কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


অবহেলার শহর আমাদের প্রিয় কিশোরগঞ্জ


 মু আ লতিফ | ২৪ জানুয়ারি ২০২০, শুক্রবার, ৭:৫৪ | মত-দ্বিমত 


যে শহরে খেলার মাঠ নেই অথবা থাকলেও চরমভাবে অবহেলিত সে শহরকে কী আধুনিক শহর বলা যায়? যায় না। যে শহরে শিশুদের বিনোদনের কোনো শিশুপার্ক নেই, একেও আধুনিক শহর বলার কোনো সঙ্গত কারণ নেই। আবার যে শহরের মাঝ দিয়ে প্রবাহিত নদীকে গলা টিপে হত্যা করা হয়েছে, সেই শহরকেও কোনোভাবেই আধুনিক শহর বলা যায় না।

যদি তাই হয়, তাহলে কিশোরগঞ্জকে কোনভাবেই আধুনিক শহর বলার উপায় নাই। এই চরম সত্যটা আমাদের মেনেই নিতে হচ্ছে। তবে বড় প্রশ্ন হচ্ছে, আমরা যারা এ শহরে বাস করি, আমাদের কী এ ব্যাপারে কোনো দায় নেই?

কিশোরগঞ্জ শহরের মাঠগুলো ভালো নেই। শিশুদের কোনো পার্ক নেই। নদীকে লেক বানানোর প্রয়াসও দুর্নীতির কাছে পরাস্ত। সবাই এখন ব্যস্ত অর্থের মোহে। এ জন্যে ক্ষমতা চাই। এ ক্ষমতা জনতার কল্যাণের জন্য নয়। তাই দুর্নীতি হলেও কোনো প্রতিকার নেই। পার্ক না থাকলেও জনপ্রতিনিধিদের মাথা ব্যঁথা নেই। মাঠ ধ্বংস হলেও কিচ্ছু তাদের যায় আসে না।

আমাদের স্বভাব, লোভ, ব্যক্তি এবং গোষ্ঠীস্বার্থ কিশোরগঞ্জকে ওই পর্যায়ে পৌছে দিয়েছে এতে কোনো সন্দেহ নেই। কিশোরগঞ্জের এ পরিণতি জন্য আমরা কী অন্যকে দোষ দিতে পারি? অবশ্যই না। আমি জানি আমার মত অনেকেই এ পরিস্থিতির জন্যে চরমভাবে ক্ষুব্ধ। এদের হৃদয় রক্তাক্ত এবং এক অব্যক্ত মর্ম পীড়ায় এরা প্রতিনিয়ত ক্ষত-বিক্ষত হন।

বর্তমানে আমাদের কিশোরগঞ্জ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়টি যেখানে রয়েছে সেটি  বিদ্যালয়ের জন্য কোনো ভাবেই উপযুক্ত স্থান বলা যায় না। এর ছাত্ররা কখনো খেলার মাঠ দেখে না। এদের মনোজগত মাঠের মত উদার হবে কী করে?

যদিও একসময় এদেরও একটি খেলার মাঠ ছিলো, কিন্তু এটি এখন আমলাদের করায়ত্ব এবং ব্যবসায়ীদের দখলে। সেই মাঠে খেলা হয় না, পন্য-শিল্পের মেলা হয়। এর পাশে কায়দা-কৌশলে একটি স্কুল প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে, যাদের মাঠ তাদের অধিকারকে বঞ্চিত করে।

অথচ এখন সবচেয়ে প্রয়োজন ছিলো সরকারি স্কুলটিকে তাদের নিজস্ব জায়গায় স্থানান্তর করা এবং ছাত্রদের লেখাপড়ার পাশাপাশি সেই মাঠে খেলাধুলার সুব্যবস্থা করা।

আমাদের শহরে দু’টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের দু’টি সুন্দর মাঠ রয়েছে। একটি হচ্ছে গুরুদয়াল সরকারি কলেজের ও অপরটি হচ্ছে আাজিম উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের। এ দু’টি মাঠ আজ চরমভাবে অবহেলিত। মাঠগুলো একেবারেই খেলাধুলার অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। কোনো পরিবেশই নেই সেখানে বলতে গেলে। এ ব্যাপারে সরকারের উর্ধতন কর্র্তপক্ষ এমনকি স্থানীয় প্রশাসনেরও কোনো গরজ নেই।

আজিমউদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়টি শিক্ষার্থীদের পড়াশুনার একটি উত্তম স্থান। সেখানে রয়েছে বড় পরিসরের কম্পাউন্ড ও বিশাল খেলার মাঠ, যা একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য জরুরি। অথচ এটিকে আমরা কোনো কাজেই লাগাতে পারছিনা। কেন পারছিনা, এটা আমাদের চেতনার দৈন্যতা, বৃহত্তর স্বার্থ চিন্তার বিপরীত এবং অবশ্যই ক্ষমাহীন অপরাধ।

আমাদের উচিত হবে এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটিকে সমৃদ্ধ করা এবং চারপাশের পরিবেশকে আরো আকর্ষণীয় করা। এ মাঠটিকে খেলাধুলার জন্য সর্বোতভাবে উন্নত করে শিশু-কিশোরদের খেলার উপযোগী করে গড়ে তোলা। কারণ, একটি আধুনিক শহরের জন্য এসব উপজীব্য অপরিহার্য ও অত্যাবশ্যকীয়।

আবার যদি আমি কিশোরগঞ্জ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের কথায় ফিরে যাই। আমি মনে করি, এ প্রতিষ্ঠানটিকে তার নিজস্ব মাঠের কাছে স্থানান্তর করা উচিত। এটাই হচ্ছে শিশুদের পড়াশুনার উপযুক্ত স্থান। কারণ সেখানে খোলা আকাশ আছে, যে আকাশ শিশুদের উর্দ্ধাকাশের নক্ষত্ররাজি, গ্রহ-উপগ্রহ তাদের হাতছানি দিয়ে ডাকবে।

সেখানকার খোলামাঠ শিশুদের উদার হতে শিক্ষা দেবে এবং সেই সঙ্গে দেহের পরিচর্যার মধ্যদিয়ে বল এনে দেবে ও মনকেও প্রফুল্ল রাখতে সাহায্য করবে। সেটাই তো শিশুদের পড়াশুনার উপযুক্ত স্থান হওয়া উচিত।

আমরা কেন শিশুদের একটি ঘিঞ্জি পরিবেশে ও  খোয়াড়ে বন্দী করে রাখবো। আমরা আমাদের শিশুদের হাইব্রীড হয়ে বড় হতে দেখতে চাই না। তারা বড় হবে, বেড়ে উঠবে মেধা ও মননে, সাহসী ও দৃঢ়চেতা এক একটি রয়েল বেঙ্গল টাইগার হয়ে।

আমাদের গুরুদয়াল কলেজের মাঠটি আজ চরমভাবে অবহেলিত। খেলাধুলার কোনো উপযুক্ত ব্যবস্থা সেখানে নেই। কলেজ কর্তৃপক্ষের কী কোনো দায়িত্ব নেই? আশা করি কলেজ কর্তৃপক্ষ বিষয়টি গভীরভাবে ভেবে দেখবেন।

নরসুন্দা লেকপাড়ে একটি শিশু পার্ক হচ্ছে বহুদিন ধরে। কবে এটি শিশুদের জন্য উন্মুক্ত হবে, কেউ বলতে পারে না। আখড়াবাজার ব্রিজের পাশের চত্বরটিতে স্থানীয় সাহিত্য-সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলোর নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন হয়ে থাকে।

এসব অনুষ্ঠানমালা মানুষকে সুস্থ ও সুন্দর জীবন গড়ার ক্ষেত্রে সহায়, পরস্পরের মধ্যে ভালোবাসার বন্ধন তৈরিতে ভূমিকা রাখে, মানুষের চেতনাকে শানিত করতে এবং দেশ প্রেমে উজ্জীবীত করতে সাহায্য করে। সমাজ-দেশে মূল্যবোধ সৃষ্টিতে তাই সাংস্কৃতিক কর্মযজ্ঞের বিকল্প নেই। এখানে একটি স্থায়ী মঞ্চ ও সেড তৈরির দাবি তাই সকলের।

কিন্তু এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষের কোনো উদ্যোগ নেই। অথচ আমরা জানি মাদক-জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সংস্কৃতি চর্চা খুবই কার্যকর। সাহিত্য-সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলোকে সহযোগিতার প্রয়োজনেই এখানে একটি স্থায়ী মঞ্চ ও সেড তৈরি জরুরি। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ আশা করি ভেবে দেখবেন।

# মু আ লতিফ, সাংবাদিক ও আঞ্চলিক ইতিহাস-ঐতিহ্য লেখক।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর