কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


হাওরের বুক চিরে চললো গাড়ির বহর


 স্টাফ রিপোর্টার | ২৬ জানুয়ারি ২০২০, রবিবার, ৮:৩৫ | বিশেষ সংবাদ 


অবশেষে হাওরবাসীর অপেক্ষার প্রহর ফুরালো। হাওরের সাথে সড়ক পথে যোগাযোগের বাঁধা পেরিয়ে অযুত সম্ভাবনা নিয়ে সবুজ হাওরের বুক চিরে চলেছে গাড়ির বহর। রোববার (২৬ জানুয়ারি)  দুপুরে জেলা সদরের সাথে হাওর উপজেলা ইটনা এবং মিঠামইনের সড়ক পথে পাঁচটি ফেরি সার্ভিস উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে হাওরের যোগাযোগ ব্যবস্থায় সূচিত হয় এক নতুন দিগন্তের।

আনুষ্ঠানিকভাবে ইটনা-বড়িবাড়ি-চামড়াঘাট সড়কের ধনু নদীতে চামড়াঘাট, বড়িবারি ও বাউলাই নদীতে বলদা ফেরি সার্ভিস এবং কিশোরগঞ্জ -করিমগঞ্জ -চামড়াঘাট-মিঠামইন সড়কের ধনু নদীতে বালিখলা ও বাউলাই নদীতে শান্তিপুর ফেরি সার্ভিস এই পাঁচটি ফেরি সার্ভিস উদ্বোধন করা হয়।

এ উপলক্ষে বালিখলায় এক বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি কিশোরগঞ্জ-৩ (করিমগঞ্জ-তাড়াইল) আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. মুজিবুল হক চুন্নু এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য কিশোরগঞ্জ-৪ (ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম) আসনের সংসদ সদস্য প্রকৌশলী রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক ফলক উন্মোচন ও ফিতা কেটে এসব ফেরি সার্ভিসের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।

কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে কিশোরগঞ্জ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মো. জিল্লুর রহমান, পুলিশ সুপার পদে পদোন্নতিপ্রাপ্ত কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো. নাজমুল ইসলাম সোপান, কিশোরগঞ্জ সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. রাশেদুল আলম, মিঠামইন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আছিয়া আলম, ইটনা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান চৌধুরী কামরুল হাসান প্রমুখ এই অবিস্মরণীয় ক্ষণে উপস্থিত ছিলেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠান উপলক্ষে আয়োজিত সভা শেষে ফিতা কেটে বালিখলা ফেরি সার্ভিস উদ্বোধন করা হয়।

পরে বালিখলা ফেরি সার্ভিস দিয়ে দুই সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. মুজিবুল হক চুন্নু ও প্রকৌশলী রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, প্রশাসনের কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিরা গাড়ি বহর নিয়ে ধনু নদী পার হন।

পরে মুজিবুল হক চুন্নু এমপি হুডখোলা জিপে চড়েন। অন্যদিকে রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক এমপি ফুফু মিঠামইন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আছিয়া আলমকে পাশে বসিয়ে নিজে গাড়ি চালিয়ে মিঠামইনে যান।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর