্যারের আশীর্বাদে আমি কিশোরগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাংবাদিক সদস্য এবং লেখালেখির সাথে সক্রিয় হয়ে পড়ি।

কাঁধে ঝোলানো কাপড়ের ব্যাগ এবং মাথাভর্তি লম্বা চুলের অধিকারী মোহাম্মদ সাইদুর ছিলেন ধ্যানী ও গুণী পুরুষ। তাঁর ধ্যান ও নিমগ্নতা ছিল লোকমানস, লোকসংস্কৃতির অন্তর্গত। মাটির গভীরে প্রোথিত লোকসংস্কৃতির শেকড়সন্ধানী এ মানুষটিকে একেবারে একজন সাধারণ মানুষের মতো মনে হলেও তিনি ছিলেন প্রকৃত অর্থে খাঁটি বাঙালি এবং গ্রামীণ জনজীবনের কল্যাণকামী একজন দরদি অসাধারণ ব্যক্তি।

আমরা যারা তাঁর স্নেহ ও সান্নিধ্য পেয়েছি, আমাদের চোখে তাঁকে অনেক সময় একজন নিভৃতচারী ও খেয়ালি মানুষ মনে হয়েছে। কারণ আমাদের সীমিত জ্ঞান ও চিন্তার ক্ষুদ্রতা তাঁকে বুঝবার জন্য যথেষ্ট ছিল না। তিনি চারণের মতো গ্রাম থেকে গ্রামে ঘুরে কুড়িয়ে এনেছেন মৃৎশিল্পের নানা উপকরণ, কারুময় নকশিকাঁথা, জামদানি ও এর আদি উৎস, শিকাশিল্প, বৈচিত্র্যময় হাতপাখা, লোক-অলংকার, ঐতিহাসিক নিদর্শন এবং গ্রামীণ জনপদে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা লোকগীতি জারি-সারি, পুঁথিসহ অসংখ্য মূল্যবান সম্পদ।

এসব সম্পদ আহরণে তিনি অনেক ক্ষেত্রে বৈজ্ঞানিক রীতি-নীতি অনুসরণ না করলেও এটা সত্য যে তিনি লোকশিল্প, লোকসংস্কৃতি ও লোকসাধারণের উৎসমূলে প্রবেশ করে লোকসাধারণের জীবন ও কর্মের মর্মমূল থেকে হীরা-মণি-মুক্তো আহরণ করতে সক্ষম হয়েছিলেন, যা ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য অমূল্য সম্পদ হয়ে থাকবে।

মোহাম্মদ সাইদুর একজন গুণী সাংবাদিক ছিলেন। কিশোরগঞ্জ থেকে পত্রিকায় রিপোর্ট করতেন। সেজন্য তাঁকে কিশোরগঞ্জ শহর ছাড়াও শহরের বাইরে থানা ও বিভিন্ন গ্রাম-গঞ্জে ঘুরতে হতো। ওই সময় এখনকার মতো যোগাযোগের উন্নত ব্যবস্থা ছিল না। তাছাড়া টেলিফোন ব্যবস্থাও এতটা উন্নত ছিল না। সংবাদ সংগ্রহ এবং পাঠানো ছিল কষ্টসাধ্য। ওই অবস্থায়ও তাঁকে খুবই নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সাথে প্রতিটি সংবাদের পেছনে ছুটতে দেখেছি।

সংবাদের গভীরে প্রবেশ করার তাঁর যেমন ক্ষমতা ছিল, তেমনি সহজ, সরল ও সাবলীল শব্দচয়নের মাধ্যমে সংবাদ তৈরিতে তাঁর অসম্ভব দক্ষতা ছিল। বিভিন্ন বিষয়ের উপর ফিচার তৈরি করতেন তিনি। কোন বিষয় কীভাবে উপস্থাপনা করা দরকার তা তিনি ভালো করে জানতেন। তাঁর নিউজসেন্স প্রবল ছিল যা একজন দক্ষ সংবাদকর্মীর প্রধান গুণ বলে বিবেচিত। তাঁর হস্তাক্ষর ছিল দেখবার মতো পরিচ্ছন্ন ও সুন্দর। কোনো বিষয়ে ফিচার তৈরি করার পূর্বে সরেজমিনে বিষয়টিকে পর্যবেক্ষণ করা এবং এর আদ্যোপান্ত খোঁজ করে নেয়া তাঁর স্বভাব ছিল। তিনি সহজেই সাধারণ মানুষের সাথে মিশে যেতে পারতেন।

তাঁর স্বভাবে কখনো কোনো মেকিভাব লক্ষ করা যায়নি। সহজ-সরল নিরহংকারী সুন্দর মনের মানুষ হিসেবে তাঁর সর্বত্র পরিচিতি ছিল। বাংলার আদি নারীকবি চন্দ্রাবতীর উপর বেশ কিছু ফিচার তিনি লিখেছিলেন। সম্ভবত সে সময় তাঁর লেখালেখির মধ্য দিয়েই কবি চন্দ্রাবতীর ব্যাপক পরিচিতি আমরা লাভ করেছিলাম।

কিশোরগঞ্জের নীলগঞ্জ রেলস্টেশন সংলগ্ন কাচারিপাড়া গ্রামে কবি দ্বিজবংশীদাসের ঘরে জন্ম নিয়েছিলেন চন্দ্রাবতী। সেখানে প্রতিষ্ঠিত চন্দ্রাবতীর প্রায় ধ্বংসপ্রাপ্ত শিবমন্দিরটির রক্ষণাবেক্ষণের উদ্যোগটি প্রত্নতত্ত্ব বিভাগ মোহাম্মদ সাইদুরের লেখালেখির কারণেই নিয়েছিল।

কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক এগারসিন্দুর, জঙ্গলবাড়ি দুর্গ, অষ্টগ্রামের প্রাচীন কুতুব মসজিদ, করিমগঞ্জের জ্ঞানদাসুন্দরী সহমরণ মঠ, কটিয়াদীর সুপ্রাচীন গোপীনাথ জিওর মন্দির, নিকলীর প্রাচীন ছেতরার আখড়া, ইটনার গায়েবি মসজিদ, কিশোরগঞ্জের বত্রিশের একুশ রত্নখ্যাত প্রামাণিক বাড়ি, হয়বতনগর জমিদারবাড়ি, মসূয়ার বিখ্যাত রায় পরিবারের ইতিহাসসহ অসংখ্য ঐতিহাসিক নিদর্শন তিনি লেখালেখির মাধ্যমে সাধারণের সামনে তুলে এনেছেন।

পারিবারিক সূত্র ধরেই এ পথে তাঁর যাত্রা। কারণ তাঁর বাবাও ছিলেন একজন লোকশিল্পী। তথ্য অফিসের গায়ক হিসেবে জনগণকে নানা বিষয়ে সচেতন ও উদ্বুদ্ধকরণের দায়িত্ব গানে গানে তিনি প্রচার করতেন। ছোটবেলায় বাবার গান শুনে তিনি শিল্পী হননি সত্য, তবে শিল্পীদের উন্নয়ন, মর্যাদা প্রতিষ্ঠা ও শৈল্পিক সুষমায় নিজেকে গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছিলেন।

মোহাম্মদ সাইদুরের শিক্ষাজীবন শুরু নিজ গ্রামের বিন্নগাঁও প্রাথমিক বিদ্যালয়, পরে শহরের তমালতলা স্কুল ও কিশোরগঞ্জ মাইনর স্কুল এবং আব্বাস উদ্দিন হাই স্কুলে। ছাত্রাবস্থায়ই তিনি বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের সাথে জড়িত হয়ে পড়েন। এ কারণে তিনি পড়াশোনায় বেশিদূর যেতে পারেননি। এ সময় তিনি বাম রাজনীতির সাথেও জড়িয়ে পড়েন। তৎকালীন আমলের কমিউনিস্ট নেতা নগেন সরকার, অজয় রায়, রবি নিয়োগী, আলতাফ আলী প্রমুখের সাথে তাঁর ঘনিষ্ঠতা গড়ে উঠেছিল।

১৯৫৬ সালে অনুষ্ঠিত ঐতিহাসিক কাগমারী সম্মেলনে তিনি জারিগানের দল নিয়ে অংশগ্রহণ করেছিলেন। এরপর তিনি মফস্বল সংবাদদাতা হিসেবে সংবাদপত্রে  কাজ শুরু করেন।

বাংলা একাডেমিতে যোগদানের পর তিনি লোকসংস্কৃতি, লোকজশিল্পের বিপুল সম্ভার সংগ্রহের মাধ্যমে এক ঐতিহাসিক দায়িত্ব পালন করেছেন। তাঁর আহরিত জ্ঞানভাণ্ডার থেকে বহু দেশী ও বিদেশী গবেষকও নানাভাবে উপকৃত হয়েছেন। বাংলা একাডেমির পাশেই বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি কোয়ার্টারে তিনি সাবলেট থাকতেন। ঢাকার সেই কোয়ার্টারে আমি বহুবার গিয়েছি। কোয়ার্টার জুড়ে নানা সামগ্রী ঠাসা থাকত। এমনকি সংগৃহীত এসব দ্রব্য জায়গার অভাবে তাঁর বিছানায় ও বিছানার নিচে খাটের তলায় গড়াগড়ি করত। এর সবই ছিল মূল্যবান সম্পদ। কিন্তু অজ্ঞতার কারণে সেদিন আমরা এর অনেক কিছুই বুঝতে পারতাম না।

মোহাম্মদ সাইদুরের সংগ্রহ ও গবেষণার মূল্যায়ন করতে গিয়ে বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান বলেছেন, ‘মোহাম্মদ সাইদুর ছিলেন বাংলাদেশের ঐতিহ্যগত বা লোকজ সংস্কৃতির চলন্ত বিশ্বকোষ’। তিনি আরো বলেছেন, ‘বাংলাসাহিত্যের ইতিহাসে মৈমনসিংহ গীতিকার অস্তিত্ব নিয়ে ড. সুকুমার সেন, নন্দগোপাল সেনগুপ্ত ও জসীমউদ্দীনের সংশয় নিরসনে ভিনদেশী বাংলা ভাষাবিশেষজ্ঞ পণ্ডিত চেক নাগরিক দুশান জাবিটেলের ভূমিকা যদি হয় তাত্ত্বিক, সূত্রনির্ভর ও বুদ্ধিবৃত্তিক সাইদুরের ভূমিকা সেখানে বাস্তব প্রমাণনির্ভর।’

মোহাম্মদ সাইদুরের সাথে শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের সুসম্পর্ক ছিল। তাঁরা নকশিকাঁথা নিয়ে একসাথে কাজ করেছেন। জয়নুল আবেদিনের সোনারগাঁ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশন এবং ময়মনসিংহ জয়নুল আবেদিন সংগ্রহশালার অধিকাংশ দ্রষ্টব্যই মোহাম্মদ সাইদুরের সংগ্রহের। তাঁর নকশিকাঁথার অসংখ্য ও অপূর্ব সংগ্রহ বাংলাদেশের অমূল্য সম্পদ বলে আজ বিবেচিত।

পটুয়াশিল্পী কামরুল হাসান ছিলেন তাঁর খুব কাছের মানুষ। বাংলা একাডেমিতে ১৯৭৪ সালে মোহাম্মদ সাইদুরের একক লোকশিল্প সংগ্রহের প্রদর্শনী ও ১৯৮৮ সালে লন্ডনের হোয়াইট চ্যাপেল আর্ট গ্যালারিতে ওপেন এয়ার প্রদর্শনীতে তাঁর লোকশিল্প সংগ্রহের প্রদর্শনী হয়েছে।

তাঁর সংগৃহীত মৈমনসিংহ গীতিকার অনেক পালাই একাডেমির আর্কাইভসে জমা রয়েছে। তাঁর সংগৃহীত ‘মাধব-মালঞ্চি-কইন্যা’ পালাটি কলিকাতার ‘অন্য থিয়েটারে’র কর্ণধার বিভাস চক্রবর্তী প্রযোজিত নাট্যরূপে অভিনীত হয়ে তিনশ রজনী অতিক্রম করে ইতিহাস সৃষ্টি করেছিল। এজন্যে কলকাতায় মোহাম্মদ সাইদুরকে সংবর্ধনা দেয়া হয়।

ভারত, জাপান, সিঙ্গাপুর, মিয়ানমারসহ বেশ কয়েকটি দেশও তিনি সফর করেছেন। তাঁকে বাংলা একাডেমি ফেলোশিপ (২০০১), বাংলা একাডেমি বিশেষ সম্মাননা পুরস্কার (২০০২), আরণ্যক থেকে শ্রেষ্ঠ পালা সংগ্রাহক (১৯৮৮), জাপানের ফুকুওয়াকা এশিয়ান আর্ট গ্যালারি থেকে সংবর্ধনা ও কিশোরগঞ্জের ২১টি সংগঠন যৌথভাবে সংবর্ধনা প্রদান করেছে।

মোহাম্মদ সাইদুর কিশোরগঞ্জে অবস্থানকালে প্রেসক্লাবেই বেশি সময় দিতেন। ফলে আমরা তাঁর সাথে মেলামেশা ও কাজ করার সুযোগ পেতাম। তাঁর সাথে কাজ করার যেমন আনন্দ ছিল, শেখারও ছিল। তখন জিয়া স্যার ও সাইদুর ভাই ছিলেন আমাদের অভিভাবক। তাঁর উপস্থিতিতে আমাদের মধ্যে প্রায়ই জমজমাট আড্ডা হতো।

লিয়াকত হোসাইন মানিক, আজিজুল বারী, ইকবাল সিদ্দিকী, আবু বকর হিরো, সুবীর বসাক, ফেরদৌস, শাহীন, সাঈদ এবং লেখকসহ সবাই ছিলাম তাঁর খুব প্রিয় ও স্নেহধন্য।  তিনি আমাদের নতুন নতুন আইডিয়া দিতেন, অনুসন্ধানী রিপোর্টিং করার জন্য তাগিদ করতেন এবং সাংবাদিকতার গুরুত্ব ও তাৎপর্য অনুধাবনে বিশেষভাবে জোর দিতেন। সে সময় সংবাদকর্ম ছাড়াও সংস্কৃতিচর্চা এবং সাহিত্যকর্ম নিয়ে কাজ করার প্রণোদনা যে কজনের সংস্পর্শে এসে পেয়েছি তিনি তাঁদের অন্যতম।

তখনকার প্রেসক্লাব এখনকার মতো এতটা বড় ও জাঁকজমকপূর্ণ না হলেও এর যথেষ্ট ঐশ্বর্য ছিল। এত বড় ভবন এবং মুক্তমঞ্চও ছিল না। ক্লাবের সামনের অংশে উত্তর পাশে একটি ছোট্ট একতলা দালান ছিল। ওই দালানের পূর্ব অংশে সেক্রেটারির অফিসকক্ষ ছিল। সে কক্ষেই সাধারণত আমাদের অড্ডা হতো। আড্ডার সাথে চলতো চা-সিঙ্গারা। ক্লাবের পিয়ন কেওয়া ভাই ছিলেন এসবের জোগানদাতা।

ক্লাবের পশ্চিম অংশে অর্থাৎ সদর রাস্তার পাশেই ছিল একটি টিনশেডের ঘর। সেখানে প্রেসক্লাবের ছোটখাট একটি লাইব্রেরি ছিল। লাইব্রেরিকে ঘিরে সাহিত্যসভা এবং সংস্কৃতিচর্চা হতো। এসব আড্ডা ও আয়োজনে জিয়া স্যার, সাইদুর ভাই, পণ্ডিত নরেন্দ্র চন্দ্র ঘোষ, অধ্যাপক নুরুল হক, প্রাণেশ স্যারসহ বিদগ্ধ ব্যক্তিগণ উপস্থিত থাকতেন।

প্রেসক্লাবের পরিবেশটি ছিল সাহিত্য-সংস্কৃতির জন্য প্রণোদনামূলক। এবং সে পরিবেশটা বজায় রাখার একটা আন্তরিক প্রয়াস সকলের মধ্যেই সক্রিয় ছিল। প্রেসক্লাবের কোনো অনুষ্ঠানে যখনই কোনো সিনিয়র সদস্যের অনুপস্থিতি দেখতাম তখনই তাঁর উপস্থিতির প্রয়োজনটা প্রাণে প্রাণে অনুভব করতাম। অনুষ্ঠানের মর্যাদা ও গুরুত্ব বৃদ্ধির জন্য সিনিয়রদের উপস্থিতিকে আবশ্যক বলে আমরা মনে করতাম।

কিশোরগঞ্জ অবস্থানকালে মোহাম্মদ সাইদুর আরো বেশ কিছু স্থানে যাতায়াত করতেন। এর একটি বর্তমান সদর মডেল থানার সম্মুখের ডা. জে. বি. রায়ের ফার্মেসি। শিল্পকলা একাডেমীর সম্পাদক ও বিশিষ্ট সংস্কৃতিকর্মী ডা. জে. বি. রায় ও সাইদুর ভাইয়ের মধ্যে নিবিড় সম্পর্ক ছিল।

তাছাড়া তিনি আখড়াবাজারের লোহার ব্রিজের কাছে ‘উল্কা রেস্টুরেন্ট’-এ বসতেন। এর মালিক ছিলেন বিশিষ্ট সমাজসেবী জগদীশ পণ্ডিত। তাঁর সাথেও সাইদুর ভাইয়ের সখ্য ছিল। এ দু স্থানে সাধারণত তাঁকে পাওয়া যেত। শিল্পকলায় ওই সময় বিচিত্র ধরনের অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করা হতো।

ডা. জে. বি. রায়ের নেতৃত্বে তখনকার শিল্পকলা খুবই সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে পরিণত হয়েছিল। ওই সময় অধ্যাপক আতিকুল্লাহ চৌধুরী, অধ্যাপক সি এল রায়, অধ্যাপক নুরুল হক, অধ্যাপক জিয়াউদ্দীন আহমদ, বাবু বিরাজ মোহন রায় ছিলেন শিল্পকলার প্রাণপুরুষ। সাইদুর ভাই তাঁদের সাথেও কাজ করতেন।

শিল্পকলায়  লোকজসংস্কৃতির অনুষ্ঠানমালা যেমন জারি-সারি গান, বিয়ের গীত, পুঁথিপাঠ, কবিগান এবং লাঠিখেলার আয়োজন করা হতো। এসবের উদ্যোক্তা ছিলেন সাইদুর ভাই। এ ধরনের অনুষ্ঠানের জন্য তিনি গ্রামীণ জনপদের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে শিল্পীদের নিয়ে আসতেন।

তাঁর আগ্রহ ও অনুপ্রেরণায় অবহেলিত এসব শিল্পীর অনেকেই পরবর্তী জীবনে প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন। ওই সময় তাড়াইলের সুলতানপুরের বাউল অখিল গোস্বামী, কটিয়াদী চান্দপুরের অন্ধ ও নিরক্ষর কবি মুজিবুর রহমান তালুকদার, যশোদলের লোকশিল্পী অমর শীলসহ অনেক গুণী শিল্পীকে তিনি লোকচক্ষুর অন্তরাল থেকে সাধারণের সামনে তুলে এনেছিলেন। আমার বড়ভাই এম এ আজিজ সে সময় ছিলেন শিল্পকলার কার্যকরী কমিটির সদস্য।

সেই সুবাদে তখন থেকেই শিল্পকলার বিভিন্ন অনুষ্ঠানে আমার সহজ যাতায়াত ছিল। ফলে বড়ভাই ও সাইদুর ভাইয়ের শৈল্পিক মনের পরিচয় সেই কলেজ জীবন থেকেই আমি পেয়েছিলাম। পরে প্রেসক্লাব সদস্য ও সংবাদকর্মী হিসেবে সাইদুর ভাইয়ের সান্নিধ্যে নানাভাবে উপকৃত হয়েছি। সাহিত্য-সংস্কৃতি ও সাংবাদিকতার জগতে বিচরণ করতে গিয়ে একসময় আমি শিল্পকলা একাডেমির কর্মকাণ্ডের সাথে জড়িয়ে যাই এবং একসময় একাডেমির কার্যকরী কমিটির সদস্য হিসেবে দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালন করেছি।

তিনি ভালো ফিচার লিখতেন এ কথা আগেই উল্লেখ করেছি। ১৯৭৭ সালে কিশোরগঞ্জে মহকুমা প্রদর্শনী উপলক্ষে একটি চমৎকার স্মরণিকা প্রকাশিত হয়েছিল। প্রশাসনের ব্যবস্থাপনায় প্রকাশিত ওই স্মরণিকায় মোহাম্মদ সাইদুরের একটি তথ্যসমৃদ্ধ ফিচার আমাকে দারুণভাবে আকৃষ্ট করেছিল। আমার বিশ্বাস, ইতিহাসসন্ধানী প্রত্যেককেই এ ফিচারটি আকৃষ্ট করেছিল এবং কিশোরগঞ্জ সম্পর্কে আরো বিশদভাবে জানার জন্য কৌতূহলী করে তুলেছিল।

পরে মোহাম্মদ সাইদুর ও মোহাম্মদ আলী খানের যৌথ সম্পাদনায় প্রকাশিত ‘কিশোরগঞ্জের ইতিহাস’ গ্রন্থটি এ অঞ্চলের ইতিহাস ও ঐতিহ্যের প্রামাণ্য দলিল হিসেবে মানুষের সেই আশা অনেকটাই পূরণ করেছিল। ওই ইতিহাস গ্রন্থটি প্রকাশের কয়েক বছরের মধ্যে নিঃশেষিত হয়ে যাওয়ায় মোহাম্মদ সাইদুরের সম্পাদনায় জেলা প্রশাসন গ্রন্থটি পুনঃসংস্করণের উদ্যোগ নেয়।

এ সময় মোহাম্মদ সাইদুরের আগ্রহে আমাকেও এর সম্পাদনা পরিষদের সদস্য করা হয়। কিন্তু গ্রন্থটির সম্পাদনা তিনি শেষ করে যেতে পারেননি। এর আগেই তিনি ২০০৭ খ্রিস্টাব্দের ৪ মার্চ না ফেরার দেশে চলে যান।

সাইদুর ভাইয়ের হৃদয়ে বড় একটি আকাঙ্ক্ষা ছিল তাঁর গ্রামের বাড়ির প্রাঙ্গণে একটি জাদুঘর প্রতিষ্ঠার। তিনি সেটি করে যেতে পারেননি। তাঁর মৃত্যুর পর বাড়ি প্রাঙ্গণে ৯ মার্চে আনুষ্ঠিত তাঁর স্মরণসভায় এ জাদুঘর প্রতিষ্ঠা বিষয়েও আলোচনা হয়েছিল। বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান সে সভায় উপস্থিত ছিলেন।

কিশোরগঞ্জ জেলা পাবলিক লাইব্রেরির সম্পাদক হিসেবে আমি তাঁর পরিবারের সদস্যদের প্রস্তাব করেছিলাম জাদুঘরটি তাঁর নামে জেলা পাবলিক লাইব্রেরিতে স্থাপনের। কিন্তু যে কোনো কারণেই হোক তা হয়ে উঠেনি। সম্প্রতি তাঁর সংগৃহীত অজস্র সামগ্রী নিয়ে তাঁর নামে একটি লোকশিল্প জাদুঘর প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে। এ লক্ষ্যে গত ২৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ নিজ গ্রামের ৯৮ শতাংশ জায়গার উপর লোকশিল্প জাদুঘর এর দেয়াল নির্মাণ কাজেরও উদ্বোধন করা হয়েছে।

নকশিকাঁথার সেই মানুষটি আজ আমাদের মাঝে নেই। আমরা একজন অভিভাবককে হারিয়েছি। তাঁকে হারানোর ব্যথা খুবই কষ্টকর। কারণ এ মানুষটির তিরোধানে এ দেশের লোকসংস্কৃতির অগ্রযাত্রায় ছেদ পড়েছে এতে কোনো সন্দেহ নেই।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর