কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৌতিক বিদ্যুৎ বিলে দিশেহারা সেচ পাম্প মালিকরা


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ১২ জানুয়ারি ২০২০, রবিবার, ৪:২১ | কৃষি 


ভৈরবে ভৌতিক বিদ্যুৎ বিলে দিশেহারা সেচ পাম্প মালিকরা। শিমুলকান্দি বিদ্যুৎ অফিসের গাফলতি ও দায়িত্বে অবহেলার কারণে এমন ভৌতিক বিল নিয়ে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে সেচ পাম্প মালিকদের মনে।

এছাড়া আবার কেউ কেউ ধারণা করছেন গড় বিলের নামে বিদ্যুৎ অফিসের কর্মকর্তা ইচ্ছে করে সেচ পাম্প মালিকদের হয়রানী করতে এই ভৌতিক বিল করেছেন। ফলে বিদ্যুতের এই বিল পরিশোধ করতে না পারার কারণে অধিকাংশ সেচ পাম্পে বিদ্যুৎ সংযোগ এখনো পায়নি মালিকরা।

আর পাম্পে বিদ্যুৎ সংযোগ না পাবার কারণে বোরো জমিতে সেচ দিতে পারছে না তারা। ফলে শত শত একর বোরো জমিতে একমাত্র ফসল আবাদ নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছে কৃষকরা। তাই বিদ্যুতের ভৌতিক বিল সংশোধনের দাবিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, নির্বাহী প্রকৌশলী ও শিমুলকান্দি বিদ্যুৎ অফিসের সহকারী কর্মকর্তা বরাবরে লিখিত আবেদন করছেন ভূক্তভোগী সেচ পাম্প মালিকরা।

জানা গেছে, বছরের পর বছর ধরে শিমুলকান্দি বিদ্যুৎ সরবরাহ অফিস থেকে উপজেলার আগানগর, শ্রীনগর ও শিমুলকান্দিসহ গজারিয়া এবং সাদেকপুর ইউনিয়নের প্রায় দুইশতাধিক সেচ পাম্পে মিটার বিহীন বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া হয়েছে। ফলে কৃষি জমিতে ধান আবদ ও উৎপাদন বেড়েছে।

কিন্তু সেচ পাম্প মালিকরা বাজার থেকে মিটার কেনায় নিষেধ থাকায় এবং সরকারিভাবে মিটার সরবরাহ না করায় মিটার বিহীন বিদ্যুৎ সংযোগে চলছে এসব সেচ পাম্প। যদিও বেশ কয়েক বছর আগে সরকারিভাবে হাতেগোনা কিছু মিটার সরবরাহ করা হলেও অধিকাংশ সেচ পাম্প রয়েছে মিটার বিহীন।

ফলে চুক্তি ভিত্তিক হিসেবে বা গড় বিল নামে হতো এসব পাম্পের বিদ্যুৎ বিল। প্রথম দিকে সঠিকভাবে বিল হলেও পরে কিছুটা বাড়ে। কিন্তু গেল বছর অধিকাংশ সেচ পাম্পের ভৌতিক বিদ্যুৎ বিল করা হয়েছে বলে দাবি পাম্প মালিকদের।

ভূক্তভোগী সেচ পাম্প মালিকরা জানান, কারো বিল ৫০ ভাগই বেশি আবার কারো বিদ্যুৎ বিল একশ ভাগ অতিরিক্ত বা দ্বিগুণ করা হয়েছে। যা দেখে অনেক সেচ পাম্প মালিকের মাথা ঘুরে যায়। পরে বিলের কপি নিয়ে শিমুলকান্দি বিদ্যুৎ অফিসে বার বার যোগাযোগ করেও বিষয়টি সমাধান হচ্ছে না।

এদিকে জমিতে আবাদের সময় হলেও সেচের অভাবে ধানের চারা রোপন করতে পারছেন না কৃষকরা।

উপজেলার শ্রীনগর ইউনিয়নের সেচ পাম্প মালিক কিবরু মিয়া জানান, তিনি একজন সেচ পাম্প মালিক হিসেবে হাতে গুনা কয়েক বিঘা জমিতে সেচ দেন। ফলে বিদ্যুৎ বিল দিয়ে তার সামান্য আয় হয়। কিন্তু গত বার যে বিল করেছে আয়ের সবটুকু দিয়েও পরিশোধ করা যাবে না। ফলে বিপাকে পড়েছেন তিনি।

আগানগর ইউনিয়নের সেচ পাম্প মালিক সেলিম মিয়া বলেন, অন্যান্য বারের তুলনায় গতবার বিল দ্বিগুণ করা হয়েছে। ফলে তিনি কিভাবে বিল পরিশোধ করবেন দিশা পাচ্ছেন না।

সুলায়মান ও আবুল বাসার নামে দু’জন সেচ পাম্প মালিক জানান, তাদের দু’টি পাম্পেই মিটার রয়েছে। কিন্তু মিটার না দেখেই অতিরিক্ত বিল করা হয়েছে। তাদের মতো অধিকাংশ সেচ পাম্প মালিকদের একই দাবী। তাদের কথা একটাই, বিল সংশোধন না করলে তারা বেকায়দায় পড়বেন।

বিদ্যুৎ বিলে অসঙ্গতির কথা স্বীকার করে শিমুলকান্দি বিদ্যুৎ সরবরাহ অফিসের সহকারী প্রকৌশলী মো. ইমরান হোসেন তালুকদার মুঠোফোনে এ প্রতিবেদককে বলেন, আমি মাত্র কয়েক দিন আগে এই অফিসে যোগদান করেছি। বিলগুলো আমার আগের কর্মকর্তা করে গেছেন। তাই আমি কিছু করতে পারছি না।

তবে আমি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি অবগত করেছি। তারা আমাকে জানিয়েছেন, নতুন বিলের সময় বিবেচনা করা হবে।

এছাড়া তিনি আরও জানান, যাদের পাম্পে মিটার রয়েছে, তারা অবশ্য মিটার অনুযায়ী রিডিং পাবেন।

এ প্রসঙ্গে ভৈরব উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানা বলেন, বিদ্যুৎ অফিসের সাথে যোগযোগ করে দেখবো বিল সংশোধনের সুযোগ আছে কি না। যদি থাকে তাহলে অবশ্যই বিল সংশোধন করা হবে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর