kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

হোসেনপুরে অসহায় বৃদ্ধার পরিবারের ওপর হামলা-মামলার বিচার চান পাঁচ গ্রামের মানুষ



 স্টাফ রিপোর্টার | ১৮ মার্চ ২০১৮, রবিবার, ৬:০৮ | হোসেনপুর 


হোসেনপুরে জায়গা বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের লোকজন কুপিয়ে গুরুতর আহত করে উপজেলার গোবিন্দপুর ইউনিয়নের সৈয়দপুর গ্রামের হতদরিদ্র বৃদ্ধা হামিদা বেগম (৭০) কে। তাকে রক্ষা করতে গিয়ে গুরুতর আহত হন প্রতিবেশী আরেক বৃদ্ধা রাজিয়া বেগম (৬০)। মাকে বাঁচাতে এগিয়ে গেলে প্রতিপক্ষের হামলার শিকার হন দুই ছেলে আব্বাস উদ্দিন (৫০) ও ইসাম উদ্দিন (৪০)। প্রতিপক্ষের এই হিং¯্রতা থেকে রেহাই পায়নি হামিদা বেগমের দুই পুত্রবধু লাকী আক্তার (৪০) এবং লিপি আক্তার (৩২) ও। ভাঙচুর করা হয় অসহায় এই বৃদ্ধার পর্ণকুটির।

গত ৩রা মার্চ সকালে এভাবেই অসহায় বৃদ্ধা ও তার পরিবারের লোকজনের ওপর চলে প্রতিপক্ষের তাণ্ডব আর হিংস্রতা। এতেই ক্ষান্ত দেয়নি তাণ্ডবকারীরা। ওইদিনই প্রতিপক্ষের বরকত উল্লাহ বাদী হয়ে থানায় মামলা করেন হামলার শিকার বৃদ্ধার দুই ছেলে ও দুই পুত্রবধূসহ আটজনের বিরুদ্ধে। এই মামলায় হাজিরা দিতে গিয়ে জেলে যান ঘটনাস্থলে না থাকা শহীদ মিয়া ওরফে সুইখ্যা নামে এক শারীরিক প্রতিবন্ধী।

অসহায় পরিবারটির ওপর নারকীয় এই হামলা ও মামলা নাড়া দেয় এলাকাবাসীকে। সম্মিলিতভাবে এই ন্যাক্কারজনক ঘটনার প্রতিবাদ ও বিচারের দাবিতে সোচ্চার হয়েছেন তারা। অসহায় পরিবারটির হয়ে গ্রামের আবাল-বৃদ্ধ-বনিতাসহ হাজারো মানুষ দাঁড়িয়েছেন হাতে হাত রেখে মানববন্ধন কর্মসূচিতে। রোববার সকালে উপজেলার গোবিন্দপুর ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয় সংলগ্ন সড়কে আয়োজন করা এই মানববন্ধন কর্মসূচিতে অংশ নেয়া গোবিন্দপুর ইউনিয়নের সৈয়দপুর, গাংগাটিয়া, লাকুহাটি, ডাংরী এবং হরিচন্দ্রপট্রি এই পাঁচটি গ্রামের নারী ও শিশুসহ হাজারো গ্রামবাসী অসহায় পরিবারটি ওপর হামলাকারীদের গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবি জানিয়েছেন।

কর্মসূচিতে অংশ নেয়া সৈয়দপুর গ্রামের আবদুস সাত্তার জানান, বৃদ্ধা হামিদা বেগমের শ্বশুর আবদুল জব্বার যৌথভাবে তার শ্বশুর জহুর আলীর সঙ্গে বসতভিটের ১৯ শতাংশ জায়গা ক্রয় করেছিলেন। কিন্তু জহুর আলীর উত্তরাধিকারীগণ আবদুল জব্বারের উত্তরাধিকারী হামিদা বেগম ও তার সন্তানদের বঞ্চিত করে সিংহভাগ জায়গায় ঘরবাড়ি করে নিজেদের দখলে রেখেছেন। এক চিলতে বসতভিটেয় কাঁচা ঘর করে কোন রকমে দিন কাটাচ্ছেন বৃদ্ধা হামিদা বেগম। এ নিয়ে স্থানীয়ভাবে দরবার সালিশে হামিদা বেগমের স্বত্ত্ব প্রতিষ্ঠিত হলেও জহুর আলীর উত্তরাধিকারীগণ জায়গার দখল ছাড়েননি। সম্প্রতি আদালত থেকে হামিদা বেগমের পরিবার ডিক্রি পেলে প্রতিপক্ষ ক্ষিপ্ত হয়। এর জের ধরে পরিবারটির ওপর হামলা ও মিথ্যা মামলা দেয়া হয়।

এলাকার হারুন অর রশিদ, রুহুল আমিন, হুমায়ুন আহমেদ, নাসির উদ্দিন, আবদুর রাজ্জাক, সিদ্দিক মিয়া, আজিম উদ্দিনসহ অসংখ্য গ্রামবাসী একই রকম তথ্য দেন। তারা হামলাকারী দুই সহোদর মো. শহিদুল্লাহ ও বরকত উল্লাহ এবং তাদের চাচাতো ভাই ওয়ারিশ উদ্দিনকে গ্রেপ্তার ও তাদের বিচার দাবি করেন।

এ ব্যাপারে গোবিন্দপুর ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম ভূঁইয়া হিমেল জানান, হামলার শিকার পরিবারটি বাস্তবিক অর্থেই অসহায়। তারা হামলার শিকার হয়েও বিচার পাচ্ছে না, এটি সত্যিই দুঃখজনক।

তবে এ ঘটনায় অভিযুক্ত মো. শহিদুল্লাহ, বরকত উল্লাহ ও ওয়ারিশ উদ্দিনের বাড়িতে গিয়ে তাদের পাওয়া যায়নি। বাড়িতে থাকা মো. শহিদুল্লাহ ও বরকত উল্লাহর মা আছিয়া খাতুন জানান, দুই পক্ষেই হামলা ও আহতের ঘটনা ঘটেছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]


এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ