কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভিক্ষুকের কাছে পাওয়া নবজাতক কোলে নিয়ে উচ্ছ্বসিত ‘ডিসি পত্নী’


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ৩০ জানুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৯:১৭ | এক্সক্লুসিভ 


‘মানবতার উজ্জল দৃষ্টান্ত’ স্থাপন করলেন কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. সারোয়ার মুর্শেদ চৌধুরী। ভৈরবে ভিক্ষুকের কোলে ফেলে যাওয়া সেই নবজাতকের অভিভাবক হিসেবে দায়িত্ব নিয়ে শিশুটিকে কোলে তুলে নিয়েছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার (৩০ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানার কাছ থেকে প্রথমে মা হিসেবে কোলে নেন জেলা প্রশাসক মো. সারোয়ার মুর্শেদ চৌধুরীর সহধর্মীনি সুমনা আনোয়ার। এ সময় তিনি ছিলেন খুবই উচ্ছ্বসিত।

পরে কোলে নেন জেলা প্রশাসক মো. সারোয়ার মুর্শেদ চৌধুরী। এসময় উপস্থিত অনেকে আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়েন। দু’চোখের কোণে ছল ছল করে আনন্দ অশ্রু।

শিশুটিকে কোলে নিয়ে সুমনা আনোয়ার জানান, আজ থেকে এ নবজাতক আমার সন্তান। আর সন্তানকে কোলে নিলে একজন মায়ের অনেক আনন্দ হয়। একই সঙ্গে তিনি শিশুটির উজ্জল ভবিষতের জন্য সকলের কাছে দোয়া কামনা করেন।

আর বাবা হিসেবে দায়িত্ব কাঁধে নিয়ে ডিসি মো. সারোয়ার মুর্শেদ চৌধুরী বলেন, সত্যিই অনেক ভালো লাগছে। আগে আমার একটি মেয়ে ছিল, আজ থেকে আমার দু’টি মেয়ে। তাদের দু’জনকে আমরা সমানভাবে লালন-পালন করবো।

এছাড়াও ভবিষতে যেন সে মনুষত্ববোধ নিয়ে একজন প্রকৃত মানুষ হিসেবে গড়ে ওঠে সেই প্রত্যাশা করেন তিনি।

এসময় ভৈরব উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানা, সহকারি কমিশনার (ভূমি) হিমাদ্রী খিসা, যুব উন্নয়ন অফিসার জলি বদন তৈয়বা, সমাজসেবা অফিসার রিফফাত জাহান ত্রপা, মহিলা বিষয়ক অফিসার শামসুন নাহার তাসমিন ও একাডেমিক সুপার ভাইজার স্বপ্না বেগম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

জানা গেছে, গত ২৪ জানুয়ারি (শুক্রবার) রাত সাড়ে ৮টার দিকে শহরের ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের দুর্জয় মোড়ের বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালের কাছে ‘আমি আসছি’ বলে এক ভিক্ষুক মহিলার কোলে ৩দিন বয়সী নবজাতককে (কন্যা) রেখে পালিয়ে যায় এক নারী।

পরে ওই ভিক্ষুক পাশের একটি ফার্মেসীর মালিক আশরাফুল আলম মুকুল’কে বিষয়টি জানায়। ঘটনাটি শোনে মুকুল উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সাথে যোগাযোগ করে ভৈরব থানায় সাধারণ ডায়েরী করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

ঘটনাটি বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হলে অনেকে নবজাতকের দায়িত্ব নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেন। আদালতে আবেদনের মাধ্যমে শিশুটিকে দত্তক নেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করে কিশোরগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী। পরে আদালত এতে সম্মতি দেন।

গত ২৭ জানুয়ারি (সোমবার) শিশুটিকে ভৈরব উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে তার মাতৃস্নেহে নিয়ে আসেন।

বৃহস্পতিবার (৩০ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় আনুষ্ঠানিকভাবে জেলা প্রশাসক ও তার সহধর্মীনি শিশুটির দায়িত্ব বুঝে নেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর