কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পাকুন্দিয়ায় তুলা চাষে ভাগ্য গড়ছেন কৃষক ইসলাম উদ্দিন


 সাখাওয়াত হোসেন হৃদয় | ২৪ জানুয়ারি ২০২০, শুক্রবার, ৩:০৫ | কৃষি 


কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার চরকাওনা মুনিয়ারীকান্দা ব্রহ্মপুত্র নদের চরে ইসলাম উদ্দিন নামের এক কৃষক গত ১১ বছর ধরে বাণিজ্যিকভাবে তুলা চাষ করছেন। উপজেলার চরকাওনা মুনিয়ারীকান্দা গ্রামের কৃষক ইসলাম উদ্দিন এবার ২০ বিঘা জমিতে তুলা চাষ করেছেন।

তুলা উন্নয়ন বোর্ডের সহায়তায় তিনি প্রতিবছর তুলা চাষ করছেন। গত বছর প্রাকৃতিক দুর্যোগে ফলন ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে লোকসান গুণেছিলেন তিনি। কিন্তু এবছর প্রাকৃতিক প্রতিকূলতা সত্ত্বেও তুলার ভাল ফলন হয়েছে। তাই এবার লাভের আশা করছেন ইসলাম উদ্দিন।

তুলা উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানায়, তুলা উন্নয়ন বোর্ডের সহায়তায় প্রায় ২০ বিঘা জমিতে কার্ভাস জাতের তুলা চাষ করেছেন ইসলাম উদ্দিন। গত জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহে তিনি তুলা চাষ শুরু করেন। তুলা গাছে ফলন পেতে ছয় থেকে সাত মাস সময় লাগে।

এবার চারা রোপণসহ আনুষাঙ্গিক খরচ বাবদ তাঁর প্রায় ৪ লাখ টাকা খরচ হয়েছে। শৈত্যপ্রবাহ ও ঘন কুয়াশায় ফলনে কিছুটা সমস্যা দেখা দিলেও এবার তুলার বেশ ফলন হয়েছে। বিঘা প্রতি ১২-১৩ মণ করে তুলা পাওয়া যাবে বলে তিনি আশা করছেন।

সরেজমিনে কৃষক ইসলাম উদ্দিনের তুলা বাগানে গিয়ে দেখা যায়, বিশাল জমিজুড়ে ফুটে আছে সাদা ধবধবে রাশি রাশি তুলা। বাতাসে যেন দুলছে আর দুলছে। আড়াই থেকে তিন ফুট লম্বা তুলা গাছে সাদা ধবধবে তুলা ফুটে আছে। এ যেন সাদা ধবধবে ফুলের বাগান।

হালকা ছোঁয়াতেই সেগুলো তুলে বস্তায় ভরছেন পাঁচজন নারী শ্রমিক। মিনিট দশেক এর মধ্যেই একটি বস্তা ভরে এক জায়গায় জড়ো করছেন। এভাবে সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত ওই নারী শ্রমিকেরা তুলা উত্তোলন করছেন।

তারা প্রায় এক মাস এই তুলা বাগানে তুলা উত্তোলনের কাজ করবেন। এসব তুলা বিক্রির জন্য পর্যায়ক্রমে কুষ্টিয়ায় পাঠানো হবে।

তুলা চাষি মো. ইসলাম উদ্দিন জানান, এবছর ২০ বিঘা জমিতে তিনি তুলার চাষ করেছেন। এতে তাঁর প্রায় ৪ লাখ টাকা খরচ হয়েছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগে ফলন কিছুটা কম হলেও  ২শ’ থেকে আড়াই’শ মণ তুলা পাবেন বলে তিনি ধারণা করছেন। তুলা উন্নয়ন বোর্ড নির্ধারিত মূল্যে বিক্রয় করে এতে তিনি লাভের আশা করছেন।

এ ব্যাপারে তুলা উন্নয়ন বোর্ডের ঢাকা জোনের পাকুন্দিয়া ইউনিটের দায়িত্বে থাকা কটন অফিসার মো. নজরুল ইসলাম বলেন, তুলা চাষে ইসলাম উদ্দিনকে পর্যাপ্ত সহায়তা ও পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এ বছর তুলার ফলন ভাল হয়েছে।

আন্তর্জাতিকভাবে তুলার মূল্য নির্ধারণ করা হয়ে থাকে। গত বছর মণ প্রতি ২৫০০ টাকা ছিল। এবারও একই রকম থাকবে বলে তিনি জানান।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর