কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


প্রতিদিন কোটি টাকার মাছ বেচাকেনা হয় করিমগঞ্জের বালিখলায়


 বিশেষ প্রতিনিধি | ২৪ জানুয়ারি ২০২০, শুক্রবার, ১২:১৫ | অর্থ-বাণিজ্য 


কিশোরগঞ্জের হাওরের মিঠাপানির মাছের সুখ্যাতি রয়েছে দেশজুড়ে। কিশোরগঞ্জসহ নেত্রকোনা আর সুনামগঞ্জ হাওরের কিছু অংশের মাছ বেচাকেনা হয় কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ উপজেলার বালিখলা মাছ বাজারে।

এরপর এখান থেকে ঢাকা, চট্টগ্রামসহ সারাদেশে ছড়িয়ে পড়ে। এ বাজারে প্রতিদিন প্রায় কোটি টাকার মাছ কেনাবেচা হয় বলে দাবি করেন ব্যবসায়ীরা।

স্থানীয় সূত্র জানায়, কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ উপজেলার বালিখলা মাছ বাজারের ঐতিহ্য রয়েছে প্রায় দেড়শ’ বছরের। ভোর থেকে জেলেরা বোয়াল, আইড়, চিতল, রুই, কাতলা, বাইন, কালবাউশ, পাবদা, কই, মাগুর, শিং, চিংড়ি, রিটা, গোলশা, শোল, কাচকি, টাকি. পুটিসহ অন্তত অর্ধশত দেশীয় প্রজাতির মাছ এ বাজারে নিয়ে আসেন।

সকাল ৬টা থেকে ১০টা পর্যন্ত চলে পুরোদমে কেনাবেচা। তারপর আড়ৎদাররা মাছ ট্রাকযোগে ঢাকা, চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন জায়গায় পাঠান।

সরেজমিনে বালিখলা বাজারে গিয়ে দেখা যায়, চিৎকার করে মাছের দাম হাঁকছেন কয়েকজন মাছ ব্যবসায়ী। একজন এদিকে ডাক হাঁকছেন তো অপরদিকে আরেকজন। চারদিক থেকে তাদের ঘিরে আছে অসংখ্য মানুষ। মাছ ছাড়া যেন অন্য কোনোদিকে নজর দেওয়ার সময় নেই কারও।

কিশোরগঞ্জের ইটনা, মিঠামইন ও অষ্ট্রগ্রাম উপজেলা এবং সুনামগঞ্জের দিরাই ও নেত্রকোনার খালিয়াজুড়ি উপজেলার বিভিন্ন হাওর থেকে আসা বেশ কিছু জেলের নৌকার ভীড় ছিলো তখন ধনু নদীর তীরঘেষা বালিখলা মাছ বাজার ঘাটে।

নৌকা থেকে মৎসজীবীরা বাঁশের ও প্লাস্টিকের কাঁচায় কেও মাথায় আবার দুইজনে মিলে টেনে ওপরে নিয়ে আসছেন মাছ। সেই মাছ অনেকে নৌকায় আবার অনেক নারী-পুরুষ ঘাট পাড়ে ছট বিছিয়ে ছোট বড় মাছ আলাদা করতে ব্যস্ত সময় পার করছেন।

কেউ আবার মাছ বিক্রি করছেন আড়ৎদারদের কাছে। আড়ৎদাররা আবার নিলাম ডেকে নির্দিষ্ট দরে বিক্রি করছেন ক্রেতাদের কাছে।

একজনের মাছ বিক্রি শেষ না হতেই আরেকজনের মাছ এসে হাজির। আবার শুরু হয় নতুন হাঁক ডাক।

এরকম আট দশজন পাইকার বিরামহীনভাবে ডাক হেঁকে যাচ্ছেন আর স্থানীয় ও বিভিন্ন জায়গা থেকে আসা ক্রেতারা সুবিধা মতো মাছ কিনছেন।

কয়েকজন আড়ৎদার, ক্রেতা ও সাধারণ বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বালিখলা মাছের বাজার এখন জমজমাটভাবে চলছে। প্রায় দেড়শত বছরের পুরোনো এ বাজার। প্রতিদিন ঐতিহ্যবাহী এ বাজারে কিশোরগঞ্জ জেলার ইটনা, মিঠামইন, নিকলী ও অষ্টগ্রামসহ পাশের সুনামগঞ্জ ও নেত্রকোনা জেলার কয়েকটি হাওর থেকে শত শত ক্রেতা ও বিক্রেতার সমাগম ঘটে।

এসব ক্রেতা বিক্রেতার হাতেই প্রতিদিন লেনদেন হচ্ছে ৮০ থেকে ৯০ লক্ষ টাকার মাছ। ডাকে এসব মাছ কিনে ড্রাম ভর্তি করে রাতে পাঠানো হচ্ছে ঢাকা ও চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন জায়গায়। স্থানীয়রাও মাছের চাহিদা মিটাচ্ছেন এখান থেকেই।

ইটনা থেকে মাছ বিক্রি করতে আসা জেলে রুকন উদ্দিন ও মিঠামইন থেকে আসা ফারুক মিয়াসহ অন্তত ১৫জন জেলে জানান, হাওরের মিঠা পানির নানান জাতের মাছ জালে ধরা পড়ছে এবার। ছোট মাছের মধ্যে রয়েছে টেংরা, বাইন, মেনি, টাকি, কাইক্কা, পুটি, চিংড়ি ও চাপিলামাছ।

বড় মাছের মধ্যে ধরা পড়ছে বোয়াল, কার্প, মৃগেল, বাউশ ও শোলমাছ। এছাড়া শিং মাছ ও বিলুপ্তপ্রায় রাণীমাছও মাঝেমধ্যে ধরা পড়ে জালে। তবে ছোট মাছের দাম ও চাহিদা অন্য মাছের চেয়ে একটু বেশি।

কথা হয় এ বাজারে মাছ বিক্রি করতে আসা-দীন ইসলামের সঙ্গে। তিনি জানান, বালিখলা বাজারে মাছের দাম ভালো পাওয়া যায়। ক্রেতাও বেশি। এখানে মাছের ন্যায্য মূল্য পান বলেই তিনি মাছ নিয়ে আসেন।

এ বাজারের রুমা মৎস্য আড়তের আড়ৎদার নৃপেন্দ্র চন্দ্র বর্মণ ও মাছের পাইকার আরজু মিয়া জানান, বালিখলা মাছ বাজারের ঐতিহ্য থাকায় একেকজন ব্যবসায়ী প্রতিদিন ২০-২৫ লাখ টাকার মাছ ক্রয় করতে পারেন। আর এ বাজারে ফরমালিনমুক্ত দেশীয় মাছ পাওয়া যায় বলে চাহিদা বেশী।

তাছাড়া প্রায় দেড়শ বছরের পুরোনো পূর্ব পুরুষদের এ মাছ ব্যবসায় দেখাশুনা করে এখন পরিবারের ভরণপোষণ করছেন স্থানীয় অনেক যুবক।

করিমগঞ্জের বালিখলা মৎস্য বাজার সমিতির সভাপতি মো. সিদ্দিক মিয়া বলেন, কিশোরগঞ্জসহ তিন জেলার বিভিন্ন হাওর থেকে প্রতিদিন প্রচুর মাছ এ বাজারে আসে। এলাকার চাহিদা মিটিয়ে প্রচুর মাছ ঢাকা ও চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন জায়গায় তারা পাঠাচ্ছেন।

জেলেসহ ব্যবসায়ীরাও মাছের ন্যায্য মূল্য পাচ্ছেন। আগে ৬ মাস বেচাকেনা হলেও এখন সারা বছর এখানে বেচাকেনা হয়। এ বালিখলা বাজারে প্রতিদিন প্রায় ৮০ থেকে ৯০ লাখ টাকার মাছ কেনাবেচা হয় বলে তিনি দাবি করেন।

বালিখলা এ মাছের বাজার থেকে অসংখ্য মানুষের আয় রোজগারের ব্যবস্থা হচ্ছে বলে তিনি মন্তব্য করেন। তাই ঐতিহ্যবাহী এ মাছ বাজারটি টিকিয়ে রাখতে নদীর পাশ দিয়ে বাজার লাগোয়া সীমানা প্রাচীরসহ সরকারের সহযোগিতা কামনা করেন তারা।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর